রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) ছিলেন দ্বীনের নিবেদিতপ্রাণ কুমিল্লার স্মরণসভায় বক্তারা

সাদিক মামুন, কুমিল্লা থেকে : | প্রকাশের সময় : ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

বাংলাদেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম, কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ সংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের কো-চেয়ারম্যান, কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের (বেফাক) সিনিয়র সহসভাপতি শায়খুল হাদিস আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) ছিলেন ইসলামের জন্য নিবেদিত প্রাণ একজন আলেমেদীন। তাঁর ইন্তেকালের মধ্যদিয়ে দেশের আলেম সমাজ ও ইসলাম প্রিয় জনসাধারণ এক বিরল প্রতিভা, ইসলামী ব্যক্তিত্ব ও আলেমে দীনকে হারিয়েছেন। আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) তাঁর জীবদ্দশায় সারাদেশে দীনের বহুমুখী খেদমত করে গেছেন। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ইমাম পরিষদের উদ্যোগে গত বৃহস্পতিবার রাতে কুমিল্লা টাউনহল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত শায়খুল হাদিস আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) এর স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। কুমিল্লা জেলা কওমী মাদরাসা সংগঠনের সভাপতি আল্লামা নুরুল হকের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ঢাকা জামেয়া রহমানিয়ার মুহাতামিম মাওলানা মাহফুযুল হক বলেন, শায়খুল হাদিস আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) আজীবন ইসলামের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। বহু দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে গেছেন। ইসলামিধারার কল্যাণকে প্রাধান্য দিয়ে তিনি রাজনীতি করেছেন। তাঁর কর্মময় জীবনের আদর্শ দ্বীনের পথে তাকে এক অনন্য উচ্চতায় অধিষ্ঠিত করেছে।
স্মরণসভায় বিশেষ আলোচকের বক্তৃতায় দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী বলেন, আল্লামা আশরাফ আলী (রহ.) হুযুর ছিলেন ইসলামি চিন্তাবিদ, ইসলামি ধারার উঁচুমনের রাজনীতিক, সর্ববিষয়ে পারদর্শী উস্তাদ এবং দ্বীনের জন্য নিবেদিতপ্রাণ। হুযুর ছিলেন মেধা-মননে আধ্যাত্মিক যোগ্যতার মিশ্রণে একজন মহান শায়খ, নসীহতকারি, সংশোধক মনিষী ও অভিভাবক। সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে চলার সক্ষমতা রাখতে পারতেন হুযুর। অভিভাবকের ভ‚মিকায় সহজেই অনেক সমস্যার সমাধান করে দিতেন। শিক্ষকতা জীবনে কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী জামেয়া এমদাদিয়ার মধ্যদিয়ে অধ্যাপনা শুরু করেন। আর শেষ বয়সে তিনি ঢাকার জামিয়া রাহমানিয়া, জামিয়া শারঈয়্যাহ মালিবাগসহ বহু মাদরাসায়ায় বোখারির দরস দিতেন। জীবদ্দশায় হুযুরকে আমরা দ্বীনের দরদ এবং মৌলিক খিদমতের বিষয়ে ভাবনায় নিমগ্ন থাকতেই দেখেছি। অসুস্থতা ও দুর্বলতা সত্তে¡ও তাঁর নামায, বন্দেগি, যিকির ও দোআ-মুনাজাতে কোনো ক্রটি হয়নি। হুযুরের কর্মময় জীবনের আদর্শ আমাদের জন্য, বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য পাথেয় হয়ে থাকবে। জীবনের অন্তিম মুহূর্তে হুযুর খতমে নবুওয়ত ইস্যুর সুন্দর সমাধানের জন্য যে সোচ্চার ভূমিকা প্রকাশ করে গেছেন তা বাস্তবায়নে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যেতে হবে।
কুমিল্লা কান্দিরপাড় জামে মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মো. আমিনুল্যাহর সঞ্চালনায় স্মরণসভার আলোচনায় অংশ নেন মাওলানা আবদুর রাজ্জাক, মাওলানা মোহাম্মদ নোমান, মাওলানা মুনির হোসাইন, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা মুনিরুল ইসলাম, ম্ওলানা শাব্বীর আহমাদ, মাওলানা শামসুল ইসলাম জিলানী, মাওলানা মুফতি আমজাদ হোসেন, মাওলানা আবু সায়েম খালেদ, মাওলানা সোলেয়মান, মাওলানা মুফতি আবুল বাশার ও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ইমাম পরিষদের সভাপতি হাফেজ মাওলানা মিজানুর রহমান প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
মোঃ আনোয়ার আলী ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৯:০৪ এএম says : 0
মাশাল্লাহ
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps