ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইরাক থেকে সৈন্য সরিয়ে নিচ্ছে জার্মানি, কানাডা, ক্রোয়েশিয়া, হাঙ্গেরি, রোমানিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৮ পিএম

ইরাকে মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর বাগদাদ থেকে সেনা সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে কানাডা। বুধবার ইরানের হামলার পর কানাডার প্রতিরক্ষা প্রধান জেনারেল জোনাথন ভ্যান্স এক টুইট বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সোলাইমানি হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার অংশ হিসেবে ইরাকে দুটি মার্কিন সেনা ঘাঁটিতে আজ (৮ জানুয়ারি) ভোরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ইরান ও তার মিত্র ইরাকি মিলিশিয়াদের হাতে ইরাকে অবস্থানরত অন্যান্য বিদেশি সেনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনায় ন্যাটো জোট উদ্বিগ্ন বলে জানানো হয়েছে।
গত ৩ জানুয়ারি বাগদাদে মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরান ও ইরাকি সেনাবাহিনীর জ্যেষ্ঠ কমান্ডারদের নিহত হওয়ার পর ৪ জানুয়ারি ন্যাটো জানিয়েছিলো, ইরাকে ৫০০ সামরিক প্রশিক্ষকের প্রশিক্ষণ মিশনটি তারা স্থগিত করছে।
এরপর ইরাকি সংসদে সেদেশ থেকে বিদেশি সেনাদের চলে যাওয়ার প্রস্তাব পাশ হওয়ার পর ৬ জানুয়ারি ন্যাটো মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ সাময়িকভাবে সেই প্রশিক্ষণ স্থগিত করার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।
ইরাকে অবস্থানরত ১২০ জার্মান সেনার মধ্যে ৩০ জনকে জর্ডান ও কুয়েতে পাঠানো হচ্ছে এবং অন্যরা কুর্দিস্তান অঞ্চলে অবস্থান করবে। জার্মানির প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গত ৬ জানুয়ারি তাদের সংসদে একটি চিঠিতে এই ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।
আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ক্রোয়েশিয়া তার ১৪ সেনা সদস্যকে ইরাক থেকে সরিয়ে নিয়েছে। তাদের মধ্যে সাতজনকে কুয়েতে পাঠানো হয়েছে এবং বাকিদের নিজ দেশে ফেরত নেওয়া হচ্ছে।
ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে ইরাকে অবস্থানরত কানাডা তার সেনাদের সাময়িকভাবে প্রতিবেশী কুয়েতে সরিয়ে নিবে বলে কানাডার এক শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা গতকাল জানিয়েছেন।
ন্যাটো প্রশিক্ষণ মিশন এবং জঙ্গি সংগঠন আইএসের বিরুদ্ধে গঠিত জোটের অংশ হিসেবে প্রায় ২০০ হাঙ্গেরীয় সেনাকে ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় শহর ইরবিলে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
রোমানিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী পৃথক এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ন্যাটো জোটের সঙ্গে ১৪ রোমানীয় সেনাকে সাময়িকভাবে জোটের অন্য ঘাঁটিতে স্থানান্তরিত করা হবে।
ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, ইরাকে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কানাডার নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা নিরাপদে আছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষা প্রধান জোনাথন ভ্যান্স। জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে যৌথ লড়াইয়ের অংশ হিসেবে ইরাকে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সেনা মোতায়েন করেছিল কানাডা।
মার্কিন সামরিক ঘাঁটি আক্রান্ত হওয়ার পর কানাডার প্রতিরক্ষা প্রধান জোনাথন ভ্যান্স টুইট বার্তায় বলেছেন, সতর্কতা হিসেবে ইরাক থেকে সাময়িকভাবে ৫০০ সেনা কুয়েতে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।
ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, আমরা ইরাক পরিস্থিতি জরুরি ভিত্তিতে পর্যালোচনা করছি। ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই আমাদের প্রথম অগ্রাধিকার। ইরাকে প্রায় ৪০০ ব্রিটিশ সেনা আইএসবিরোধী লড়াইয়ে যৌথভাবে কাজ করছে।
এর আগে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে ক্রমবর্ধমান তীব্র উত্তেজনায় ব্রিটিশ রয়্যাল নেভি ও সামরিক হেলিকপ্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
বুধবার মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার পর ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেছেন, এই অঞ্চলে কোনো ধরনের যুদ্ধ কিংবা উত্তজনা চায় না তেহরান। আত্মরক্ষার অংশ হিসেবে ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (3)
Ajaharul sekh ৮ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:১৩ পিএম says : 0
Hl
Total Reply(0)
Saheb.ali ৯ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:৩০ এএম says : 0
Liviya
Total Reply(0)
Saheb.ali ৯ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:৩০ এএম says : 0
Liviya
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন