ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬, ৩০ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কর্মশালায় মন্ত্রিপরিষদ সচিব প্রকল্পগুলো দ্রæত বাস্তবায়ন হবে

প্রাধান্য পাবে নির্বাচনী ইশতেহার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

দেশের উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সবচেয়ে বেশী প্রাধান্য পাবে সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের প্রকল্পগুলো। সেই প্রকল্পগুলো দ্রæত বাস্তবায়ন করা বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।
গতকাল শনিবার সিরডাপ মিলনায়তনে আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণে পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, বগুড়া কর্তৃক পরিচালিত গবেষণার ফলাফল সমৃদ্ধকরণ ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এক কর্মশালায় তিনি এ কথা বলেন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, দেশের প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা স¤প্রসারণের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার আমার গ্রাম-আমার শহর এর যে স্বপ্ন দেখছেন। সেই স্বপ্নের গ্রাম বিনির্মাণে এবং সরকারের ২০২১ ও ২০৪১ এর রূপকল্পে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তর করার যে প্রয়াস ব্যক্ত করেছেন।

সেখানে গ্রামগুলোতে নগর সুবিধার প্রসার বাড়ানো সম্ভব হলে বদলে যেতে পারে গ্রামীণ জনগণের জীবনচিত্র, দূর হতে পারে দারিদ্র। জীবনমান উন্নয়নের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করে বাংলাদেশ পৌঁছে যেতে পারে কাংখিত মধ্যম আয়ের দেশে। গ্রাম উন্নয়ন সম্পর্কিত জাতীয় প্রশিক্ষণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (আরডিএ), বগুড়া আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণে সরকারকে নীতি নির্ধারণী সহযোগীতা প্রদানের লক্ষ্যে বিষয়টির নীতি-নির্ধারণী গুরুত্ব অনুধাবন করে দ্রæততম সময়ে ১৭টি দলে ৩৮ জন গবেষকের মাধ্যমে জাতি গঠনমূলক ১৭টি বিষয়ে গবেষণা প্রতিবেদন প্রণয়ন করে।
গবেষণা এলাকা হিসেবে আরডিএ’র সন্নিকটে বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার চকপাথালিয়া গ্রামকে নির্বাচন করে তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন গবেষণা প্রতিবেদন ও সরকারি দলিল থেকেও তথ্য সন্নিবেশিত করা হয়েছে।

গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীণ নিরাপদ পানি ব্যবস্থা, গ্রামীণ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, গ্রামীণ তথ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীণ বাসস্থান, স্যানিটেশন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, গ্রামীণ শিক্ষা ব্যবস্থা, গ্রামীণ স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা, গ্রামীণ জনগোষ্ঠির আর্থিক সেবা খাতে অর্ন্তভূক্তি, গ্রামীণ সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও নাগরিক পরিষেবা, গ্রামীণ উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান, গ্রামীণ বাজার ব্যবস্থা, গ্রামীণ নিরাপত্তা ও বিচার ব্যবস্থা, গ্রামীণ সামাজিক নিরাপত্তা, গ্রামীণ দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা, গ্রামীণ শিশু ও নারী উন্নয়ন, গ্রামীণ মানব সম্পদ উন্নয়ন, গ্রামীণ যুব ও ক্রীড়া উন্নয়ন বিষয়ে গবেষণা করা হয়।
গবেষণাটি গুণবাচক পদ্ধতিতে পরিচালনা করা হয়েছে এবং গবেষণার তথ্য সংগ্রহের জন্য বিশ্ব উন্নয়ন সূচক অনুসারে বাংলাদেশের গ্রামীণ সমাজকে বিশ্লেষণ করার জন্য ১৭টি সেক্টরে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মো. রেজাউল আহসানের সভাপতিত্বে সেমিনারে বক্তব্য রাখেন, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জয়নুল বারী, পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. নুরুল আমিন, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব নূর-উর-রহমান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন