ঢাকা, শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১২ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

সম্পাদকীয়

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ৩১ মার্চ, ২০২০, ১২:০২ এএম

ক্রান্তিকালে শিক্ষার্থীদের জন্য ঘর হোক স্কুল

বর্তমানে কঠিন এক ক্রান্তিকাল অতিবাহিত করছে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব। করোনা নামক একটি ভাইরাস বিশ্বকে কাবু করে ফেলেছে। মানবজাতির জন্য ভয়াবহ এই ভাইরাসে সারাবিশ্বে হাজার হাজার মানুষকে অকালে প্রাণ দিতে হচ্ছে। চীন, ইতালী, স্পেন, ইরান, যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও বাংলাদেশসহ পৃথিবীর প্রায় দু’শটি দেশে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। দিন দিন প্রাণঘাতী হয়ে উঠেছে এই ভাইরাস। বাংলাদেশেও এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে অর্ধশত। মৃত্যুবরণ করেছে বেশ কয়েকজন। ফলে দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে স্কুল-কলেজসহ সব কিছুই বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। লকডাউন ও জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। ভাইরাসমুক্ত থাকার জন্য ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি নিজেকে জীবাণুমুক্ত রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এই সময়টাতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় প্রচুর ক্ষতি হচ্ছে। ঘরে লেখাপড়া চালানোর ধারাবাহিকতা থাকে না বলেই ঘরের লেখাপড়ার গুরুত্ব একেবারেই কম। কিন্তু শিক্ষার্থীদের এক একটা মিনিট অনেক মূল্যবান। তাদের কাছে সময়ের মূল্য অনেক। স্কুল-কলেজ বন্ধ হলেও নিজ ঘরকে স্কুল মনে করে লেখাপড়া চালিয়ে যেতে হবে। প্রযুক্তির এই যুগে শিক্ষার্থীরা একটু সুযোগ পেলেই ইন্টারনেট আর মোবাইলের আসক্ত হয়ে পড়ে। ফলে লেখাপড়া থেকে অনেক দূরে চলে যায়। তাই অভিভাবকদের সর্বদাই লেখাপড়ার তাগিদ দিতে হবে। আদর আর ভালোবাসা দিয়ে পড়ালেখামুখী করতে হবে। মনে রাখতে হবে, আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। দেশ গড়ার কারিগড়। দেশ পরিচালনার হাতিয়ার। তাদের ক্ষতি মানে আগামী প্রজন্মের ক্ষতি। আগামীর বিশ্ব যাদের মেধায় পরিচালিত হবে তাদের ক্ষতি হলে আগামীর বিশ্ব হবে মেধাশূন্য। মেধাশূন্য মানব দিয়ে বিশ্ব পরিচালিত হলে বিশ্ব অতল গহব্বরে তলিয়ে যাবে। তবে মনে রাখতে হবে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই। শুধু করোনাভাইরাসের জন্যই যে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে তা কিন্তু নয়। মানবজাতিকে সুস্থ সুন্দরভাবে বেঁচে থাকতে হলে সর্বদাই নিজেকে জীবাণুমুক্ত থাকতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা জীবনের মূল হাতিয়ার। তাই আসুন করোনামুক্ত দেশ গড়তে সরকারি নির্দেশনা মেনে ঘর থেকে বের না হই। ঘরগুলোকে শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুল ঘর বানিয়ে ফেলি। তাহলে দেশ যেমন করোনাভাইরাস মুক্ত হবে, তেমনি শিক্ষার্থীরা শিক্ষাতেও এগিয়ে যাবে।
মো. আজিনুর রহমান লিমন
ডিমলা, নীলফামারী।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন