ঢাকা, রোববার, ২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬, ০৩ শাবান ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব নেই

সব প্রবেশপথে ২৫৬৮৫৪ স্ক্রিনিং

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

নতুন করোনাভাইরাসের আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথমবারের মতো এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপর চীনের বিভিন্ন শহরসহ বিশ্বের অনেক দেশেই এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ে। এর ভয়াবহতা অনুধাবণ করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বৈশ্বিক জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করে। ইতিমধ্যে এ রোগে প্রয় পোনে এক লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ২৪৫ জনের। বাংলাদেশে ভাইরাসটির সংক্রমন ঠেকাতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। গত ২১ জানুয়ারি থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশের সব প্রবেশপথে ২ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫৪ জনকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় (বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) ১৫ হাজার লোকের স্ক্রিনিং সম্পন্ন হয়েছে।

রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রন ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) তথ্য অনুয়ারি গত ২১ জানুয়ারি থেকে শুক্রবার পর্যন্ত দেশে ৩টি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিদেশ থেকে আসা ১ লাখ ২৩ হাজার ৬১৬ জন যাত্রীকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় এই সংখ্যা ৮ হাজার ৩৭১ জন। দেশের দুটি সমুদ্রবন্দর স্ক্রিনিং করা হয়েছে ২ হাজার ৯৫৯ জন। ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রেলওয়ে স্টেশনে স্ক্রিনিংকৃত যাত্রীর সংখ্যা ২ হাাজর ৩৪ জন। এছাড়া দেশের অন্যান্য স্থলবন্দরগুলোতে গত এক মাসে ১ লাখ ৩১ হাজার ২০৪ জনের স্ক্রিনিং হয়েছে।
প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক প্রফেসর ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, আমরা এ পর্যন্ত ২ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫৪ জন স্ক্রিনিং করেছি। এরমধ্যে সন্দেহজনক ৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। কিন্তু করো শরীরে নতুন করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। তিনি দেশবাসীকে এ সংক্রান্ত বিভ্রান্তিতে কান না দিয়ে যেকোন বিষয়ে জানতে আইইডিসিআর’র হট নম্বরে যোগাযোগের জন্য অনুরোধ জানান।

সংক্রমন প্রতিরোধ প্রসঙ্গে আইইডিসিআর এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এস এম আলমগীর বলেন, এক্ষেত্রে সচেতনতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। নিয়মিত সাবান ও পানি দিয়ে দুই হাত অন্তত ২০ সেকেন্ড ধরে ধুতে হবে। অপরিস্কার হাতে চোখ, নাক, মুখ স্পর্শ করা যাবে না। এ রোগে আক্রান্ত এমন ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে। অসুস্থ পশু, পাখির সংস্পর্শ পরিহার করতে হবে। মাছ-মাংস-ডিম ভালভাবে রান্না করে খেতে হবে। অসুস্থ হলে ঘরে থাকতে হবে, বাইরে যেতে হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।
বাংলাদেশ পরিস্থিতি : আইইডিসিআর-এর ভাইরোলজি ল্যাবরেটরিতে সন্দেহজনক করোনা (ঈঙঠওউ-১৯) আক্রান্তদের নমুনা পরীক্ষা করে কারো শরীরের ভাইরাস পাওয়া যায় নি। চীনের উহান ফিরত ৩১২ জন যাত্রীর কোয়ারেন্টিন পরবর্তি আরো ১০ দিন ৩১২ জনকে সীমিত চলাচল ও নিজেেেদর স্বাস্থ্য পরিস্থিতি অবহিত করতে আইইডিসিআর-এর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়। তাদের কেউ কেউ হটলাইনে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকেও তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। তারা সবাই সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন আইইডিসিআর এর পরিচালক প্রফেসর ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

সিঙ্গাপুর পরিস্থিতি

সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে প্রেরিত সর্বশেষ খবরে জানোনো হয়েছে, মোট ৫ জন বাংলাদেশি নাগরিক এ রোগে সংক্রমিত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তাদের মধ্যে ১ জন আইসিইউ-তে আছেন। কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫ জন। সিঙ্গাপুরে সর্বমোট ৮৫ জন কোরনাবাইরাস আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সন্দেহজনক ১ হাজার ১০৪ জনকে পরীক্ষা করা হলেও, তাদের শরীরে ভাইরাস পাওয়া যায়নি। ৩৭ জনের পরীক্ষার ফলাফল অপেক্ষাধীন।

এক দিনে প্রাণ গেল আরও ১১৫ জনের : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীনের হুবেই প্রদেশে আরও ১১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে প্রদেশটিকে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ২ হাজার ১৪৪ জনে। চীনের মূল ভ‚খন্ডে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে অন্তত ২ হাজার ২৪৫ জনের। এছাড়া চীনের বাইরে জাপানে তিনজন, হংকংয়ে দুইজন, ইরানে দুইজন, তাইওয়ানে একজন, ফিলিপাইনে একজন, ফ্রান্সে একজন ও দক্ষিণ কোরিয়ায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। ভাইরাসের কেন্দ্রস্থল হুবেই প্রদেশে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৪১১ জন। এ নিয়ে হুবেইতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬২ হাজার ৪৪২ জনে। এদিকে সব মিলিয়ে বিশ্বজুড়ে ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে অন্তত ৭৭ হাজার। গতকাল শুক্রবার হুবেই স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানিয়েছে। এদিকে চীনের বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত রয়েছে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে কোয়ারেন্টাইনে থাকা প্রমোদতরী প্রিন্সেস ডায়মন্ডে। এই প্রমোদতরীতে ৬২১ জনের শরীরে করোনার লক্ষণ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এক যাত্রীর শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ পাওয়ার পর গত ৩ ফেব্রæয়ারি থেকে এই বন্দরে কোয়ারেন্টিনে ছিল প্রিন্সেস ডায়মন্ড। কার্নিভাল করপোরেশনের বিলাসবহুল এই প্রমোদতরীতে প্রায় তিন হাজার ৭০০ যাত্রী ছিলেন। গত ৩১ ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপর চীনের বিভিন্ন শহরসহ বিশ্বের অনেক দেশেই এই ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভাইরাসের কারণে বৈশ্বিক জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করেছে। এ পর্যন্ত চীন, থাইল্যান্ড, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ভিয়েতনাম, হংকং, সিঙ্গাপুর, ভারত, মালয়েশিয়া, নেপাল, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জার্মানি, কম্বে^াডিয়া, শ্রীলঙ্কা, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং তাইওয়ানে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

করোনায় বাঁধাগ্রস্থ সীমান্তে একুশের অনুষ্ঠান : করোনাভাইরাসের কারণে এ বছর বেনাপোল ও পেট্রাপোলের মধ্যবর্তী শূন্যরেখায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠান হয়নি। তবে দুই দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা শূন্যরেখায় অস্থায়ী শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। এ সময় তাদের মধ্যে হয়েছে সংক্ষিপ্ত আড্ডা ও স্মৃতিচারণ। দুই বাংলার সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো সীমান্তরেখার দুই পাশে পৃথক অনুষ্ঠান করেছে। দুই বাংলা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন কমিটি আহ্বায়ক শার্শা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সিরাজুল হক বলেন, ২০০২ সালে ভাষা শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দুই বাংলার ‘ভারত-বাংলাদেশ গঙ্গা-পদ্মা ভাষা ও মৈত্রী সমিতির’ উদ্যোগে সীমান্তবর্তী প্রায় ২০টি সংগঠন বেনাপোল-পেট্রাপোলের এই মিলন মেলার সূচনা করে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় মৃত্যু : চীনের সীমান পেরিয়ে প্রতিবেশী রাষ্ট্র দক্ষিণ কোরিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। দেশটিতে ইতিমধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ মৃত্যুকে ঘিরে বাড়ছে আতঙ্ক। ২৫ লাখ অধিবাসীর দেয়াগু শহরের শপিং মল এবং সিনেমা হলগুলো সব বন্ধ হয়ে গেছে। শহরতলীর রাস্তাগুলোও ফাঁকা হয়ে গেছে। দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ১০৪ জনে দাঁড়িয়েছে। দেয়াগু শহরে একটি চার্চে প্রার্থনায় যোগ দেয়া ৯০ জন মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ায় শহরটির মেয়র অধিবাসীদের ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। কোরিয়ার ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন’ এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে ‘সুপার স্প্রেডিং ইভেন্ট’ আখ্যা দিয়েছে। কোরনাভাইরাস আক্রান্ত এক নারী সাংবাদিকদের বলেছেন, আমরা নজিরবিহীন সংকটে আছি। ৬১ বছর বয়সী এই নারীও চার্চের প্রার্থনায় অংশ নেন। তার করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। চার্চের সবাইকেই ভাইরাস পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে চীনের জেলখানায় : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে চীনের দুটি জেলখানায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে না পারায় চাকরি গেছে কারা কর্মকর্তাদের। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার প্রথমবারের মত চীনে এক দিনে দুই হাজারের বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। তবে রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন ধরে নিয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া কয়েক জনের মধ্যে নতুন করে ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ায় সতর্ক করেছেন একজন চীনা বিশেষজ্ঞ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Rezwan Khan Chunnu ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৪৯ এএম says : 0
জাহাজ আমদানি কারকরাতো করোনা ভাইরাস বিশেষজ্ঞ। কঠোর অবস্থান না নিলে চরম মাশুল দিতে হতে পারে।
Total Reply(0)
Anamul Hassan ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫০ এএম says : 0
অবিলম্বে উইগুর মুসলমানদের উপর চলমান জুলুম বন্ধ করা হোক
Total Reply(0)
Diba Talukdar ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫১ এএম says : 0
করোনাভাইরাস সে পশু থেকে ছড়িয়েছে সেই সময় কেন বাতাসে ভেসে যেতে পেরেছিল না
Total Reply(0)
মেহেদী ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫২ এএম says : 0
হে আল্লাহ, সবাইকে এই মহামারি করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করুণ। আমিন,,,
Total Reply(0)
Bithi Sami ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫৩ এএম says : 0
একটা জাতির উপর যখন গজব আসে তখন সেখানকার অনেক ভাল মানুষ ও ধংসের মধ্যে পরে।
Total Reply(0)
Muhammad Shafiuddin ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫৩ এএম says : 0
আল্লাহর কাছ থেকে গজব নেমে এসেছে চীনের উপর,সেই গজব লোকের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছে,,
Total Reply(0)
Abdur Rahman ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫৫ এএম says : 0
মুসলমানদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই, মুসলমানদের আল্লাহয়ি রক্ষা করবেন।
Total Reply(0)
MD Ershad ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:৫৫ এএম says : 0
চায়নার উইঘুর মুসলমানদে কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত। আল্লাহ সবাইকে হেফাজত করুক।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন