ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বিএনপি নেতা হযরত আলীর মুক্তি দাবি পরিবারের

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ এপ্রিল, ২০২০, ৫:১১ পিএম

শেরপুর জেলা বিএনপিসাধারণ সম্পাদক মো: হযরত আলীর (৫৬) দ্রুত সময়ের মধ্যে মুক্তি চায় তার পরিবার। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ২৭ আগস্ট হযরত আলীকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর বিভিন্ন কারাগারে রাখা হয়। সর্বশেষ কেরাণীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে স্থানান্তর করে বর্তমানে গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি সেলে বন্দি আছেন তিনি। সরকার প্রধানের কাছে তার পরিবারের দাবি, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে জেলখানায় তার জীবনশঙ্কার কথা চিন্তা করে মানবিক কারণে অবিলম্বে হযরত আলীকে মুক্তি দেয়া হোক।

হযরত আলীর সহধর্মিনী নিলুফা খানম জানান, তার স্বামীকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে আজ ১৯ মাসের বেশি সময় ধরে কারাগারে বন্দি রাখা হয়েছে। তার কোনো অপরাধ নেই মূলত তিনি রাজনীতি করেন এবং ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক। এসবই তার জন্য কাল হয়েছে। তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসাজনিত কারণে বিনা বিচারে আটক আছেন। এখন তিনি শারীরিকভাবে খুবই অসুস্থ। শরীরের ওজন কমে গেছে। যে কেউ দেখলে তাকে সহজে চিনতে পারবে না। এমনিতেই তিনি দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, চর্মরোগে ভুগছেন। বর্তমানে তার রক্তে গøুকোজ ওঠা-নামা করছে। তার জীবন নিয়ে শঙ্কা তৈরি হচ্ছে। তাছাড়া তিনি যে মামলায় বর্তমানে কারাবন্দি আছেন সেই মামলার ৭ জন আসামির মধ্যে তিনি ছাড়া বাকি ছয় জন আসামি জামিনে কারাগারের বাইরে আছেন। অথচ কোর্টে হযরত আলীর মুক্তির জন্য বারবার জামিনের আবেদন করা হলেও তাকে জামিন দেয়া হয়নি। যেহেতু জামিনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না তাই সরকার প্রধানের কাছে আকুল আবেদন যেন তাকে দ্রæত মুক্তি দেয়া হয়।

নিলুফা খানম সরকার প্রধানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, বর্তমানে বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস উচ্চ ঝুঁকি সম্পন্ন রোগীদের মৃত্যুর কারণ। কাজেই মুক্তির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি আর্কষণ করছি। বর্তমান করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে তাকে (হযরত আলী) যে কোনো শর্ত সাপেক্ষে অবিলম্বে জামিন দিয়ে মুক্ত করা হোক।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন