ঢাকা, মঙ্গলবার , ২১ জানুয়ারী ২০২০, ০৭ মাঘ ১৪২৬, ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সারাদেশে বিক্ষোভ বিএনপির

খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:২০ এএম

দলের চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা এবং নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে গতকাল (রোববার) রাজধানী ঢাকার থানায় থানায় এবং দেশের সকল মহানগর ও জেলা শহরে বিক্ষোভ করেছে দলটির নেতাকর্মীরা। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি’র উদ্যোগে সকল থানায় বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

শাহবাগ থানা বিএনপি’র উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল মোঃ জাহিদ হোসেন নোওয়াব এবং রফিকুল ইসলাম স্বপনের নেতৃত্বে ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালের সামনে শুরু হয়ে অমর একুশে হলের সামনে গেলে পুলিশ হামলা চালিয়ে আঃ রশিদ, সুমন, শাকিল, সুজন ৮/১০ কে আহত করে এবং মোঃ রফিক নামে একজনকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। চকবাজার থানার বিক্ষোভ মিছিল হাজী মোঃ শহিদুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে উর্দু রোড থেকে শুরু হয়ে নুরফাতে লেন হয়ে লালবাগ চৌরাস্তা গিয়ে শেষ হয়। মিছিল থেকে পুলিশ মোঃ আসিফ, মইন, হৃদয়সহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। কোতয়ালী থানার মিছিল হায়দার আলী বাবলা ও আনোয়ারুর আজিমের নেতৃত্বে বাবু বাজার ব্রিজ সামনে শুরু হয়ে ইসলামপুর সামনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে পুলিশ হামলা চালিয়ে মোঃ লিমন ও রহিম নামে দুই জনকে গ্রেফতার করে।

কদমতলীর বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও কদমতলী থানার সভাপতি হাজী মীর হোসেন মীরুর নেতৃত্বে জুরাইন রেল গেইট থেকে ধোলাইপাড় বাস স্ট্যান্ডে শেষ হয়। রবিউল ইসলাম দিপুর নেতৃত্বে অপর একটি মিছিল জুরাইন রেল গেট থেকে শুরু হয়ে ধোলাইপাড় মোড়ে এসে শেষ হয়। শ্যামপুর থানার বিএনপির সভাপতি আনম সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আলিমুল আল বারী জুয়েলের নেতৃত্বেএকটি বিক্ষোভ মিছিল ধোলাপাড় বাসস্ট্যান্ড নতুন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মীরহাজারীবাগ চৌরাস্তায় গিয়ে শেষ হয়। শ্যামপুর থানার অপর একটি মিছিল পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে শুরু হয়ে জুরাইন রেলগেইট গিয়ে শেষ হয়। যাত্রাবাড়ী থানা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি নবীউল্লাহ নবীর নেতৃত্বে শহীদ ফারুক রোড থেকে শুরু হয়ে যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তায় গিয়ে শেষ হয়। নিউমার্কেট থানার মিছিল থানা বিএনপি’র সভাপতি এড. মকবুল হোসেন সরদারের নেতৃত্বে বাটা সিগনাল মোড় থেকে শুরু হয়ে নিউমার্কেট ওভার ব্রিজের সামনে গিয়ে শেষ হয়। কামরাঙ্গীরচর থানার মিছিল নুরবাগ বেড়ীবাঁধ থেকে শুরু হয়ে মাদ্রাসা রোডে গিয়ে শেষ হয়। ডেমরা থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি এবং ডেমরা থানা বিএনপি’র সভাপতি জয়নাল আবেদিন রতন এবং আবুল হাশেমের নেতৃত্বে ডেমরা থানা রামপুরা রোডে আমুলিয়া মাইক্রোবাস কাউন্টার হইতে শুরু হয়ে ডেমরা আতিক মার্কেটে গিয়ে শেষ হয়। খিলগাঁও থানার মিছিল দক্ষিণ বিএনপি সহ-সভপতি ইউনুস মৃধার নেতৃত্বে পল্লীমা সংসদ থেকে শুরু হয়ে খিলগাঁও চৌরাস্তায় গিয়ে শেষ হয়। রমনা থানার একটি বিক্ষোভ মিছিল ১৯ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি আব্দুল মোতালেব রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন কবিরের নেতৃত্বে মোৗচাক মার্কেটের সামনে থেকে শুরু হয়ে মালিবাগ রেলগেইট গিয়ে শেষ হয়। মতিঝিল থানার মিছিল থানা বিএনপি সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আক্তার হোসেনের নেতৃত্বে ফকিরাপুল কালভার্ট রোর্ড থেকে শুরু হয়ে ফকিরাপুল বাজারে গিয়ে শেষ হয়। গেন্ডারিয়া থানা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল দক্ষিণ বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও গেন্ডারিয়া থানা বিএনপি’র সভাপতি কাউন্সিরার মকবুল হোসেন টিপু ও গেন্ডারিয়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলার আঃ কাদির এর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি দয়াগঞ্জ মোড় থেকে শুরু হয়ে সাহেব বাড়ীর সামনে গিয়ে শেষ হয়।

বংশাল থানা বিএনপির মিছিল সাধারণ সম্পাদক মামুন আহমেদের নেতৃত্বে সিদ্দিক বাজার থেখে শুরু হয়ে বংশাল রোড প্রদক্ষিণ করে নাজিরা বাজরে গিয়ে শেষ হয়। এ ছাড়াও লালবাগ, শাহজাহানপুর, মুগদা, কলাবাগান, ধানমন্ডি, পল্টন, সবুজবাগ, ওয়ারী ও সূত্রাপুর থানার নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ মিছিল করে।

ঢাকা মহানগর উত্তরের বনানী থানা বিএনপির একটি মিছিল সিটি কর্পোরেশন মার্কেট থেকে শুরু হয়ে মহাখালী বাসস্ট্যান্ড এসে শেষ হয়। বাড্ডা থানার মিছিল গুলশান-বাড্ডা লিংক রোড থেকে শুরু হয়ে বাড্ডা সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে গিয়ে শেষ হয়। রামপুরা থানার মিছিল আবুল হোটেলের সামনে থেকে শুরু হয়ে রামপুরা বাজারে গিয়ে শেষ হয়। মোহাম্মদপুর ও আদাবর থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি আতিকুল ইসলাম মতিনের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের সামনে থেকে শুরু করে নূরজাহান রোডে গিয়ে শেষ হয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল সারা দেশে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় বক্তারা বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বেশি ভয় পায়। সেজন্য তাকে বিনা কারণে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া শেখ হাসিনার প্রতিহিংসার শিকার। তারা অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। খালেদা জিয়ার শারিরীক অবস্থা এখন উদ্বেগের গন্ডি পেরিয়ে দারুন সঙ্কটাপন্ন। তার অসুস্থতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। অবস্থা এতটাই ভয়াবহ যে, তিনি পঙ্গু হয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন বলেও দাবি করেন বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতির সমালোচনা করে বক্তারা বলেন, পেঁয়াজ চালসহ প্রায় প্রতেকটি নিত্যপণ্যের বাজার সাধারণের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন বৃদ্ধিতে জনগণের নাভিশ্বাস উঠেছে, অথচ সরকার তার ব্যর্থতা ঢাকতে প্রতিদিন এরমধ্যে বিএনপি’র ষড়যন্ত্রের পুরনো অচল বস্তাপচা গল্প ফাঁদছে। দেশের কয়েকটি জেলায় মিছিল ও সমাবেশে পুলিশী বাঁধার অভিযোগ করে বক্তারা বলেন জনগণ জেগে উঠেছে। কোন বাঁধায় জনগণকে আর আটকে রাখা যাবে না।

চট্টগ্রাম : বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপি। মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়াকে আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বেশী ভয় পায়। তিনি অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, সরকার সুপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। বিএনপি নেতা ইয়াসিন চৌধুরী লিটনের সঞ্চালনায় সমাবেশে বিএনপি নেতা এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, এড. আবদুস সাত্তার, হাজী মোহাম্মদ আলী, প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। দক্ষিণ জেলা বিএনপির এক সমাবেশ দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপির আহŸায়ক আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

নোয়াখালী : নোয়াখালী জেলা বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের যৌথ উদ্যোগে জেলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন নেয়াখালী শহর বিএনপির সভাপতি মো. আবু নাছের, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন খান, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আজগর উদ্দিন দুখু, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসান মো. নোমান ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান।

বরিশাল : মহানগর বিএনপি‘র উদ্যেগে বরিশালে সবাবেশ ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর বগুড়া রোড খামারবাড়ীর সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নেতৃবৃন্দ সদর রোডে দলীয় কার্যালয়ে পৌছে কর্মসূচী সমাপ্ত ঘোষণা করেন।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে বাঁধা দিয়েছে পুলিশ। এ সময় পুলিশী বাঁধায় সমাবেশ করেন বিএনপি নেতারা। দুপুরে দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে নতুন বাজার মোড় গেলে সেখানে পুলিশী বাধার মধ্যে পড়ে। পরে সেখানেই সমাবেশ করে নেতাকর্মীরা। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা দক্ষিণ বিএনপির আহবায়ক ডাঃ মাহবুবুর রহমান লিটন, যুগ্ম আহবায়ক আলমগীর মাহমুদ আলম, মহানগর বিএনপির আহবায়ক অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম।

খুলনা : খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, মিথ্যা বানোয়াট ঘষামাজা নথির ভিত্তিতে মামলায় জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সরকার ৬৬৮ দিন বন্দী করে রেখেছে, যা অত্যন্ত অমানবিক এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতির বক্তৃতায় নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, নির্বিচার দু:শাসনে বাংলাদেশে কেউ আজ নিরাপদ নয়। পেঁয়াজ চালসহ প্রায় প্রতেকটি নিত্যপণ্যের বাজার সাধারণের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। সভায় বক্তৃতা করেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, শাহারুজ্জামান মোত্তুজা, মীর কায়সেদ আলী, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আঃ রশিদ, এড. ফজলে হালিম লিটন, প্রমুখ।

গাজীপুর : গাজীপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার বলেছেন, মানবিক গুণাবলী আজ চরমভাবে ভুলুণ্ঠিত। উপমহাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় নেত্রী সাবেক তিন বারের সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দী রাখা হয়েছে। জেলা বিএনপির সভাপতি ও ঢাকা বিভাগীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে ও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. সোহরাব উদ্দিনের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবীর খান, গাজীপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী সাইয়েদুল আলম বাবুল, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কালিয়াকৈর পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, ডা. মাজহারুল আলম, প্রমুখ।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামে দুপুরে শহরের কাপড় বাজার থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে পুরাতন পোষ্ট অফিস পাড়াস্থ দলীয় কার্যালয় এর সামনে পৌঁছলে পুলিশ মিছিলে বাঁধা দেয়। পরে চেয়ারপার্সনের মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে দলীয় কার্যালয়ের ভিতরেই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক, সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রানা, সহ সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান,জহুরুল আলম, প্রমুখ।

নেত্রকোনা : নেত্রকোনায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা বিএনপির আহবায়ক, বিশিষ্ট অর্থোপেডিক চিকিৎসক, ড্যাব নেতা, অধ্যাপক ডা. মো. আনোয়ারুল হকের সভাপতিত্বে যুগ্ম আহবায়ক এস এম মনিরুজ্জামান দুদুর পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ড. রফিকুল ইসলাম হিলালী, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের তালুকদার, প্রমূখ।

শেরপুর : শেরপুর জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। কিন্তু মিছিলটি মেইন সড়কের আসার আগেই পুলিশের বাধায় পন্ড হয়। ফলে মিছিলটি আর শহরে ঢুকতে পারেনি। রঘানাথ বাজার মন্দিরে সামনে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আওয়াল চৌধুরী। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সহসভাপতি এডভোকেট আব্দুল মজিদ বাদল, শহর বিএনপির সভাপতি এডভোকেট আব্দুল মান্নান, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আলী প্রমুখ।

ফরিদপুর : বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ফরিদপুর বিএনপি। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোদাররেস আরী ঈসা, সাবেক যুবদল সভাপতি আফজাল হোসেন খান পলাশ, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কিবরিয়া স্বপন, মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ তাবরিজ প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
সত্য বলবো ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৭ এএম says : 0
সকল নেতৃবৃন্দের প্রতি সংগ্রামী শোভেচ্চা।এই ধরনের আন্দোলন সংগ্রাম করে দেশ মাতা খালেদা জিয়া তথা দেশের মানুষকে এই শৈরশাসকের হাত থেকে মুক্ত করতে হবে।
Total Reply(0)
মোঃ তোফায়েল হোসেন ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৭ এএম says : 0
একদিকে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপি আন্দোলন করার ক্ষমতা নেই,আরেক দিকে বিএনপি যখন তাদের দলের নেত্রীকে মুক্তি করার জন্য আন্দোলন করেন, তখন তাদেরকে আন্দোলন করার জন্য কোন সুযোগ দিচ্ছে না। তাহলে কি দেশে কি আর কেউ আন্দোলন করতে পারবেনা?
Total Reply(0)
Md Rafiq ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৭ এএম says : 0
উপস্থিত সকল নেতৃবৃন্দের প্রতি সংগ্রামী সালাম ও কৃতজ্ঞতা।
Total Reply(0)
Aminul Islam Rakib ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৭ এএম says : 0
অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি
Total Reply(0)
চাদের আলো ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৮ এএম says : 0
ঢাকা অচল করেন, সব রাজনৈতিক দল এক হয়ে রাস্তায় নামেন, সৈরাচার নিপাত যাক,বাংলাদেশ মুক্তি পাক।
Total Reply(0)
Shohid Islam ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১:০৯ এএম says : 0
আমি দোয়া করি আল্লাহ পাক যেন দেশ মাতা মনে আশা পুরন হয়
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন