ঢাকা, মঙ্গলবার , ২৮ জানুয়ারী ২০২০, ১৪ মাঘ ১৪২৬, ০২ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বাংলাদেশের মতো এত সুদ বিশ্বের কোথাও নেই

ব্যাংকের চেয়ারম্যান এবং এমডিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:২০ এএম

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল


অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আমাদের অন্যতম চ্যালেঞ্জ নন-পারফর্মিং লোন (এনপিএল-ঋণ খেলাপি)। আমি বলেছিলাম, ‘ঋণখেলাপি বাড়বে না, বরং সামনে ধীরে ধীরে এর হার কমবে।’ কিন্তু আপনারা বলছেন, এনপিএল বাড়ছে। এনপিএল বাড়ার মূল কারণ সুদের হার। বাংলাদেশের মতো এত বেশি সুদ বিশ্বের আর কোথাও নেই। তবে ব্যাংকের এই ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনতে বাংলাদেশ ব্যাংক সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে দেবে। কমিটি এ বিষয়ে পর্যালোচনা করে আগামী সাতদিন পর প্রতিবেদন দাখিল করবে। সেই প্রতিবেদন অনুযায়ী সরকার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। এছাড়া সুদহারে সিঙ্গেল ডিজিট জানুয়ারিতে (২০২০) কার্যকর করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

গতকাল রোববার পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সম্মেলন কক্ষে দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের (এমডি) সঙ্গে বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, খেলাপি ঋণ বাড়ছে এটা সত্য, কিন্তু কেন বাড়লো তাহলে এটা বলবো অসত্য। সুদের হার বাড়লে খেলাপি ঋণ বাড়বেই। ১৪ থেকে ১৫ শতাংশ সুদহার হলে এটা দিয়ে ঋণ গ্রহীতারা কুলাতে পারে না। সুতরাং সুদহার নয় শতাংশ হলে খেলাপি ঋণ বাড়বে না। আশা করি ১০ বছর পরে আমাদের ব্যালেন্স শিট পরিষ্কার হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা একটি জায়গায় শক্তিশালী ভ‚মিকা রাখতে পারিনি, সেটা হচ্ছে খেলাপি ঋণ। খেলাপি ঋণ বাড়ার একটি কারণ হলো আমাদের সুদহার অনেক বেশি। আমাদের মতো এত উচ্চ ব্যাংক ঋণের সুদ পৃথিবীর আর কোনো দেশে নেই। খেলাপি কমাতো পৃথিবীর অন্য দেশের মতো সুদহার কমাতে হবে। আমরা সবাই বসেছিলাম কীভাবে সুদহার কমানো যায় অথবা কমপিটিটিভ একটা এনভায়রনমেন্টে আনা যায়। সবাই আমরা একবাক্যে স্বীকার করেছি যে, সুদহার কমাতেই হবে। সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে আনতে হবে। সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে আনলে আমাদের এনপিএল অনেক কমে যাবে। সুদহার কমলে আমাদের সঙ্গে বিদেশিরা ব্যবসা করে শান্তি পাবে, কোনো প্রশ্ন করবে না। বিদেশিরা আমাদের এলসিগুলো গ্রহণ করবে।

আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আমি দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথমদিন থেকে বলে এসেছি, খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়বে না। খেলাপি ঋণ যদি বাড়ে তবে কোথা থেকে বাড়ে। এ দেশের সব নাগরিকের কাছ থেকেই খেলাপি ঋণ বাড়ে। তাদের সবার কষ্টার্জিত টাকা। আমি তাদের পক্ষ নিয়েই বলেছিলাম, খেলাপি ঋণ বাড়বে না। আমরা সঠিকভাবে সঠিক কাজ করতে পারলে সব কিছুই সম্ভব। অর্থমন্ত্রী বলেন, ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্টে ৯ শতাংশ সুদে ঋণ পুনঃতফসিলের সুবিধা দেয়া হয়েছিল কিন্তু হাইকোর্ট সেটাতে স্থগিতাদেশ দেয়ায় ব্যবসায়ীরা এ সুবিধা নিতে পারেনি। তাই এ কোয়ার্টারে খেলাপি বেড়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, সুদহার সিঙ্গেল ডিজেট করলে অনেক উপকার হবে। কোর্টের যে অর্ডার ছিল সেটি কিন্তু এখন আর নেই। রায়টি আমরা যেভাবে প্রত্যাশা করেছিলাম সেভাবেই পেয়েছি। কোর্টের অর্ডার বাস্তবায়িত হলেই ঋণখেলাপি কমে যাবে। আমরা বিশ্বাস করি, ৩১ ডিসেম্বর তারিখে আপনারা এর প্রতিফলন দেখতে পাবেন। তাই ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ অবশ্যই কমবে। আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, খেলাপি ঋণ কমাতে শুরু থেকেই আমরা শক্তিশালী ভ‚মিকা পালন করতে পারিনি। এ কারণেই সুদহার বৃদ্ধি পেয়েছে। সুদহার বৃদ্ধি পেলে একটি দেশের উৎপাদনশীল খাত, শিল্প খাত উন্নত হতে পারে না। এ মুহূর্তে যেকোনোভাবে এ খাতকে এগিয়ে নিয়ে আসার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত সুদহার এক অঙ্কে নেমে আসেনি কেন এবং খেলাপি ঋণ দিন দিন কী কারণে বাড়ছে সেটা তদারকির জন্য একটি কমিটি গঠন করা হবে। আগামী ৭ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানাবে কমিটি। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী ১ জানুয়ারি থেকে এ কার্যক্রম শুরু হবে। কমিটিতে কারা থাকবে এমন প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, কমিটিতে একজন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান অর্থ কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত হবে। কমিটির সদস্য সংখ্যা হতে পারে মোট সাতজন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জিডিপি প্রবৃদ্ধি সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর জিডিপি কমলেও আমাদের দেশের জিডিপি কমার কোনো ভয় নেই। কারণ, আমাদের দেশের উৎপাদিত পণ্যের চাহিদা কখনো কমবে না, বরং বাড়বে। এসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির কাছে খেলাপি ঋণ বিক্রির বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির কাছে খেলাপি ঋণ বিক্রিসহ কয়েকটি প্রক্রিয়া বিবেচনাধীন রয়েছে। যেগুলো ক্যাবিনেটে আলোচনার মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে। এসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির কাছে খেলাপি ঋণ বিক্রির বিষয়টি ইতিবাচকভাবে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ব্যাংক মালিকরা ঋণের সুদহার এক অঙ্কে (সিঙ্গেল ডিজিট) নামিয়ে আনতে গত বছরের আগস্টে প্রধানমন্ত্রীকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ওই প্রতিশ্রুতির বিনিময়ে ব্যাংক মালিকরা সরকারের কাছ থেকে একের পর এক সুবিধা নিয়েছেন। কিন্তু ঋণে সিঙ্গেল ডিজিট বা এক অঙ্কের সুদহার বাস্তবায়ন এখনও অধরাই রয়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ১৬ মাসে প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া এ প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছে সরকারি-বেসরকারি মিলে মাত্র ১১টি ব্যাংক। এখনও বেসরকারি খাতের ৩৭টি ব্যাংকের ঋণের সুদহার ১২-২০ শতাংশের ঘরে।

সূত্র জানায়, ঋণের সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যাংক মালিকরা সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা, বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সংরক্ষিত নগদ জমা বা সিআরআর সংরক্ষণের হার কমানো এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে স্বল্পমেয়াদী ধারের নীতি নির্ধারণী ব্যবস্থা রেপোর সুদহার কমিয়ে নিয়েছে। এসব সুবিধা দেয়ার লক্ষ্যই ছিল সুলভ বিনিয়োগ পরিবেশ নিশ্চিতের মাধ্যমে বিনিয়োগ উৎসাহিত করা। নানা সুবিধা পাওয়ার পর ব্যাংকের উদ্যোক্তারা গত বছরের জুনে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণের ঘোষণা দেন এবং একই বছরের ১ জুলাই থেকে এটি কার্যকর হওয়ার কথা জানান। তবে গত ১৬ মাসে বেসরকারি ৪১ ব্যাংকের মধ্যে মাত্র তিনটি ব্যাংক এক অঙ্কের ঋণের সুদহার কার্যকর করেছে। গত বছরই সরকারি খাতের আটটি ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনে। এদিকে সর্বশেষ গত ৫ নভেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্কের ঘরে নামিয়ে আনার নির্দেশ দেন।#

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Smalam Jashiam ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
আমার নেতা ঠীক বলেছেন
Total Reply(0)
Samiul Islam ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
Right
Total Reply(0)
Rezaul Quader ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
বিশ্বের কোথাও বাংলাদেশের মত দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ আর একটাও নেই ! সেটাও বলেন ! এটাও বলেন দুর্নীতির কারণে ব্যাংকের সুদের হার বেশি।যারা ঋণ নেন তারা আর তা ফেরত দেন না ! খেলাপীর কারনেই সুদের হার বেশি। সাহস করে সব সত্য কথা বলেন।
Total Reply(0)
সাইফুল ইসলাম চঞ্চল ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
ধণ্যবাদ। তবে এবার সুদেরবিরুদ্ধে এবার একটা ব্যবস্থা নিন।
Total Reply(0)
মোহাম্মদ মোশাররফ ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
এই সুদই আজ বাংলাদেশের জন্য বড় অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
Total Reply(0)
সত্য বলবো ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৫ এএম says : 0
হে আল্লাহ তুমি আমাদের সুদি অর্থনীতি থেকে মুক্তি দাও।
Total Reply(0)
আবেদ খান ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৯:২৮ এএম says : 0
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাহেবকে অসংখ্য ধন্যবাদ
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন