ঢাকা, বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন, সিরিয়ায় বড় সাফল্য পেল তুরস্ক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৬:৩০ পিএম

তুরস্কের সমর্থিত সিরিয়ার বিদ্রোহীরা বৃহস্পতিবার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় গুরুত্বপূর্ণ শহর সারাকেব পুনরায় দখল করে নিয়েছে। এটি সিরিয়ার সরকারী বাহিনীর জন্য প্রথম বড় ধাক্কা হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। এদিকে, উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ ইদলিবে বাশার আল-আসাদের অনুগত বাহিনীর বিমান হামলায় তুরস্কের অন্তত ৩৪ সেনা নিহত হন। এ ঘটনায় তুরস্কের প্রতি সমর্থন জানিয়ে পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার তুরস্কের পাল্টা হামলায় ১৬ সিরীয় সেনা নিহত হয়েছেন। ব্রিটেনভিত্তিক সিরীয় অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, বিদ্রোহীদের হটিয়ে মাস তিনেক আগে সরকারি বাহিনীর দখলে নেয়া অঞ্চলটিতে সিরিয়ার সামরিক অবস্থানে ড্রোন ও গোলা বর্ষণ করে তুর্কি বাহিনী। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দামেস্কোর কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

খবরে বলা হয়, রাশিয়ার সহযোগিতায় আসাদবাহিনী বিরোধীদের হাত থেকে ইদলিবের নিয়ন্ত্রণ নিতে গত কয়েক দিন ধরেই হামলার পরিমাণ ও তীব্রতা বাড়িয়ে চলছে। বৃহস্পতিবারের হামলা তারই নজির।

এ বিষয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, দুটি প্রধান মহাসড়কের সংযোগস্থলে অবস্থিত সারাকেব শহরটি বিদ্রোহীদের হঠিয়ে দখলে নিয়েছিল রাশিয়ার সমর্থিত সিরিয়ার সরকারী বাহিনী। তিন সপ্তাহ পরে শহরটি পুণরায় বিদ্রোহীদের দখলে আসায় পরিস্থিতি আঙ্কারার পক্ষে আসল।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানিয়েছে, তুর্কি সামরিক বিশেষজ্ঞরা ইদলিব প্রদেশের উপরে রাশিয়ান এবং সিরিয়ার সামরিক বিমান গুলি করার চেষ্টা করার জন্য কাঁধে চালিত ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ব্যবহার করছিলেন - এটি এমন একটি উন্নয়ন যা নিশ্চিত হলে এই সংঘাতের মারাত্মক বৃদ্ধি ঘটবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সিরিয়ার যুদ্ধ বিমানগুলি বৃহস্পতিবার ইদলিব নগরীর আবাসিক এলাকায় নতুন করে বিমান হামলা চালিয়েছে।

এদিকে ইদলিব প্রদেশে সিরিয়া সরকার ও তার মিত্র রাশিয়ার ঘৃণ্য অভিযান বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া তুরস্কের ৩৩ সেনা নিহত হওয়ার পর দেশটির প্রতি সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তারা। বৃহস্পতিবার মার্কিন পররারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, আমরা ন্যাটোমিত্র তুরস্কের পাশে রয়েছি এবং আসাদ সরকার, রাশিয়া ও ইরানসমর্থিত বাহিনীর ঘৃণ্য অভিযান তাৎক্ষণিক বন্ধের আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি বলেন, তুরস্ককে কীভাবে আমরা সর্বাত্মক সমর্থন দিতে পারি, তার ভালো বিকল্প ভেবে দেখছি।

তুরস্কর কাছ থেকে তথ্য চেয়ে আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। ন্যাটোতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেই বেইলি হুচিসান বলেন, এই ঘটনায় বড় ধরনের পরিবর্তনের আলামত। তিনি আরও জানান, আমরা আশা করছি, প্রেসিডেন্ট এরদোগান ভেবে দেখবেন, আমরা তাদের অতীত ও বর্তমানের মিত্র। কাজেই এস-৪০০ ক্রয় পরিকল্পনা বাতিল করা প্রয়োজন। সূত্র: এএফপি, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Monjur Rashed ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১০:১৮ এএম says : 0
Now USA is beside Turky, once upon a time USA was beside IS
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন