ঢাকা, রোববার, ০৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

আইসিটি এন্ড ক্যারিয়ার

৫ শতাংশ এনটিটিএনে সেবা দিচ্ছে মোবাইল অপারেটররা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ জানুয়ারি, ২০২০, ৭:২৯ পিএম

এনটিটিএন অপারেটরগুলোর কাছে মাত্র ৫ শতাং সেবা নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটররা গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। ন্যাশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্কের (এনটিটিএন) এই স্বল্প সেবা নিয়ে গ্রাহকদের সেবার মান ঠিক রাখা কঠিন বলেও মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এনটিটিএন অপারেটর ফাইবার এট হোমের চেয়ারম্যান মইনুল হক সিদ্দিকী বলেন, বর্তমান সরকারের ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের লক্ষ্য নিয়ে আমরা ইউনিয়ন পর্যন্ত ফাইবার অপটিক্যাল নেটওয়ার্ক পৌঁছে দিয়েছি। বর্তমানে একটি গ্রাহক গড়ে ১ জিবিপিএস ব্যবহার করছে। আগামীতে গড় ব্যবহার দাঁড়াবে প্রায় ৩ জিবিপিএস। গ্রাহকদের ব্যয় আরো বৃদ্ধি পাবে। বর্তমানে এনটিটিএন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অপারেটরা মাত্র ৫ শতাংশ সার্ভিস নিয়ে থাকে। এই সার্ভিস দিয়ে গ্রাহকদের সেবার মান ঠিক রাখা কঠিন। আমাদের সক্ষমতা অনেক কিন্তু টেলিকম অপারেটররা আমাদের কাছ থেকে সম্পূর্ণরূপে বিকল্পভাবে সার্ভিস নেয়ায় গ্রাহকদের সেবার মান বাড়ছে না।

সোমবার সকালে সেগুন বাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের উদ্যোগে “টেলিযোগাযোগ সেবায় এনটিটিএন’র ভূমিকা ও চ্যালেঞ্জ ঃ উত্তরণের উপায়” শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ (এমটব) এর মহাসচিব বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব.) এসএম ফরহাদ বলেন, ৩জি’তে আমরা ৩৩ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছিলাম। সেই অর্থ এখন পর্যন্ত আমরা উত্তোলন করতে পারি নাই। বিশ্বে গড়ে একজন গ্রাহক ১ হাজার ২০০টাকা টেলিযোগাযোগ ও ইন্টারনেট সেবায় ব্যবহার করছে। বাংলাদেশে ১০০ টাকার সেবা দিতে সরকারকে দিতে হচ্ছে ৫২ টাকা। বাকি অর্থ দিয়ে সকল ব্যয় পরিশোধ করতে হয়। সেবার মান বৃদ্ধি করার সাথে সাথে বিনিয়োগের পরিমাণও বৃদ্ধি পাবে। টেলিযোগাযোগ সেবার গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম এনটিটিএন। অতএব বিটিআরসিকে অনুরোধ করছি সকল স্টেক হোল্ডারদের সাথে নিয়ে আলোচনা করে কিভাবে আরো গ্রাহকবান্ধব সেবা দেয়া যায় এবং বিনিয়োগকারীদের অর্থ ঠিকভাবে উত্তোলিত হয় তার ব্যবস্থা করতে।

আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধে মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ২০২১ এর মধ্যে চতুর্থ প্রজন্মের শিল্প বিপ্লব বাস্তবায়নে ৫জি চালু করতে যাচ্ছে সরকার। আগামীতে ডেটার ব্যবহার বৃদ্ধিই অর্থনীতির বিপ্লব ঘটতে যাচ্ছে। এর অন্যতম মাধ্যম ফাইবার অপটিক্যাল নেটওয়ার্ক। সারাদেশে নেটওয়ার্কের মহাসড়ক নির্মাণ করবে এনটিটিএন অপারেটররা। কিন্তু টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার (বিটিআরসি) লাইসেন্স প্রদানের পূর্বে বাজার যাচাই-বাছাই করা উচিত ছিল। যাচাই-বাছাই ছাড়া লাইসেন্স প্রদান এবং এনটিটিএন সেবার মূল্য নির্ধারিত না থাকায় প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে মোবাইল ফোন অপারেটররা যেমন সেবা গ্রহণে অনাগ্রহী তেমনি এই প্রতিষ্ঠানগুলোও অনৈতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেবা খাতটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন রবির ভাইস চেয়ারম্যান দিদারুল আলম, আণবিক শক্তি কমিশনের সাবেক পরিচালক ড. কামরুজ্জামান, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, পিজিসিবি’র পরিচালক প্রকৌশলী এম. আশরাফ হোসেন, ফাইবার এট হোমের রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স ফারুক আব্বাসী প্রমূখ। সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আবু বকর ছিদ্দিক, প্রেজেন্টশন উপস্থাপনা করেন সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড. ইসরাত হাসান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন