ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

ধর্ম দর্শন

কদমবুসী : হাত-পা ইত্যাদিতে চুমু খাওয়া

মুফতী মোঃ আবদুল্লাহ্ | প্রকাশের সময় : ২ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

পূর্ব প্রকাশিতের পর

১৭। ইবনুস-সিনিঈ ‘আমলুল-ইয়াওম ওয়াল-লাইলাহ্’ গ্রন্থে, আবূ বকর ইবন মুহাম্মদ ইবন উমর সূত্রে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, একদিন আমি হযরত আবূ বকর ইবন মুজাহিদ এর কাছে উপস্থিত ছিলাম। হযরত শিবলী ওই মজলিসে উপস্থিত হলে আবূ বকর ইবন মুজাহিদ দাঁড়িয়ে গেলেন, তাঁর সঙ্গে মু‘আনাকা করলেন এবং তাঁর কপালে চুমু খেলেন। আমি তাঁকে বললাম, হে আমার শায়খ! আপনি তাঁর সঙ্গে এমনই (সম্মানজনক) ব্যবহার করেন! আবু বকর ইবন মুজাহিদ বললেন, আমি তাঁর সঙ্গে সেই ব্যবহারই করে থাকি, যা আমি আমার এক স্বপ্নে রাসূল স.-কে তাঁর সঙ্গে করতে দেখেছি। অর্থাৎ শিবলী র. রাসূল স. এর খেদমতে উপস্থিত হলেন, তখন রাসূল স. তাঁর কপালে চুমু খেয়েছেন। আমি রাসূল স.-কে জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি শিবলী র. এর সঙ্গে এমনই ব্যবহার করেন! তখন রাসূল স. বললেন, ‘সে তার নামাযের পর এইÑ (সুরা তাওবা’র শেষ ২টি আয়াত) Ñআয়াতটি পাঠ করে থাকে এবং তার পর আমার প্রতি সালাত ও সালাম পাঠিয়ে থাকে।

১৮। হাফেয আবূ মূসা মাদীনী প্রমুখ হযরত সুফিয়ান থেকে বর্ণনা করেছেন, তিনি একটি মজলিসে বয়ান করেছেন, আলেম ও ন্যায়-পরায়ণ বাদশাহ এর হাতে চুমু খাওয়া সুন্নাত। ওই মজলিসে হযরত আবদুল্লাহ্ ইবন মুবারক র. উপস্থিত ছিলেন; তিনি তাৎক্ষণিক দাঁড়িয়ে গেলেন এবং তাঁর মাথায় চুমু খেয়ে বললেন, ‘এই সুন্নাতে আমল করার এর চেয়ে আর ভালোসুযোগ কোথায় পাওয়া যাবে!’ (প্রাগুক্ত) ১৯। ইমাম মুসলিম ইবন হাজ্জাজ এর ঘটনা, যা ইমাম বুখারীর সঙ্গে সংঘটিত হয়েছিল। অর্থাৎ ইমাম মুসলিম ইমাম বুখারীর কপালে চুমু খেলেন এবং তাঁর পায়ে কদমবূসী করার ইচ্ছা করলেন। এটি তো হাদীস ও রিজাল শা¯্ররে কিতাবাদিতে প্রসিদ্ধ ও সবার জানা।

আলোচিত বর্ণনাগুলো দ্বারা উম্মতের আলেমগণের পারস্পারিক চুমু খাওয়া বিষয়টি কোন প্রকার বিরোধ ও প্রত্যাখ্যান ছাড়াই প্রমাণিত হয়ে গেল।

বিষয়টির আরও অধিক গুরুত্ব ও তাৎপর্য ওই ঘটনার মাধ্যমে হয়ে যায়, যা রাসূল স. এর ইন্তেকালের পর হযরত আবূ বকর রা. কর্তৃক সংঘটিত হয়েছিল। অর্থাৎ তিনি যখন জানাযা স্থলে পৌঁছলেন তখন তিনি রাসূল স. এর চেহারা মুবারকে চুমু খেয়েছিলেন। একইভাবে রাসূল স. হযরত উসমান ইবন মায‘উন এর চেহারায় তার মৃত্যুর পরে চুমু দিয়েছিলেন।

উক্ত সবগুলো বর্ণনা ও ঘটনা দ্বারাই প্রমাণিত হল, আলেমগণ, পীর-মাশায়েখ ও ধর্মীয় বিবেচনায় বড়দের হাতে চুমু খাওয়া এমনকি কদমবূসীও; একইভাবে কপাল ইত্যাদিতে চুমু দেয়া কেবল জায়েযই নয় বরং সুন্নাতও বটে। আর তা সাহাবা ও তাবেঈগণের ‘তা‘আমুল’ তথা পারস্পারিক আচরিত রীতির মাধ্যমে, কোন রকম আপত্তি ছাড়াই প্রমাণিত (এ পর্যন্ত গেল শায়খ মুহাম্মদ আবেদ সিন্ধী র. এর ১২২৪হি. সনের লিখিত পুস্তকটির বক্তব্য: প্রাগুক্ত: পৃ.১৯৩)। (চলবে)।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন