ঢাকা, শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬, ০৯ শাবান ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সাংবাদিকদের আলাদা পাস লাগবে না

সচিবালয়ে তথ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৬ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক দুর্যোগ। এর সঙ্গে খালেদা জিয়ার মুক্তির কোনও সম্পর্ক নেই। কিন্তু এ ধরণের দায়িত্বহীন কথা তিনি আদৌ বলেছেন কি না, সেটি আমি জানি না, যদি তিনি বলে থাকেন আশা করবো এ ধরণের দায়িত্বহীন কথা কেউ বলবে না। এসময় সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনকালে আলাদা কোনো পাসের প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

গতকাল বুধবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে সচিবালয় বিটে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) নেতাদের কাছে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ অনুষ্ঠানে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব জুড়ে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে আজ বৃস্পতিবার থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার।

বিএনপির উদ্দেশ্যে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করবো প্রধানমন্ত্রীর উদারতা ও মহানুভতায় যে নেতিবাচক ও ধ্বংসাত্মক রাজনীতি বিএনপি করে আসছিল তা থেকে বের হয়ে আসছে। নভেল করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ ঠেকাতে সারা দেশে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি এবং ২৪ মার্চ হতে সশস্ত্র বাহিনী নামার ঘোষণা দেয় সরকার। এই সময়ে গণপরিবহন বন্ধ, জনসমাগম নিষিদ্ধসহ প্রশাসনের বেশকিছু কাজে সহযোগিতা করবেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা।

ছুটির সময়ে সেনাবাহিনী নামার মধ্যে সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনে আলাদা কোনও পাস বা পরিচয়পত্র ইস্যু করা হবে কিনা- জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে মনি করি সাংবাদিকদের যে কার্ড আছে সেটি যথেষ্ট। যদি সাংবাদিকদের মিডিয়া হাউজ থেকে বলে দেওয়া হয় তিনি অন-ডিউটি তাহলে সেটিই যথেষ্ট। এর জন্য আলাদা কার্ড দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে বলে আমি মনে করি না। একজন সাংবাদিক যখন অন-ডিউটি তখন তাকে সহযোগিতা করা প্রয়োজন বলে মনে করি।

তিনি বলেন, এই দুর্যোগ সম্মিলিতভাবে মোকাবেলা করতে হবে। সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহে বিভিন্ন জায়গায় যেতে হয় সেজন্য তারাও কিন্তু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকির মধ্যে থাকেন। আমরা বলেছিলাম সাংবাদিকদের পার্সোনাল প্রটেকশনের জন্য আমরা কিছু পিপিই দেওয়ার ব্যবস্থা করবো। সরকার করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ছুটি ও গণপরিবহন বন্ধ করেছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, মানুষের চলাচল বন্ধ হলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ হয়। বিশেষ করে চীন, দক্ষিণ কোরিয়া এ ব্যবস্থা নিয়ে অনেকটা সফল হয়েছে। বিশ্বজুড়ে ১৮ হাজার ৮৯১ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনাভাইরাস। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ২২ হাজার ৬১৩। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ১ লাখ ৮ হাজার ৮৭৯ জন।

এখন পর্যন্ত ১৯৭টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা চীনে। দেশটিতে নতুন করে আরও ৪৭ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮১ হাজার ২১৮। অপরদিকে করোনায় আকান্ত হয়ে মারা গেছে ৩ হাজার ২৮১ জন।
বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ঘটেছে ইতালিতে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। ফলে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ৬ হাজার ৮২০ জন। নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫ হাজার ২৪৯ জন। ফলে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬৯ হাজার ১৭৬। ইউরোপের দেশটিতে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৮ হাজার ৩২৬ জন। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে পাঁচজনে। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৯।
অনুষ্ঠানে বিএসআরএফ সভাপতি তপন বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদসহ কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন