ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

ঢাকা-জেদ্দা রুটে টিকিট সঙ্কট চরমে

দশ হাজার ওমরাযাত্রী বিপাকে

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৭:০৬ পিএম

ঢাকা জেদ্দা রুটে বিমানের টিকিট সঙ্কটের দরুণ প্রায় ১০ হাজার ওমরাযাত্রী বিপাকে পড়েছেন। ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য অফিসে কর্মরত ব্যক্তিবর্গ ছুটি নিয়ে ওমরাহ পালনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। কিন্ত অনেকেই ঢাকা জেদ্দা রুটে ফ্লাইট সঙ্কটের দরুণ মোফা (ওমরাহ ভিসা) হাতে নিয়েও সউদী যেতে পারছে না। ফ্লাইট সঙ্কট নিরসনে অপেক্ষমান ওমরাযাত্রীরা ঢাকা জেদ্দা রুটে প্রতিদিন বিমানের অতিরিক্ত আরো দু’টি ফ্লাইট চালুর জোর দাবি জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘ এক বছর যাবত পাঁচটি এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে তাদের ব্যবসায়ীক কার্যক্রম গুটিয়ে নিয়েছে। এতে সউদীসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমূহে টিকিট সঙ্কট চরম আকার ধারণ করেছ। এ সুবাধে এক শ্রেণির অসাধু ট্রাভেলস এজেন্সি ওমরাযাত্রীদের টিকিটের দাম অস্বাভাবিক বাড়িয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। যেসব এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ রেখেছে তা’হচ্ছে, ইত্তেহাদ এয়ার, ওমরান এয়ার , জেড এয়ার, কাতার এয়ারওয়েজ ও ফ্লাইট দুবাই।

সাউদিয়া এরাবিয়ান এয়ারলাইন্স প্রতিদিন ঢাকা জেদ্দা রুটে তিনটি ফ্লাইট চালু করে দেদারসে ওমরাযাত্রী পরিবহন করছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স প্রতিদিন উক্ত রুটে মাত্র একটি ফ্লাইট দিয়ে লেবারসহ ওমরাযাত্রী পরিবহন করছে। এতে ওমরাযাত্রী ফ্লাইট সঙ্কট চরমে পৌঁছেছে। ঢাকা চট্টগ্রাম থেকে মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক থার্ড ক্যারিয়ারগুলোও প্রতিদিন স্ব স্ব দেশের ট্রানজিট সুবিধা নিয়ে প্রচুর ওমরাযাত্রী পরিবহন করছে। বিমান কর্তৃপক্ষ ঢাকা জেদ্দা রুটে প্রতিদিন আরো দু’টি অতিরিক্ত ফ্লাইট চালু করলে সংস্থাটি প্রচুর রাজস্ব আয় করতে সক্ষম হবে। একাধিক ওমরাহ এজেন্সির স্বত্বাধিকারী এ অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

১৪৪১ হিজরীর ১ মুহররম থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ওমরাযাত্রীরা সউদী আরবে যাওয়া শুরু করেন। গত শুক্রবার ১৫ রবিউস সানি পর্যন্ত সউদী হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় বিশ্বের ২০ লাখ ৩১ হাজার ৭৫১ জন ওমরাযাত্রীর মোফা ইস্যু করেছে। এর মধ্যে ১৫ লাখ ৬৬ হাজার ৭৫৪ জন ওমরাহ পালনের জন্য সউদী গেছেন এবং ১২ লাখ ২১ হাজার ৩০৪ জন ওমরাহ পালন শেষে নিজ নিজ দেশে ফিরেছেন।

এবার সউদী আরবে সর্বাধিক ওমরাযাত্রী গেছে পাকিস্তানের ৪ লাখ ১১ হাজার ১৪০ জন, ইন্দোনেশিয়ার গেছে ৩ লাখ ৬৮ হাজার ১৯৩ জন, ভারতের গেছে ২ লাখ ২১ হাজার ৯৫৬ জন, মালয়েশিয়ার গেছে ৯৭ হাজার ৭০৯ জন, তুর্কির গেছে ৬৫ হাজার ৮৩ জন, মিশরের গেছে, ৫৩ হাজার ৯৬২ জন, বাংলাদেশের গেছে ৪৭ হাজার ৯৬২ জন, আলজেরিয়ার গেছে ৪৫ হাজার ৯৫০জন, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে গেছে ২৯ হাজার ৫৪৪জন, উরদুন থেকে গেছে ২৩ হাজার ৯২৬ জন।

বাংলাদেশ থেকে ওমরা কার্যক্রম প্রায় দু’মাস বিলম্বে শুরু হওয়ায় অনেকেই ওমরাহ পালনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। গত ১৭ অক্টোবর থেকে বাংলাদেশি ওমরাযাত্রীরা সউদী যাওয়া শুরু করেন। রাজশাহী ট্রাভেলসের স্বত্বাধিকারী মুফতি মুস্তাফিজুর রহমান ওমরাযাত্রীদের টিকিট সঙ্কট চরম আকার ধারণ করায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে গতকাল শনিবার বলেন, আজ রোববার থেকে আগামী ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিমানের ঢাকা জেদ্দা রুটে কোন টিকিট নেই। তিনি বিমানের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি এবং ওমরাযাত্রীদের ফ্লাইট সঙ্কট দ্রæত নিরসনের লক্ষ্যে আগামী রমজান পর্যন্ত ঢাকা জেদ্দা রুটে প্রতিদিন আরো অতিরিক্ত দু’টি ফ্লাইট চালুর জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সুদৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
আবাবিল হজ গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আবু ইউসুফ ইনকিলাবকে বলেন, ডিসেম্বর মাসে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষক শিক্ষিকা ছুটি নিয়ে মোফা ইস্যু করে বিমানের টিকিটের অভাবে সউদী যেতে পারছেন না। তিনি অবিলম্বে ওমরাযাত্রীদের ফ্লাইট সঙ্কট নিরসনে প্রতিদিন ঢাকা জেদ্দা রুটে বিমানের অতিরিক্ত ফ্লাইট চালুর জন্য প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন