রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৮ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ব্রেক্সিট আটকে দেয়ার হুমকি দিল স্কটল্যান্ড

প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

লন্ডন পার্লামেন্টে অনুমোদিত বিল কার্যকর করার জন্য সব রাজ্যের পার্লামেন্টের সম্মতি প্রয়োজন
ইনকিলাব ডেস্ক : স্কটল্যান্ড পার্লামেন্টের সদস্যরা ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়া অর্থাৎ ব্রেক্সিট আটকানোর চেষ্টা করবে বলে জানিয়েছেন স্কটিশ ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জেওন। গত বৃহস্পতিবারের গণভোটে ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় দেয় যুক্তরাজ্যবাসী। ওইদিন ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে ৫২ শতাংশ ভোট এবং থেকে যাওয়ার পক্ষে ৪৮ শতাংশ ভোট পড়ে। যদিও স্কটল্যান্ডে ভোটের চিত্র ছিল একেবারে উল্টো। সেখানে থেকে যাওয়ার পক্ষে ৬২ শতাংশ এবং বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে মাত্র ৩৮ শতাংশ ভোট পড়ে।
গত রোববার বিবিসি’র এক অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকার দেয়ার সময় স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টির (এসএনপি) প্রধান স্টার্জেওনকে ভোটের পর স্কটিশ পার্লামেন্টের পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে সে বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল। জবাবে স্টার্জেওন বলেন, তিনি অবশ্যই স্কটিশ এমপিদের এ বিষয়ে সম্মতি না দেয়ার কথা বলবেন। স্কটিশ পার্লামেন্ট স্কটল্যান্ডের জন্য কোনটি ঠিক হবে তার ভিত্তিতে বিষয়টি বিবেচনা করলে আমরা বলতে পারি, স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে যাবে এমন কিছুতে আমরা ভোট দিতে পারি না। অবশ্যই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে হবে। স্কটল্যান্ডের পার্লামেন্টে ১২৯টি আসনের মধ্যে ৬৩টি এসএনপির দখলে। যুক্তরাজ্যের ব্যবস্থায় স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও নর্দান আয়ারল্যান্ডকে কিছু ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। ওই ক্ষমতা অনুযায়ী, লন্ডন পার্লামেন্টে কোনো বিল অনুমোদনের পর তা কার্যকর করতে হলে বিলটিতে স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও নর্দান আয়ারল্যান্ডের পার্লামেন্টের অনুমোদন প্রয়োজন। তবে ব্রেক্সিট আটকাতে স্কটল্যান্ডের সক্ষমতা নিয়ে অনেকের মনেই সন্দেহ আছে। তাদের একজন কনজারভেটিভ এমপি ডেভিড মুনডেল, যিনি একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, পছন্দ না হলেও গত বৃহস্পতিবারের ফলের প্রতি আমাদের সম্মান দেখাতে হবে। পুরো যুক্তরাজ্যজুড়ে ভোট হয়েছে এবং যুক্তরাজ্যবাসীরাই এ ভোট দিয়েছে। স্কটল্যান্ড ব্রেক্সিট আটকাতে পারবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মুনডেল বলেন, স্কটিশ পার্লামেন্ট ব্রেক্সিট আটকানোর অবস্থায় রয়েছে, ব্যক্তিগতভাবে আমার তা মনে হয় না। যদিও এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থাগুলো কি তা আমি দেখিনি। বিবিসি’কে এ সাক্ষাৎকার দেয়ার আগে ওইদিন সকালে স্টার্জেওন বলেছিলেন, তিনি ও তার সহকর্মীরা আগামী সপ্তাহে ইইউ’তে স্কটল্যান্ড থেকে যাওয়ায় বিষয়ে ব্রাসেলসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলবেন। যুক্তরাজ্য থেকে স্কটল্যান্ডের স্বাধীন হওয়া প্রশ্নে দ্বিতীয়বারের মতো গণভোট আয়োজনের বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে বলেও শনিবার জানিয়েছিলেন স্টার্জেওন। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে প্রথমবার গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। বিবিসি, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন