ঢাকা রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫ আশ্বিন ১৪২৭, ০২ সফর ১৪৪২ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

কুষ্টিয়ায় শতাধিক অবৈধ ইটভাটা

পোড়ানোয় ব্যবহৃত হচ্ছে কাঠ

এস এম আলী আহসান পান্না, কুষ্টিয়া থেকে | প্রকাশের সময় : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

কুষ্টিয়ায় প্রশাসনের কঠোর নজরদারী না থাকায় উচ্চ আদালতে রিট করার নামে প্রায় ২ শতাধিক ইটভাটায় এখনও কাঠ দিয়ে পোড়ানো হচ্ছে ইট। বাংলাদেশ সরকার গত ২০০২ সালে ইটভাটায় ড্রাম চিমনির ব্যবহার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। এরপর ২০১৪ সালের ১ জুলাই থেকে ইটভাটায় ১শ’ ২০ ফিটের ফিক্সট চিমনি ব্যবহারও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। শুধুমাত্র জিগজ্যাগ জাতীয় ইটভাটাগুলো বৈধ ঘোষণা করেন।
সরেজমিনে দেখা যায়, কুষ্টিয়ায় প্রায় ২ শতাধিক ইটভাটা রয়েছে। এরমধ্যে ৩০ থেকে ৪০টি ভাটা জিগজ্যাগ জাতীয়, ৮০ থেকে ৯০টি (১শ’ ২০ ফিটের) ফিক্সট চিমনি ও ২৫ থেকে ৩০টি ড্রাম চিমনি রয়েছে। এ বছর কুষ্টিয়ার বেশ কয়েকটি ড্রাম চিমনির ইটভাটাই ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে ড্রাম চিমনি ও কাঁচা ইট ধ্বংস করে দেন। এর পরবর্তীতে আবারও ওই চক্র ভাটা নির্মাণ করে অবৈধভাবে ব্যবসা চালিয়ে আসছে। এছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় আবাদি জমিসহ বিভিন্ন স্থানে ড্রাম চিমনির ইটভাটা নির্মাণ করে কাঠ দিয়ে অবাধে ইট পুড়ানো হচ্ছে। তাদের দেখা দেখি অন্যান্যরা স্ব স্ব স্থানে ড্রাম চিমনির ইটভাটা গড়ে তুলেছে।
বিশেষ করে কুষ্টিয়ার শহরতলীর গড়াই নদীর চর এলাকা, তালবাড়ীয়া ইউনিয়নের চারুলিয়াসহ বেশকয়েকটি স্থানে ভ্রামমান আদালতের অভিযান না থাকায় ইটভাটা মালিকরা বীরদর্পে অবৈধভাবে করাতকল স্থাপন করে ড্রাম চিমনির ইটভাটাগুলোতে কাঠ পুড়িয়ে ইট তৈরি করে আসছে। এছাড়াও বর্তমান এ জেলাই শতাধিক ইটভাটায় অবৈধভাবে পোড়ানোর জন্য বিপুল পরিমান কাঠের খড়ি মজুদ করা হয়েছে। দেশের বনজ সম্পদ উজাড় করে প্রতিদিন ট্রাক ট্রাক খড়ি কুষ্টিয়ার ইটভাটাগুলোয় নিয়ে আসা হচ্ছে। সরকারি নিয়মনীতির কোন রকম তোয়াক্কা না করে এখানকার ইটভাটা মালিকরা তাদের ইট পোড়ানোর জন্য কাঠের খড়ি আমদানির প্রতিযোগিতায় মাঠে নেমেছেন। অবৈধভাবে সমান তালেই চলছে ১২০ ফিটের ফিক্সট ও ড্রাম চিমনি।
বর্তমান কুষ্টিয়ার বিভিন্ন উপজেলায় প্রায় ২ শতাধিক ইটভাটা রয়েছে। পরিবেশ বান্ধব এলাকায় ইটভাটা স্থাপন এবং ভাটায় জ্বালানি হিসেবে কয়লা পোড়ানোর নিয়ম থাকলেও এ জেলায় তা কোন ভাবেই মানা হচ্ছেনা। সরকারি নির্দেশ মতে ১২০ ফুট ফিক্সট ও ড্রাম চিমনির ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হলেও এখানকার ইটভাটা মালিক সরকারের এই নির্দেশ অমান্য করে আদালতে রিট করার নামে ১২০ ফিটের ফিক্সট চিমনিসহ আগের সেই ড্রাম চিমনি এখনও ব্যবহার করছে। শুধু তাই নয় কয়েকটি ইটভাটায় অবৈধভাবে করাতকল স্থাপন করে কাঠ চিরে ভাটায় পোড়ানো হচ্ছে।
ইতোপূর্বে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় ১৯টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া যায়। এরমধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ৬টি, ড্রাম চিমনি রয়েছে ১১টি ও জিগজ্যাক রয়েছে ২টি। দৌলতপুর উপজেলার ২৬টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া যায়। এর মধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ১৭টি, ড্রাম চিমনি রয়েছে ৮টি ও জিগজ্যাক ১টি। কুমারখালী উপজেলায় ১৮টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া যায়। এর মধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ৮টি, ড্রাম চিমনি রয়েছে ২টি ও জিগজ্যাগ রয়েছে ৮টি। খোকসা উপজেলায় ৮টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া যায়। এরমধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ১টি ও জিগজ্যাক রয়েছে ৭টি। মিরপুর উপজেলার ২৬টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ২৩টি, ড্রাম চিমনি রয়েছে ১টি ও জিগজ্যাগ ২টি। ভেড়ামারা উপজেলার ৩২টি ইটভাটার তালিকা পাওয়া যায়। এর মধ্যে ফিক্সট চিমনি রয়েছে ৩০টি ও জিগজ্যাগ ২টি। এছাড়াও তালিকার বাইরেও কিছু ভাটা রয়েছে।
তবে উল্লিখিত তালিকার মধ্যে বেশ কয়েকটি ইটভাটা বন্ধ রয়েছে ও বেশ কয়েকটি নতুন ভাটাও স্থাপন করা হয়েছে বলে জানা যায়। সরকারের জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে ইটভাটাগুলোয় জালানি হিসেবে শুধুমাত্র কয়লা ব্যবহারের জন্য নির্দেশ দেয়া হলেও এ জেলায় সরকারের এ নির্দেশ কিছুতেই মানা হচ্ছেনা। কয়লার পরিবর্তে এখানকার প্রতিটি ইটভাটায় মজুদ করা হচ্ছে বিপুল পরিমান খড়ি। বনজ সম্পদ উজাড় করে দেশের দক্ষিণ অঞ্চল থেকে প্রতিদিন ট্রাক ট্রাক খড়ি এসব ইটভাটায় মজুদ করা হচ্ছে। প্রশাসনের নাকের ডগার ওপর দিয়ে এসব খড়ি বোঝাই ট্রাক প্রতিদিন নির্বিঘেœ পারাপার হচ্ছে।
এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আতাউর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, কুষ্টিয়া জেলায় সর্বমোট ১৪৩ টি ইটভাটা রয়েছে। এরমধ্যে ৪০টি ইটভাটা বৈধ। তিনি বলেন, আমরা এ বছর কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ও কুমারখালী উপজেলায় ৯টি অভিযান চালিয়েছি। অভিযানে ২৯টি ভাটার মধ্যে ১১টি ভাটা ভেঙে দেয়া হয়েছে ও জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়াও তিনি বলেন, ভাটা মালিকরা উচ্চ আদালতে রিট করার কারণে অনেক ভাটা অবৈধ হলেও তা ভেঙে দেয়া যাচ্ছে না। তবে আগামীতে আরও অভিযান চলবে। এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, উচ্চ আদালত আগামী দুই মাসের মধ্যে সকল অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
ash ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৪:৩১ এএম says : 0
JAHARNAMER CHOWRASTA MORE DARIE ASE BANGLADESH !!
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন