ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

ঘুষের অভিযোগ আমলেই নেয়নি কাতার

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ এপ্রিল, ২০২০, ৭:৩১ পিএম

২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক হতে ঘুষ দিয়েছিল কাতার- যুক্তরাষ্ট্রের জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের আনা এমন অভিযোগ আমলেই নেয়নি কাতার। একই অভিযোগ ২০১৮ বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়ার বিরুদ্ধে থাকলেও তারা পাত্তাই দিচ্ছে না দুর্নীতির অভিযোগকে। ২০১০ সালে ভোটাভুটির মাধ্যমে ২০১৮ বিশ্বকাপের স্বাগতিক স্বত্ব পায় রাশিয়া এবং ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক হিসেবে বেছে নেয়া হয় কাতারকে। তবে এর কিছুদিন পর থেকেই ওই ভোটাভুটি নিয়ে সন্দেহ ও দুর্নীতির ডানামেলা শুরু হয়। যা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ পায় গত সোমবার। এদিন প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনে যুক্তরাষ্ট্রের জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট। তারা ২০১৮ ও ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক নির্বাচন নিয়ে দুর্নীতি অভিযোগের তীর ছোড়ে রাশিয়া ও কাতারকে লক্ষ্য করে। তাদের অভিযোগ, রাশিয়া ও কাতারের প্রতিনিধিরা তাদের পক্ষে ভোট আদায়ের জন্য ফিফা নির্বাহী কমিটির কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়েছিলেন। তবে কাতার বিশ্বকাপের আয়োজক কমিটি এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। তারা বলেছে, ‘বছরের পর বছর ধরে ভুয়া দাবি তোলা হলেও কাতার অনৈতিকভাবে ২০২২ বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ব পেয়েছে বা ফিফার কঠোর বিডিংয়ের নিয়ম ভাঙার ফন্দি করেছে, এমন কোনো প্রমাণ কখনো হয়নি।’

আর মনে রাখতে বলেছে ২০১৮ সালের সফল আয়োজনটাকে। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ নিয়ে ভাবছেই না তারা। তার কথায়,‘সম্পূর্ণ আইনগতভাবেই বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ব পেয়েছিল রাশিয়া। এখানে কোনো ঘুষ দেওয়া-নেওয়ার সুযোগ নেই। আমি এটা প্রত্যাখ্যান করছি। রাশিয়া ইতিহাসের সেরা বিশ্বকাপ আয়োজন করেছে, আমরা এর জন্য গর্বিত।’

২০১৮ ও ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক নির্বাচনে সব নিয়ম মানা হয়েছে বলে জানায় কাতারের সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লেগাসি (এসসি)। তাদের বক্তব্য, ‘এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং এসব কঠোরভাবে মোকাবেলা করা হবে।’

এ ব্যাপারে ফিফা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সব ‘অপরাধমূলক অন্যায়ের অভিযোগ’ তদন্তের পক্ষে তারা। ফিফা বলে,‘এই অভিযোগপত্রে যে ফুটবল কর্মকর্তাদের কথা বলা হয়েছে, ফিফা এথিকস কমিটি আগেই তাদের আজীবন নিষেধাজ্ঞাসহ বিভিন্ন মেয়াদে নিষিদ্ধ করেছে।’

এর আগে ২০১৮ ও ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক নির্বাচনের দূর্নীতি নিয়ে বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার ও প্রকাশ হলে ফিফা দৃঢ়ভাবে জানিয়েছিল, এ দুই বিশ্বকাপের আয়োজক নির্বাচনে কোনোরকম দুর্নীতি হয়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এই অভিযোগ কাতার বিশ্বকাপকে ঘিরে প্রশ্নগুলিকে আরো জোরদার করছে। ২০২২ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা আগামী বিশ্বকাপের খেলা।

২০১৮ বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়ার দৌড়ে রাশিয়ার সঙ্গে ছিল ইংল্যান্ড, বেলজিয়াম-নেদারল্যান্ডস ও পর্তুগাল-স্পেন। কাতার ছাড়াও ২০২২ বিশ্বকাপ আয়োজন করতে চেয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও ইন্দোনেশিয়া।

ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস এর অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, ২০১৮ বিশ্বকাপের স্বত্ব নির্বাচনে রাশিয়ার পক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য ওই সময়ের ফিফা সহ-সভাপতি জ্যাক ওয়ার্নারকে বিভিন্ন শেল কোম্পানির মাধ্যমে ৫০ লাখ ডলার ঘুষ দেওয়া হয়েছিল।

অন্যদিকে ফিফা-২০১০ নির্বাহী কমিটির দক্ষিণ আমেরিকার তিন সদস্যের বিরুদ্ধেও ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে। ব্রাজিলের রিকার্দো তেইসেইরা, প্যারাগুয়ের নিকোলাস লেওস এই ষড়যন্ত্রে সাহায্যকারী (নাম অজানা) ২০২২ বিশ্বকাপের স্বাগতিক নির্বাচনে কাতারকে ভোট দেওয়ার বিনিময়ে নাকি ঘুষ নিয়েছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন