ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যস্ততা বাড়ছে নারী দলের!

প্রকাশের সময় : ৫ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

শামীম চৌধুরী : আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ছেলেদের দ্বি-পাক্ষিক সিরিজে অপর্যাপ্ত ম্যাচের সংখ্যায় অসন্তুষ্টির কমতি নেই। দ্বি-পাক্ষিক সফরসূচিতে এফটিপির (ফিউচার ট্যুর প্রজেক্ট) নির্ধারিত সিরিজ কারণে, অকারণে পড়ছে বাদ। লম্বা জটে পড়েছে আন্তর্জাতিক সিরিজ। তা নিয়ে বিসিবি’র ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটিকে কম সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে না। সেখানে ওম্যান্স উইং চওড়া হাসি দিতেই পারে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল যেখানে চলমান বছরের অবশিষ্ট ৫ মাসে ৬টির বেশি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে না, সেখানে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের জন্য ইতোমধ্যে সম সংখ্যক ৫০ ওভারের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার নিশ্চয়তা দিয়েছে বিসিবি’র ওম্যান্স উইং। বছরের শেষ ৪ মাসে টি-২০তে ছেলেদের ম্যাচ সংখ্যাকে যাবে ছাড়িয়ে মেয়েরা! মাশরাফিরা যেখানে বছরের শেষ ২টি আন্তর্জাতিক সিরিজে মাত্র ২টি টি-২০ ম্যাচ খেলার নিশ্চয়তা পেয়েছে, সেখানে এই সময়ে মেয়েদের টি-২০ ম্যাচের সংখ্যা দাঁড়াবে ৯টিতে! সর্বশেষ বোর্ড সভায় ২০১৬-১৭ মওশুমে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের সফরসূচি চূড়ান্ত করে এ বার্তাই দিয়েছে বিসিবি’র ওম্যান্স উইং।

ঘরোয়া ক্রিকেটে মেয়েদের আসর জৌলুসহীন, রুটিন আসরে সীমাবদ্ধ বিসিবি’র ওম্যান্স উইংয়ের কর্মকাÐ। ২০১৬-১৭ মওশুমে সালমা, শুকতারা, রোমানা, জাহানারারা ঘরোয়া ক্রিকেট আসর পাচ্ছে মাত্র তিনটি। ২০১৭’র ফেব্রæয়ারিতে ৫০ ওভারের প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগ, আগামী এপ্রিলে ৫০ ওভারের বিভাগীয় ন্যাশনাল লীগ, মে মাসে ৩৫ ওভারের ওম্যান্স ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম শ্রেণির নারী ক্রিকেটাররা পারবে খেলতে। সেখানে ঘরোয়া ক্রিকেটের চেয়েও বাংলদেশ মেয়েদের ব্যস্ততা বাড়ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। ২০১৭ সালের জানুয়ারি-ফেব্রæয়ারিতে অনুষ্ঠেয় আইসিসি ওম্যান্স কোয়ালিফাইং টূর্নামেন্টকে সামনে রেখে ৩টি আন্তর্জাতিক সিরিজে খেলার সুযোগ পাচ্ছে মেয়েরা! আশ্চর্য হলেও সত্য, গত মাসে নারী প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগ শেষ হওয়ার পর ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্য কোন প্রতিদ্ব›দ্বীতাপূর্ণ আসরে না খেলেই সরাসরি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অবতীর্ণ হচ্ছে বাংলাদেশ নারী দল এবং টানা ৪টি আন্তর্জাতিক সিরিজ এবং টূর্নামেন্টে খেলবে নারী দল ঘরোয়া ক্রিকেটে না খেলেই !
শ্রীলংকান কোচ চম্পিকা গামাগী চলে যাওয়ার পর কোচহীন কাটছে নারী দলের কার্যক্রম। তার উপর ঘরোয়া ক্রিকেটকে উপেক্ষা করে টানা ৪টি আন্তর্জাতিক সিরিজ, টূর্নামেন্টে অংশ নিবে বাংলাদেশ নারী দল। বিষয়টি ভাবাচ্ছে ওম্যান্স উইং কমিটির চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল চৌধুরী বুলুকেওÑ ‘ঈদ এর পর মেয়েদের ক্যাম্প ডাকব। আপাততঃ স্থানীয় কোচ দিয়েই শুরু হবে ক্যাম্প। মেয়েদের জন্য উঁচুমানের কোচ চেয়ে আইসিসি’র কাছে চিঠি দিয়েছি। আইসিসি’র তালিকাভুক্ত কোচদের মধ্যে যাদের প্রোফাইল ভাল, আশা করছি ঈদের পর পর তাদের একজনকে বেছে নিতে পারব। সঙ্গে একজন ফিজিওকেও নিয়োগ দিতে চাই। এক-দুই বছরের জন্য কন্ট্রাক্ট করার করার কথা ভাবছি। তাহলে সামনে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মেয়েদের যে ব্যস্ততা আছে, তা সামনে রেখে অনুশীলনটা ঠিক মতো করতে পারবে মেয়েরা। আপাততঃ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আগে মেয়েদের কোন ঘরোয়া ক্রিকেট নেই, তা ঠিক। তবে শ্লট বের করে টূর্নামেন্ট আয়োজনের চিন্তা-ভাবনা আছে।
আগামী সেপ্টেম্বরে আয়ারল্যান্ড সফরের মধ্য দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশ নারী দলের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যস্ততা। দ্বি-পাক্ষিক সফর সূচিতে আয়ারল্যান্ড সফরে ৩ ওয়ানডে, ৩ টি-০ এবং ফিরতি সফরে বাংলাদেশের মাটিতে এ বছরের নভেম্বরে ৩ ওয়ানডে ৩ টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ নারী দল। গত বছরের অক্টোবরে নিরাপত্তা শংকার অজুহাতে বাংলাদেশ সফর স্থগিত করা প্রোটিয়া মেয়েদের পরিবর্তিত সফরে বাংলাদেশে আসার কথা আগামী বছরের জানুয়ারিতে। ওই সফরেও থাকছে ৩ ওয়ানডে, ৩ টি-২০। ২০০৬ সালে টি-২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখা বাংলাদেশ দল সংক্ষিপ্ত ভার্সনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে মাত্র ৬২টি। সেখানে ২০১২ সালে টি-২০ আন্তর্জাতিক অভিষেক হওয়া বাংলাদেশ নারী দল ৫ বছরে খেলে ফেলেছে ৩০টি টি-২০! ২০১৬-১৭ ক্রিকেট মওশুমে ওম্যান্স বিশ্বকাপ বাছাইপর্বেও ম্যাচ ছাড়াও ৯টি টি-২০ ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ নারী দল ! ভাগ্যটা আসলেই ভাল মেয়েদেরÑমাশরাফি, তামীমদের মতো অপর্যাপ্ত ম্যাচ খেলার আক্ষেপ অন্ততঃ করতে হচ্ছে না তাদের।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন