ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬, ৩০ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনাভাইরাস চীনে মৃত বেড়ে ৫৬

২২ শহরে লকডাউন : ছড়ালো ১৪ দেশে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

চীনের উহান শহরে প্রথম লক্ষণ দেখা যাওয়ার পর এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে ৫৬ জন মারা গেছে এবং প্রায় ২০০০ মানুষ সংক্রমিত হয়েছে। এছাড়াও বিশ্বের আরো ১৪টি দেশে সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। চীনের ২২টি শহরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এরই মধ্যে যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষকরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, এই ভাইরাসের সংক্রমণ চীনের পক্ষে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে না। একাধিক শহরে ঢোকা এবং শহর থেকে বের হওয়ার ব্যাপারে সীমাবদ্ধতা আরোপ করা হয়েছে। গতকাল থেকে উহানের কেন্দ্রীয় অঞ্চলে ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় পত্রিকা পিপল’স ডেইলি জানিয়েছে, কয়েক সপ্তাহের মধ্যে জরুরি সেবাদানের লক্ষ্যে ১৩০০ শয্যাবিশিষ্ট দ্বিতীয় একটি হাসপাতাল নির্মাণকাজ শুরু করা হবে এ সপ্তাহের মধ্যেই। এক হাজার শয্যাবিশিষ্ট একটি হাসপাতাল নির্মাণকাজ এরই মধ্যে শুরু হয়েছে। উহান শহর যে প্রদেশে অবস্থিত, সেই হুবেই প্রদেশে বিশেষজ্ঞ সেনা চিকিৎসা দল পাঠানো হয়েছে। ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে উহানের সব গণপরিবহন ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

ভাইরাস বিস্তার রোধ করা কেন কঠিন?
যুক্তরাজ্যের এমআরসি সেন্টার ফর গ্লোবাল ইনফেকশাস ডিজিস অ্যানালাইসিসের বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, চীনের ভেতরে এই ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া সীমাবদ্ধ রাখা সম্ভব নাও হতে পারে। তারা বলছেন, ভাইরাসটি মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার মাধ্যমে নিজেকে রক্ষা করতে পারে, যেটি এই ভাইরাসের এত বড় পরিসরে ছড়িয়ে পড়তে পারার ‘একমাত্র যৌক্তিক ব্যাখ্যা’। বিজ্ঞানীদের অনুমান, একজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি গড়ে আড়াইজন মানুষের মধ্যে এই ভাইরাসটি ছড়াচ্ছে। এই সংস্থাটি চীনা কর্তৃপক্ষের প্রয়াসের প্রশংসা করেছে, কিন্তু এরকম আশঙ্কাও প্রকাশ করছে যে, ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে ছড়িয়ে পড়ার হার ৬০ শতাংশ কমাতে হবে। বিজ্ঞানীদের মতে এই পদক্ষেপ নিশ্চিত করা সহজ নয়। ভাইরাস সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণে আনতে এমন রোগীদেরও আলাদা করতে হবে যাদের মধ্যে সাধারণ সর্দিজ্বরের সামান্য লক্ষণও দেখা গেছে।

অন্যদিকে, ল্যাংকাস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল ভাইরাস আক্রান্তদের সংখ্যা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাদের ধারণা অনুযায়ী এ বছরে ১১ হাজার মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

তাদের অনুমান সত্যি হলে এই সংখ্যা সার্স-এ আক্রান্তের সংখ্যার চেয়ে বেশি। তবে এই ভাইরাস এর আগে কখনো দেখা যায়নি, তাই এটিকে বলা হচ্ছে ২০১৯-এনকভ, অথবা ‘নভেল করোনাভাইরাস’।

পশু থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ার পর নতুন ভাইরাস মানুষের মধ্যে সহজে ছড়িয়ে পড়তে পারে। ২০০৩ সালে সার্স (সিভিয়ার অ্যাকিউট রেস্পিরেটরি সিনড্রোম) শুরুতে ছড়িয়ে পড়েছিল বাদুড়ের মাধ্যমে এবং পরে তা বিড়াল জাতীয় প্রাণীর মধ্যে সংক্রমিত হয়, যা সবশেষে মানুষের মধ্যে আসে। নতুন এই করোনাভাইরাসও শ্বাস-প্রশ্বাসকে সংক্রমিত করে।

এদিকে, কী থেকে এই ভাইরাস ছড়াল তা নিয়ে একাধিক তত্ত¡ ঘোরাফেরা করছে বিশ্বজুড়ে। বিভিন্ন মহল থেকে দাবি করা হচ্ছে, চীনা গোখরো এবং চীনা কালাচ খাওয়ার ফলেই এই রোগ ছড়াচ্ছে। গøাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞ-অধ্যাপক ডেভিড রবার্টসন সে তত্ত¡ খারিজ করে দিয়ে জানিয়েছেন, এমন দাবির কোনও ভিত্তি নেই।

কানাডা : শনিবার কানাডার রাজধানী টরোন্টোর এক হাসপাতাল থেকে দেশটিতে করোনা ভাইরাসে একজন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়। কর্মকর্তারা জানান, আক্রান্ত ব্যক্তির বয়স পঞ্চাশোর্ধ্ব। সম্প্রতি তিনি উহান ভ্রমণ করে ২৩ জানুয়ারি টরোন্টো পৌঁছান।

ফ্রান্স : প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসেবে ফ্রান্সে তিনজন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তি রয়েছেন, যিনি সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন। অন্য দুই ব্যক্তিও সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করেছেন।

জাপান : নতুন করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত জাপানে তিনজন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে তিনজনই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

অস্ট্রেলিয়া : শনিবার অস্ট্রেলিয়ায় প্রথমবারের মতো একজন ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ। আক্রান্ত ব্যক্তি সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন। পরে রোববার সিডনিতে আরও তিনজনের মধ্যে ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার লক্ষণ দেখা গেছে বলে নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ।

মালয়েশিয়া : মালয়েশিয়ায় তিনজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনজনই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।
নেপাল : নেপালে ৩২ বছর বয়সী এক ব্যক্তি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, যিনি উহান থেকে দেশটিতে গিয়েছিলেন। সুস্থ হওয়ার পর তাকে হাসপাতাল ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সিঙ্গাপুর : সিঙ্গাপুরে অন্তত তিনজন নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন ৬৬ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ ও তার ছেলে (৩৭) এবং ৫২ বছর বয়সী এক নারী। তারা সবাই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়া : দক্ষিণ কোরিয়ায় দুজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দুজনই উহান ভ্রমণ করে দেশটিতে গিয়েছিলেন। চিকিৎসা দেওয়ার পর দুজনই কিছুটা স্থিতিশীল রয়েছেন।

তাইওয়ান : তাইওয়ানে এ পর্যন্ত তিনজন নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ ঘটনার পর উহান ভ্রমণে বিধিনিষেধ আরোপ করে দেশটি।

থাইল্যান্ড : থাইল্যান্ডে পাঁচজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে চারজন চীনা নাগরিক যারা উহান থেকে এসেছেন এবং অপর একজন সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র : যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত দুজন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। চিকিৎসা দেওয়ার পর তাদের অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

ভিয়েতনাম : ভিয়েতনামে এক ব্যক্তি ও তার ছেলে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ওই ব্যক্তি সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন। তার সংস্পর্শে এসেই তার ছেলেও ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

এছাড়া, নতুন করে আরও অনেক দেশে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স ও টাইমস অব ইন্ডিয়া।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
MT Khaled Mamun ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১২ এএম says : 0
যেই না চায়না কাফের গোষ্ঠী ঘোষণা দিল যে, তারা নতুন করে সংস্করণ করে আল্লাহ্ কালাম পবিত্র কোরআন রচনা করবে ঠিক তার কিছু দিন পর এই গজব নাযিল হলো, বিধির লিলাখেলা বুঝা বড় দায়, নাফরমানি কর তুমি কিন্তু এমন নাফরমানি কর না যার ফলে তুমি সহ তোমার জাত গোষ্ঠীর বিলীন ঘটে, তাই সাধু সাবধান হয়ে পথ চলো এই দিনই দিন নয়,,,,,
Total Reply(0)
Rj Mahamud Hasan ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
দুঃখজনক হলেও সত্য দৈনিক ইত্তেফাকের একটি রিপোর্ট দেখলাম, এখন পর্যন্ত চীনে 90 হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এবং এখন পর্যন্ত 51 জন মারা গেছে। কিন্তু চীন বিষয়টি লুকিয়ে রাখতে চাচ্ছে সারা বিশ্বের কাছে , আল্লাহ সবাইকে এই মহা বিপদ থেকে হেফাজত করুক আমিন।
Total Reply(0)
Feruz Ahammad ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
কথায় আছে মুখ দিয়েছে যিনি আহার জুটাবে তিনি,হাদিসে আছে রোগ দিবে যিনি মুক্তি দেওয়ার মালিকও তিনিই তবে এখানে কিছু কথাও স্পষ্ট উল্লেখ আছে একজন পৃথিবী ত্যাগ করবে পাপে আর দশজন ভোগ করবে পাপীর তাপে তেমনটাই লক্ষণীয সভ্যতার হাজার হাজার বছর যাবত,ইতিহাস তাই বলে তাই আল্লাহ মাবুদকে স্মরণ ছাড়া কোন গতি নেই বিশ্বাস তার প্রতি রাখতে হবেই। সকল জাতির সৃষ্টি কর্তা যেহেতু একমাত্র আল্লাহ্‌ রক্ষা অবশ্যই তিনিই করবে ইনশাল্লাহ।
Total Reply(0)
Mehedi Hasan ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
অনেকেই খুশি হয়েছে ,কিন্তু তারা হয়তো ভুলে গেছে এই ভাইরাস যদি বাংলাদেশে প্রবেশ করে তাহলে কি পরিমাণ জীবন সংকটে পড়বে তারা এইটা ভুলে গেছে , এক ডেঙ্গু তেই কি অবস্থা হয়েছিল আর এটা তো আরো মারাত্বক ,এটা মোটেও খুশি হবার বিষয় না । মহামারী ,প্রাকৃতিক দুর্যোগ কখন কোন দেশে আসবে এটা বলা মুশকিল । ।
Total Reply(0)
Nirob Prithibi ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়ার লক্ষ্যে একজন মন্ত্রীর নেতৃত্বে কয়েকজন সচিবসহ অতিসত্ত্বর একটি স্টিয়ারিং কমিটি গঠনপূর্বক তাদের দ্রুত চীন পাঠানো হোক। যাতে করে তারা এই ভাইরাস থেকে কিভাবে বাংলাদেশকে মুক্ত করা যায় সেটা হাতে কলমে শিখে আসতে পারে আর দেশকে এই কঠিন ক্রান্তি থেকে বাঁচাতে পারে। পুকুর খনন শিখতে যদি ১৬ জন আমলা/কর্মকর্তা ১ কোটি ২৮ লাখ টাকা খরচ করে জ্ঞানার্জন করতে পারে তবে বর্তমানে করোনা ভাইরাস থেকে দেশকে মুক্ত করতে অবশ্যই মন্ত্রী আমলারা পিছপা হবেন না। হাজার হইলেও তারা দেশের জন্য জীবন দিতে প্রস্তুত থাকে.....
Total Reply(0)
Chowdhury Tahmid ২৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
আল্লাহর গজব মোকাবেলা করার মতো কারোরই ক্ষমতা নেই, একমাত্র তওবার মাধ্যমে এর থেকে পরিত্রাণ মিলবে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন