ঢাকা, বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

হারতে হারতে ড্র সাইফের!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৭:১০ পিএম

ঘরোয়া ফুটবলের মর্যাদাপূর্ণ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) টানা দুই জয়ের পর এবার চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে হারতে হারতে ম্যাচ ড্র করল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। রোববার ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম আবাহনী দুই গোলে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ২-২ ব্যবধানে ড্র করে সাইফের সঙ্গে। চট্টগ্রামের পক্ষে নিক্সন গুইয়েরা ও চিনেডু ম্যাথিউ একটি করে গোল করেন। সাইফের রুয়ান্ডার ফরোয়ার্ড ইমেরি বাইসেঙ্গে একাই দু’গোল শোধ দেন। তিন ম্যাচে দুই জয় ও এক ড্র’তে সাইফের সংগ্রহ ৭ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে একটি করে জয়, ড্র ও হারে চট্টগ্রাম আবাহনীর পয়েন্ট ৪।

এদিন ম্যাচের শুরু থেকেই সাইফকে চেপে ধরে চট্টগ্রামের দলটি। তারপরও তারা প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি। ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিংও পাল্টা আক্রমণে গিয়ে গোলের সুযোগ সৃষ্টি করে। কিন্তু চট্টগ্রাম আবাহনীর রক্ষণদূর্গের সামনে মুখ থুবরে পড়েন তাদের ফরোয়ার্ডরা। ফলে গোলশূণ্য অবস্থায় শেষ হয় প্রথমার্ধ। তবে দ্বিতীয়ার্ধে ১০ জনের দলে পরিণত হওয়ার পর যেন খেই হারিয়ে ফেলে সাইফ স্পোর্টিং। হজম করে পর পর দুই গোল। অবশ্য শেষ পর্যন্ত দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ম্যাচে সমতা আনে তারা। এবং অনেকটা হারা ম্যাচ ড্র করে মাঠ ছাড়ে।

ম্যাচের ৫৯ মিনিটে চট্টগ্রাম আবাহনীর এক খেলোয়াড়কে মারাত্মক ফাউল করেন সাইফের ফয়সাল আহমেদ ফাহিম। রেফারি তাকে সরাসরি লালকার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দিলে দশজনের দলে পরিণত হয় দলটি। এর দু’মিনিট পরই গোল হজম করে সাইফ। ম্যাচের ৬১ মিনিটে ডান দিক থেকে চিনেডু ম্যাথিউয়ের আড়াআড়ি ক্রসে নিক্সন গুইয়েরা হেড করার পর বল পান চার্লস দিদিয়ের। তিনি ফিরতি পাস দেন গুইয়েরা’কে। ভুল করেননি এই ফরোয়ার্ড। প্লেসিং শটে গোল করে এগিয়ে নেন চট্টগ্রাম আবাহনীকে (১-০)। ম্যাচের ৭৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে চট্টগ্রামের দলটি। এসময় দিদিয়েরের পাস ধরে প্রথম দফায় সাইফের গোলরক্ষকের গায়ে বল মারেন ম্যাথিউ। প্রতিপক্ষ দলের গোলরক্ষকের গায়ে লেগে বল ফিরে আসলে ফিরতি শটে লক্ষ্যভেদ করেন ম্যাথিউ (২-০)। দুই গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর নিশ্চিত জয়ের লক্ষ্যে ম্যাচের অন্তিম মূহূর্তে পৌঁছালেও কপাল পুড়ে চট্টগ্রামের। নির্ধারিত ও যোগকরা সময়ে পর পর দু’গোল শোধ দিয়ে হারা ম্যাচ ড্র করে সাইফ। ম্যাচের ৯০ মিনিটে রাফির ফ্রি-কিকে এক সতীর্থ হেড করার পর গোলমুখ থেকে নিখুঁত টোকায় গোল করেন ইমেরি বাইসেঙ্গে (১-২)। আর যোগকরা সময়ে (৯০+৪ মিনিট) কর্নার থেকে হেডে সাইফকে সমতায় ফেরান রুয়ান্ডার এই ফরোয়ার্ড (২-২)।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন