ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কেরানীগঞ্জে আগুনে পোড়া কারখানা পরিদর্শনে শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম নেতৃবৃন্দ

কেরানীগঞ্জ(ঢাকা)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২:৫৯ পিএম

ঢাকার কেরানীগঞ্জের চুনকুটিয়া হিজলতলায় আগুনে পোড়া প্রাইম পেট এন্ড প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরামের নেতৃবৃন্দগন। আজ বুধবার সকাল ১১টায় তারা ওই কারখানাটি পরিদর্শন করেন। এসময় শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরামের নেতৃবৃন্দগন আগুনে পুড়ে যাওয়া কারখানাটি ঘুরেঘুরে দেখেন এবং কারখানাটির বিভিন্ন ত্রুটিবিচ্যুতি খুঁজেখুঁজে বের করেন। কারখানা পরিদর্শনকালে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাধারন সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন,বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক জোটের সভাপিত মেজবা উদ্দিন আহমেদ, শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব সেকেন্দার আলী মিনা,জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সভাপিত আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ লেবার ইন্সটিটিউটের কার্যকরী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ শ্রম অধিকার ফোরামের নেতা জায়েদ ইকবাল খান,ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের শিক্ষা ও গবেষনা সম্পাদক আসলাম খান, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক নিনা গোস্বামী, আমরা সংগঠনের সিনিয়র কোঅর্ডিনেটর আবু আহমেদ ফয়জুর কবির, বাংলাদেশ রেডিমেট গার্মেন্টস ওয়ার্কস ফেডারেশনের সভাপিত লাভলী ইয়াসমিন, নাগরিক উদ্যেগের প্রোগ্রাম অফিসার মাহবুব আক্তার, বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাষ্ট ও বøাস্টের সহকারী পরিচালক(আইন) রাশেদুল ইসলাম এবং দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানা শ্রমিকলীগ নেতা আবুল কাশেম ভূইয়া ও মোঃ ফরিদ হোসেন, প্রমুখ। কারখানা পরিদর্শন শেষে রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, একটি কারখানা প্রতিষ্ঠা করতে হলে সরকারের ১৭টি প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র নেয়া প্রয়োজন। কিন্তু এই কারখানায় কোন একটিরও ছাড়পত্র ছিল না। কারখানাটি সম্পুর্ন অবৈধভাবে এখানে গড়ে তোলা হয়েছে। বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যান ফাউন্ডেশনের তহবিলে বিপুল পরিমান টাকা রয়েছে। সেখান থেকে নিহত ও আহত শ্রমিকদের সাহায্য করার জন্য তিনি সরকারের কাছে দাবি জানান।আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সিনিয়র উপ-পরিচালক নিনা গোস্বামী বলেন,কারখানাটিতে নিরাপত্তামুলক ব্যবস্থা যথেষ্ট ছিল না। তাই আগুনে বেশি সংখ্যক শ্রমিক নিহত ও আহত হয়েছে। বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাষ্ট ও বøাস্টের সহকারী পরিচালক ্এ্যাডভোকেট রাশেদুল ইসলাম বলেন,কারখানার মালিককে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। মালিকের বিরুদ্ধো দায়েরকৃত মামলার আইনি সহায়তা দেয়া হবে। উল্লেখ্য গত বুধবার(১১ডিসেম্বর) বিকেলে কারখানায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুন লেগে ১৯ জন নিহত এবং ১৩জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ৫জন এখন লাইফ সাপোর্টে। বাকীদের অবস্থাও বেশি ভাল না।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন