ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ভিসিরা দুর্নীতি-শিক্ষকরা নকল সাপ্লাই করেন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে প্রেসিডেন্ট

জবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১২ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের অনিয়ম-দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ ওঠায় তাদের সচেতন হতে বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ। বলেন, উপাচার্যগণ হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে আপনাদেরকে সততা, নিষ্ঠা ও দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। আপনারা নিজেরাই যদি অনিয়মকে প্রশ্রয় দেন বা দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন, তা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা কী হবে, তা ভেবে দেখবেন। গতকাল শনিবার জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ ধুপখোলায় বিশ^বিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তনে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আজকে নকলের বিভিন্ন কথাবার্তা শোনা যায়। আমার লজ্জা হয়, যখন শুনি শিক্ষকরা নকল সাপ্লাই করেন। অনেক জায়গায় শোনা যায় ছাত্রদের মা-বাবা পর্যন্ত নকল সাপ্লাই করেন। এর চেয়ে কলঙ্কজনক, দুঃখজনক, হতাশাজনক আর কিছু হতে পারে না।

আবদুল হামিদ আরো বলেন, শিক্ষকতা অত্যন্ত মর্যাদাশীল পেশা। আপনারা যারা পাবলিক বিশ^বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন তারা মেধাবী ও বিশেষ গুনে গুনান্বিত এবং দক্ষ। তাই আপনারা চাইলে অন্য যে কোন লোভনীয় চাকরি বা পদ পদবী জোগাড় করতে পারতেন। কিন্তু তা না করে শিক্ষকতাকে পেশা হিসাবে নিয়েছেন। তাই কোন ধরনের লোভ-লালসা ও মোহের প্রতি আকৃষ্ট না হয়ে পেশার প্রতি মর্যাদাশীল থাকবেন।

প্রেসিডেন্ট বলেন, এক শ্রেণীর শিক্ষক রয়েছেন যারা বিশ^বিদ্যালয়ের চাকরিকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করেন। তারা সান্ধ্যকালীন কোর্স ও প্রাইভেট বিশ^বিদ্যালয়ে ক্লাস নিয়ে সপ্তাহব্যাপী ব্যস্ত সময় পার করেন। এ সমস্ত কাজে তারা খুবই আন্তরিক। যত অনীহা শুধু নিজ বিশ^বিদ্যালয়ের নির্ধারিত ক্লাস নেয়ার ক্ষেত্রে। তবে এ শিক্ষকগণ সিলেবাস শেষ করার ক্ষেত্রে খুবই সিরিয়াস। তাই তারা একসাথে তিন থেকে পাঁচ ঘন্টা ক্লাস নেন। অনেক সময় ছুটির দিনে ছাত্রছাত্রীদের ডেকে এনে কয়েকঘন্টা ক্লাস নেন। শিক্ষার্থীরা কতটুকু বুঝল বা মাথায় নিতে পারল সে ব্যাপারে তাদের কোন দায়দায়িত্ব নেই বলে মনে হয়। সেমিষ্টার ও সিলেবাস শেষ করেছেন এ সাফল্যে তারা গর্ববোধ করেন। তিনি আক্ষেপ করে আরও বলেন, আজ শুনি শিক্ষকরা ছাত্রদের কাছে নকল সরবরাহ করেন। অনেক জায়গায় শোনা যায় অভিভাবকরাও নকল সরবরাহ করেন। এর চেয়ে দুঃখজনক আর কী হতে পারে, এদের কী শাস্তি হতে পারে ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। পরীক্ষায় নকল প্রবণতা ও অনৈতিক পন্থা অবলম্বনের কারণে দেশ ও জাতি ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে জানিয়ে এর বিরুদ্ধে সবাইকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে আহŸান জানান তিনি।
প্রেসিডেন্ট তার বক্তব্যে ট্রাফিক আইন মেনে চলতে সবার প্রতি আহŸান জানান। তিনি বলেন, প্রায় সাত বছর ধরে জেলখানার মতোই বঙ্গভবনে আছি। রাস্তায় স্বাধীনভাবে হেঁটে যাওয়ার সুযোগ নেই। তবে টেলিভিশনে দেখি, ওভারপাস আছে অথচ ঝুকি নিয়ে সমানে নিঁচ দিয়ে হেটে মানুষ পারাপার করছে। নিয়ম না মানলে কোনো জাতি উন্নতি করতে পারে না। তোমাদেরকে অনুরোধ, মানুষকে এ ব্যাপারে বোঝাবে। এভাবে যত্রতত্র রাস্তা ক্রস করা ঠিক না।

সমাবর্তন বক্তা ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার বসাক বলেন, এখানকার সনদপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা দেশে বিদেশে বিভিন্ন কর্মকান্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের দূত হিসেবে তাদের অর্জিত দক্ষতা দেখাবে। তার প্রেক্ষাপটে বিশ্ববিদ্যালয়ের মান নির্ধারিত হবে। আমি আশা রাখছি ভালো ভালো শিক্ষক সংগ্রহ অব্যাহত রেখে জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয় অল্প সময়েই সম্মানসহ বৈশি^ক স্বীকৃতির পর্যায়ে পৌছাতে সক্ষম হবে।
সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান ও ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ বক্তব্য প্রদান করেন।

সমাবর্তনে ৩৬টি বিভাগ ও দুটি ইনস্টিটিউটের ১৮ হাজার ৩১৭ জন নিবন্ধিত সাবেক শিক্ষার্থীর মধ্যে ১১ হাজার ৮৭৭ জন স্নাতক, ৪ হাজার ৮২৯ জন স্নাতকোত্তর, ১১ জন এমফিল, ৬ জন পিএইচডি এবং ১ হাজার ৫৭৪ জন সান্ধ্যকালীন কোর্সের শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন