ঢাকা, রোববার, ০৭ জুন ২০২০, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১৪ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনা দুর্যোগের মধ্যেও বিএনপির কমিটি গঠন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ মার্চ, ২০২০, ৭:৩৭ পিএম

প্রাণঘাতি বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে স্থবির গোটা বিশ্ব। দেশে দেশে চলছে কারফিউ, লকডাউন। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। বাংলাদেশে এই প্রকোপ কমাতে চলছে সাধারণ ছুটি। ঘর থেবে জরুরি প্রয়োজন থাকা বের না হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। সরকারি দল, বিরোধীদলসহ সকল রাজনৈতিক দলের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। নেই কোন সভা-সমাবেশ, সাংগঠনিক কার্যক্রম। রাজপথের প্রধান বিরোধীদল বিএনপিও তাদের কর্মসূচি ও কমিটি গঠন প্রক্রিয়া ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রেখেছে। গত ২২ মার্চ স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দেশব্যাপী বিএনপির সকল পর্যায়ের চলমান কমিটি গঠন ও পুনর্গঠন কার্যক্রম এই সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। নির্দেশনা উপেক্ষা করে কেউ কমিটি গঠন করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবে দলটি। এমনকি কমিটি ঘোষণা হলেও সেটা বৈধ হবে না। কিন্তু দলীয় নির্দেশনা না মেনে দুর্যোগকালীন সময়েও চলছে কমিটি করার কাজ।

গত ২৭ মার্চ মাদারীপুর সদর উপজেলা বিএনপির ২৯ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেছে। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো: জাফর আলী মিয়া নিজেদের লোকজনকে পদায়ন করার লক্ষ্যে তড়িঘড়ি করে এই কমিটি অনুমোদন দিয়েছেন। এক্ষেত্রে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মো: জাহান্দার আলী জাহানের অনুমোদন নেননি। ফলে এ নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তাদের মতে- এমনিতেই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস নিয়ে গোটা বিশ^ এখন স্তব্ধ। বাংলাদেশের প্রথম ‘লকডাউন’ হওয়া উপজেলা হচ্ছে মাদারীপুরের শিবচর। সারাদেশে চলছে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি। দুনিয়া থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বাংলাদেশ। ঘর হতে বের হচ্ছে না মানুষ। দলীয় নেতাকর্মীরাও কারো সাথে কোনো ধরনের যোগাযোগ রক্ষা করতে পারছেনা। সেখানে এই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যেও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মো: জাফর আলী মিয়া মাদারীপুরের সদর উপজেলা বিএনপির কমিটি ঘোষণা করে মূলত: প্রশ্নের জন্ম দিয়েছেন। তিনি কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলার কয়েকজন নেতা বলেন, মানবিক কারণে এই মুহুর্তে মানুষের নিরাপত্তাই প্রধান বিষয়। এই বিবেচনা গোটা বিশ^ অস্থির। যেখানে বিএনপি কেন্দ্রেীয়ভাবে সারাদেশে কমিটি পুনর্গঠন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেখানে মাদারীপুর সদর উপজেলা বিএনপি কমিটি দিয়ে চরম ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। তারা অবিলম্বে এই কমিটি বাতিলের দাবি জানান। অবশ্য কৌশলে কমিটি ২০ মার্চ অনুমোদন করে তা প্রকাশ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানতে চাইলে বিএনপির ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেন, আমরা বিষয়টি অবগত আছি। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সারাদেশে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সকল প্রকার কমিটি পুনর্গঠন কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে বিএনপি। কেননা এখন কোনো নেতাকর্মী তো দূরে থাক সাধারণ মানুষ ঘরে বন্দি। কারো সাথে কারো সাক্ষাত হচ্ছে না। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সবার আগে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলাকে লকডাউন ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এরপরও মাদারীপুর সদর উপজেলা কমিটি গঠন করাটা অন্যায়। এটা ঠিক হয়নি। কেননা স্থানীয় অনেকেই আমাকে এ নিয়ে ফোন করে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। বিষয়টি ইতিমধ্যে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবকেও জানানো হয়েছে। আমরা সংশ্লিষ্টদেরকে কমিটিকে স্থগিত করতে বলেছি। পরবর্তীতে বসে সবাই মিলে কমিটি পুনর্গঠন করা হবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বরর চন্দ্র রায় বলেন, মহামারী করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্ব এখন নিরুপায়। বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের কারণে মানুষ এখন ঘর থেকে বের হচ্ছে না। কে কখন আক্রান্ত হয় বলা যায় না। বাংলাদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। বড় বড় শপিং মল শাটডাউন। রাস্তা-ঘাট ফাঁকা। শ্রমজীবী মানুষও বের হচ্ছেনা। অনেকেই ঢাকা ছেড়ে নিজ নিজ এলাকায় চলে গেছেন। এমন বিপর্যস্ত অবস্থায় আমরা সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করলে তা হবে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। সুতরাং আমরা দলীয় ফোরামে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনায় নিয়ে সংগঠন গোছানোর কার্যক্রম স্থগিত করেছি।

বিএনপি সূত্রে জানা যায়, সঙ্কটকালীন এই মুহূর্তে দলের নেতাকর্মীদের অসহায়, গরীব ও দুস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে দলীয় প্রধানরা। নির্দেশনা মেনে কোথাও কোথাও দলীয় নেতারা অসহায়দের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন