ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ১৩ সফর ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বেনাপোলে খালাস হচ্ছে না পণ্য

বাণিজ্যিক ব্যাংক বন্ধ

বেনাপোল অফিস : | প্রকাশের সময় : ১৩ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৫০ পিএম

সরকারি নির্দেশ অমান্য
সরকারী নির্দেশ অমান্য করে দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে ব্যক্তি মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ীরা। টাকার অভাবে বন্দর থেকে পণ্য খালাস নিতে না পারায় বন্দরে আটকা পড়েছে কোটি কোটি টাকার নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী। কাস্টমস, বন্দর খোলা থাকলেও ব্যাংক বন্ধ থাকায় আমদানিকারকরা টাকার অভাবে বন্দর থেকে পণ্য খালাস করতে পারছেন না। ফলে গোটা ব্যবসায়ী মহলে বিরাজ করছে চাপা ক্ষোভ ও উওেজনা।
বেনাপোল বন্দর এলাকায় মোট ১৮ টি ব্যাংক রয়েছে, অধিকাংশ ব্যাংকগুলো বন্ধ রয়েছে। সরকার যেখানে বেনাপোল বন্দর সচল রাখতে সাত দিনে ২৪ঘণ্টা খোলা রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন সেখানে ব্যাংক বন্ধ থাকায় হতবাক করেছে ব্যবসায়ীদের।
শুধুমাত্র খোলা রয়েছে সোনালী, জনতা , অগ্রনী, ইসলামী ব্যাংক । করোনার মধ্যে সরকারি নির্দেশে দেশের সব বন্দর এলাকায় প্রতিদিন ব্যাংক ৩ ঘণ্টা খোলা রয়েছে । ব্যতিক্রম বেনাপেল বন্দর ।
জানা গেছে, প্রতিদিন শুধুমাত্র বেনাপোল সোনালী ব্যাংকেই ৩০ থেকে ৪০ কোটি টাকার লেনদেন হয়ে থাকে। সরকার প্রতিদিন আমদানি রফতানি খাত থেকে ২৫ কোটি টাকার রাজস্ব আয় করে বেনাপোল থেকে। করোনার মধ্যেও বেনাপোল বন্দর থেকে প্রতিনিয়ত খালাস হচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য। শুধু মাত্র ব্যাংক বন্ধ থাকায় আমদানিকারকরা বেনাপোলে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে টাকা পাঠাতে পারছেন না। ফলে সম্ভব হচ্ছে না বন্দর থেকে পণ্য খালাস নেওয়া।
বেনাপোল সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজার এ আর এম রকিবুল হাসান জানান, করোনার মধ্যেও আমরা সপ্তাহে ৫ দিন ব্যাংক খোলা রেখে গ্রাহকদের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। তবে অন্যান্য ব্যাংক গুলো কেন বন্ধ রাখা হয়েছে সেটা আমার জানা নেই। বন্দর এলাকার ব্যাংক গুলো খোলা রাখা উচিত দেশের স্বার্থে।
বেনাপোল সিএন্ড এফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি আলহাজ্ব মফিজুর রহমান সজন জানান, করোনার কারনে বেনাপোলে অধিকাংশ ব্যাংক বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীরা বন্দর থকে পণ্য খালাস করতে পারছি না। সরকারের কাছে সব ব্যাংক গুলো খুলে দেয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন