ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

আবাহনী অভিষেক রাঙালেন মুশফিক

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০২০, ১২:০০ এএম

ঘরোয়া ক্রিকেটে বরাবরই বাংরাদেশের দর্শকদের অনীহা। এবার সেই হতশ্রী চেহারা আরেকটু বাড়ল করোনাভাইরাস আতঙ্কে। খা খা গ্যালারির সেই সেই সুর বদলে দিলেন মুশফিকুর রহিম। দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে মাতালেন প্রিমিয়ার লিগ মৌসুমের প্রথম দিনটি।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ১৫ বছরের ক্যারিয়ারে প্রথমবার আবাহনী লিমিটেডে খেলছেন মুশফিক। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দলকে জিতিয়ে ঐতিহ্যবাহী দলটির হয়ে প্রথম ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখলেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিতে। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবকে ৮১ রানে হারিয়ে শিরোপা ধরে রাখার অভিযান শুরু করল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

গতকাল মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে দলের বিপর্যয়ে দাঁড়িয়ে মুশফিক খেললেন ১২৪ বলে ১২৭ রানের অসাধারণ ইনিংস। শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে ৫০ ওভারে আবাহনী তোলে ২৮৯ রান। পারটেক্স থামে ২০৮ রানে।

৪৫তম ওভারে মুশফিকের বিদায়ে ভাঙে জুটি। শেষ পর্যন্ত পেসার জয়নুল ইসলামকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন মিড উইকেটে। তার নামের পাশে তখন ১১ চার ও ৪ ছক্কায় ১২৪ বলে ১২৭ রান। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে মুশফিকের এটি দ্বাদশ সেঞ্চুরি। মোসাদ্দেক পরের ওভারেই ফিরে যান ৭৪ বলে ৬১ রান করে। শেষ দিকে তাÐব চালান মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। ১৫ বলে ৩৯ রানের অপরাজিত ইনিংসে ছক্কা মারেন ৫টি! ৩৫ ওভার শেষে আবাহনীর রান ছিল ১১৩, পরের ১৫ ওভারে আসে ১৫৬ রান। শেষ ১০ ওভারেই ১১৬!

গত বিপিএলে সাড়া জাগানো বাঁহাতি পেসার মেহেদি রানা লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ৪ উইকেটের স্বাদ পেলেন প্রথমবার।
এদিকে দুই মাস পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরার ম্যাচে থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারলেন না সাব্বির রহমান। অভিজ্ঞ নাঈম ইসলাম খুলতে পারলেন না রানের খাতা। টি-টোয়েন্টির পর লিস্ট ‘এ’ অভিষেকেও আলো ছড়ালেন আলিস আল ইসলাম। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে নিজের প্রথম ম্যাচ রাঙালেন অভিষেক দাসও। বিকেএসপিতে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে উড়িয়ে দিল ওল্ড ডিওএইচএস স্পোর্টিং ক্লাব। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে ফেরা দলটি টুর্নামেন্টের প্রথম দিনে জিতেছে ২৫ রানে। তাদের ২৩০ রানের জবাবে ২০৫ রানে থেমেছে গত দুই মৌসুমের রানার্সআপ রূপগঞ্জ।

এছাড়া নায়ক হওয়ার সুযোগ ছিল জুনায়েদ সিদ্দিকের সামনে। ৩ বলে মেলাতে হতো ৯ রানের সমীকরণ। পারেননি বাঁহাতি এই ওপেনার। তাইবুর রহমানের লড়াকু সেঞ্চুরির পর রেজাউর রহমানের দারুণ বোলিংয়ে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে হারতে বসা ম্যাচে নাটকীয় জয় পেয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের ম্যাচটি ৮ রানে জিতেছে মার্শাল আইয়ুবের দল। ২৩৮ রান তাড়ায় দুই বল বাকি থাকতে ২৩০ রানে গুটিয়ে গেছে ব্রাদার্স।

৯৪ বলে পাঁচ ছক্কা ও সাত চারে ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন বাঁহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান তাইবুর। মাত্র ৩ রানের জন্য সেঞ্চুরি পাননি জুনায়েদ। ১২৫ বলে খেলা তার ৯৭ রানের ইনিংস গড়া ৬ চারে। তাকে এলবিডবিøউ করে থামানো রেজাউর ৩৬ রানে নেন ৪ উইকেট।

সং ক্ষি প্ত স্কো র
আবাহনী-পারটেক্স, মিরপুর
আবাহনী : ৫০ ওভারে ২৮৯ (লিটন ০, শান্ত ১৫, মুশফিক ১২৭, মোসাদ্দেক ৬১, সাইফউদ্দিন ৩৯*; রনি ১/৭২, জয়নুল ৩/২৮, শাহবাজ ১/৫৯, তাসামুল ২/২৯)। পারটেক্স : ৪৮.৩ ওভারে ২০৮ (রিজভি ২৪, তাসামুল ৪৩, ধীমান ৩৬, মিলন ৫৩; সাইফউদ্দিন ১/৪২, রানা ৪/৫৫, সৈকত ১/৬, সানি ১/২৫, তাইজুল ২/৩০, বিপ্লব ১/৪৪)। ফল : আবাহনী ৮১ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : মুশফিকুর রহিম (আবাহনী)।

দোলেশ্বর-ব্রাদার্স, ফতুল্লা
প্রাইম দোলেশ্বর : ৫০ ওভারে ২৩৮/৭ (ইমরান ৩৪, মার্শাল ২৬, তাইবুর ১১০*, এনামুল ২৩; বাবু ১/৩৫, রাহাত ১/৩৭, সাকলাইন ২/২৭, মাইশুকুর ১/১৯, তুহিন ১/৩২)। ব্রাদার্স ইউনিয়ন : ৪৯.৪ ওভারে ২৩০ (জুনায়েদ ৯৭, তুষার ৫১, রাহাত ৩১; রাব্বি ১/৫৫, শামিম ১/৩৫, রাজা ৩/৩৬, শরিফুল্লাহ ২/৪৭, সাইফ ১/১৫)। ফল : প্রাইম দোলেশ্বর ৮ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : তাইবুর রহমান (দোলেশ্বর)।

ওল্ড ডিওএইচএস-রূপগঞ্জ, বিকেএসপি
ওল্ড ডিওএইচএস : ৪৯ ওভারে ২৩০ (আনিসুল ৫৯, রাকিন ৪৮, মাহমুদুল ৩৫, প্রিতম ৩৩, অভিষেক ১৪; শহিদ ২/৪১, আল আমিন ২/৫১, সানজামুল ১/৪৭)। রূপগঞ্জ : ৫০ ওভারে ২০৫ (পিনাক ৫৩, সানজামুল ৪০, সোহাগ ৩২; রশিদ ৩/৩৫, অভিষেক ৩/৪৪, আলিস ২/৩৬, রকিবুল ২/২৮)। ফল : ওল্ড ডিওএইচএস ২৫ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : অভিষেক দাস (ওল্ড ডিওএইচএস)।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন