ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬, ০৭ শাবান ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

অনলাইন ব্যাংক জালিয়াতি চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

অনলাইন ব্যাংক জালিয়াতি চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবারে কক্সবাজার, ঢাকা ও শনিবার ফরিদপুরে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গতকাল এ তথ্য জানিয়েছেন ডিএমপির সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার মো. নাজমুল ইসলাম।
তিনি জানান, গত শুক্রবার ভোরে কক্সবাজারে অভিযান চালিয়ে ব্যাংক জালিয়াত চক্রের প্রধান মামুন তালুকদারকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যমতে একই দিন রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে রাজু ফারাজীকে গ্রেফতার করা হয়। পরদিন শনিবার ফরিদপুর ভাঙা থেকে মো. মিঠু মৃধা নামের আরেকজনকে গ্রেফতার করা হয়। মিঠু ও রাজু মামুনের সহযোগি বলে জানান তিনি।

তিনি জানান, গ্রেফতারদের কাছ থেকে ব্যাংকিং প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি এক্সিও গাড়ি, ৭ টি বিশেষ অ্যাপসযুক্ত মোবাইল ফোন, বহু ভুয়া রেজিস্ট্রেশনকৃত মোবাইল সিমকার্ড, একাধিক ব্যাংক, বিকাশ, নগদ ও স্ক্রিল একাউন্ট জব্দ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা তাদের অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন।
তিনি আরো জানান, তারা কয়েক মাস থেকে অভিনব ও সুনিপুণ কায়দায় বিভিন্ন ডায়লার অ্যাপসের মাধ্যমে কয়েকটি ব্যাংকের হেড অফিসের কার্ড ডিভিশনের মোবাইল নম্বর স্পুফ করে শাখা-ম্যানেজারদের কল দেয়। পরে ম্যানেজারদের কাছ থেকে আগের মাসের নতুন কার্ড ব্যবহারকারীদের নাম, কার্ড নম্বর এবং মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করতেন। তারপর প্রতারকরা ব্যাংকের কাস্টমার কেয়ার এজেন্ট সেজে গ্রাহকদের কল করে বলতেন, তারা ব্যাংক থেকে তার নতুন কার্ডটি একটিভ করা বা অন্য কিছু ফিক্স করার জন্য কল করেছেন। এরপর চক্রটি কৌশলে স্পুফড মোবাইল কলের মাধ্যমেই গ্রাহকদের কার্ডের মেয়াদ, ৩ থেকে ৪ ডিজিটের সিভিভি কোড এবং প্রয়োজন সাপেক্ষে মোবাইলের ওটিপি সংগ্রহ করেন। পরবর্তীতে গ্রাহকদের কার্ড থেকে টাকা বা ডলার প্রতারকদের লন্ডন ভিত্তিক ই কমার্স অ্যাপস স্ক্রিল একাউন্ট, বিকাশ বা নগদ এ ট্রান্সফার করে। তারপর এটিএম বুথ, বিকাশ বা নগদ এজেন্ট থেকে ক্যাশ আউট করতেন তারা।

পুলিশের ওই কর্মকর্তা জানান, এভাবে দেশের একাধিক শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংকের শতাধিক গ্রাহকদের অর্ধ কোটি টাকা চুরি হয়। পরে কয়েকটি ব্যাংকের কর্তৃপক্ষ ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি এন্ড ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে ঢাকা, ফরিদপুরের ভাঙ্গা এবং কক্সবাজারের প্রায় লক্ষাধিক মোবাইল নম্বর ও ডায়লার অ্যাপসের আইপি বিশ্লেষণসহ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওই প্রতারক চক্রকে সনাক্ত করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন