ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

বাজারে নতুন পেঁয়াজে কমছে না ঝাঁজ

ক্রেতারা পড়েছেন বিপাকে

সাইদুর রহমান, মাগুরা থেকে | প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

মাগুরায় ৬ হাজার ৩২০ হেক্টরে এবার পেয়াজের আবাদ হয়েছে। বাজারে নতুন মুড়ি পেঁয়াজ ওঠতে শুরু করলেও স্থানীয়ভাবে দাম বেড়েই চলেছে। বর্তমানে ১৩০ টাকা কেজি ধরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। নতুন পেঁয়াজে সন্তোষজনক দাম পেয়ে মাগুরার কৃষকরা খুশি হলেও ক্রেতাদের মুখে হাসি নেই। তবে পেঁয়াজের মূল্য বেশি থাকায় পেঁয়াজ চাষের প্রতি আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে।
এ বছর মাগুরায় ৬ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে মাগুরা কৃষি অধিদফতর। এর মধ্যে মাগুরা সদর উপজেলায় ৭১০, শ্রীপুর উপজেলায় ৪ হাজার ৫০০, মহাম্মদপুর উপজেলায় ৫৮০, শালিখা উপজেলায় ৫২৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পরিমাণ জমি থেকে এ বছর প্রায় ১ লাখ মেট্রিকটন পেঁয়াজ উৎপাদন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত বছর এ মৌসুমে মাগুরায় ৭ হাজার ১৩০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষ হয়। আর প্রায় ১ লাখ টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। গত বছরের শেষদিকে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় এর আবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে।
মাগুরা কৃষি বিভাগ সূত্রমতে, এ বছর দুই-তৃতীয়াংশ জমিতে এরই মধ্যে পেঁয়াজের চারা রোপণ করা হয়েছে।
আবহাওয়া ভালো থাকলে কয়েকদিনের মধ্যে বাকি জমিতেও রোপণের কাজ শেষ হবে। নতুন পেঁয়াজ বাজারে আসতে শুরু করেছে। ফলে মাগুরার বাজারে আর নতুন করে পেঁয়াজের সঙ্কট সৃষ্টি না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তবে দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে রয়েছে। জেলার শ্রীপুর উপজেলায় পেঁয়াজ চাষের জন্য বিখ্যাত।
সরেজমিনে দেখা যায়, মাটিকাটা, দোরনগর, বিষ্ণুপুর, নাকোল, কাদিরপাড়া, ঘাসিয়াড়া, কমলাপুর, কুপরিয়া, গোবিন্দপুর, বরালীদাহসহ আরও অনেক গ্রামে মাঠের পর মাঠ কৃষক পেঁয়াজ রোপণ করেছে।
শ্রীপুর উপজেলার নাকোল গ্রামের পেঁয়াজ চাষি মো. সাইদুল শেখ জানান, সে এ বছর ২০০ শতক জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছে। গত বছর মাত্র ৫০ শতক জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছিল। তার মতে এবার ৪০০ মণের ওপরে পেঁয়াজ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
মাটিকাটা গ্রামের কৃষক সমরেন্দ্রনাথ বালা জানান, সে বছর ১০০ শতক জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছে। তার প্রতি শতকে ৫০০ টাকা করে খরচ হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে সে ২০০ মণের কাছাকাছি পেঁয়াজ পাবে।
এ বছর শ্রীপুরের পাশাপাশি মাগুরা সদর, মোহাম্মদপুর ও শালিখা উপজেলার কৃষকও পেঁয়াজ চাষে ঝুঁকছে। বেশি জমিতে আবাদ করার কারণ জানতে চাইলে কৃষকরা জানান, পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির কারণেই তারা বেশি জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছেন।
ঘাসিয়ারা গ্রামের কৃষক মো. ফারুক আহমেদ জানান, গত বছর পেঁয়াজ সংরক্ষণ করে বছর শেষে একটু ভালো দাম পাওয়া গিয়েছিল, তাই এ বছর সে ৬ বিঘা জমিতে চাষ করেছে।
মাগুরা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক জাহিদুল আমিন জানান, এ বছর ভালো দাম পেয়ে পেঁয়াজ চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে। এ কারণে গত বছরের চেয়ে এ বছর পেঁয়াজ চাষে বেশি আগ্রহ দেখা গেছে।
মাগুরা সদর উপজেলা কৃষি অফিসের আবু তালহা জানান, চাহিদা ও বাজার মূল্য বেশি থাকায় এ বছর কৃষক বেশি পরিমাণ পেঁয়াজের আবাদে আগ্রহী। আবহাওয়া অনুক‚লে থাকলে বাম্পার ফলন হবে।
শ্রীপুর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা সালমা জাহান নিপা জানান, পেঁয়াজ চাষিদের শ্রীপুর কৃষি বিভাগ সার্বিকভাবে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন