ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

সম্পাদকীয়

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ২২ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৫২ পিএম

 

গণমাধ্যম কর্মীরাও করোনাযোদ্ধা
মন্ট্রিল থেকে ক্যানবেরা, টোকিও থেকে লিমা বর্তমান বিশ্বে একটায় হট টপিক করোনাভাইরাস। চীনে সর্বপ্রথম আবির্ভাবের পর করোনাভাইরাস এখন তার তান্ডবলীলা চালাচ্ছে বিশ্বের প্রায় প্রতিটা দেশে। প্রতিদিনই দেশে দেশে বাড়ছে লাশের মিছিল, বাড়ছে লকডাউনের ব্যাপ্তি, বিজ্ঞানীদের অক্লান্ত গবেষণা, আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা, ভাইরাসের বিস্তার রোধে করণীয় কার্যাবলী, সরকার প্রধানদের ব্রিফিং ইত্যাদি বিষয়ের খবরাখবর পাওয়ার মূল উৎস হিসেবে কাজ করছে গণমাধ্যম। করোনাভাইরাস মোকাবেলার অন্যতম উপায় জনসাধারণের ভিতর সচেতনতা বৃদ্ধি করা। আর এই কাজটির পেছনের কারিগরেরাও গণমাধ্যমকর্মী। করোনার বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে তারা অস্ত্র হিসেবে হাতে মাইক্রোফোন ও ক্যামেরা তুলে কাজ করছেন করোনা চিকিৎসা ব্যাবস্থার চিত্র তুলে ধরতে এবং করোনা উপসর্গ থাকা রোগীদের খবরাখবর প্রচার করতে। এই কাজটি গণমাধ্যম যেভাবে করছে তা অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার । করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার সারিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, চিকিৎসক, নার্স, বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সেচ্ছাসেবকদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে করোনার সাথে লড়ে যাচ্ছেন গণমাধ্যম কর্মীরাও। করোনার এই সংকটকালীন সময়ে জীবনের ঝুঁকি সত্তে¡ও পেশাগত দায়িত্ব ও সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে গণমাধ্যম কর্মীরা প্রতিনিয়ত বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচার করে দেশের বিরাট জনগোষ্ঠির মাঝে করোনাবিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধির যে অবদান রেখে চলেছে তা তাদেরকেও ওই চিকিৎসক ও নার্সদের সমতুল্য করে তুলেছে। সবার এই সম্মিলিত চেষ্টায় করোনার ভয়াল থাবা থেকে পৃথিবী মুক্তি লাভ করবে। পৃথিবী ফিরবে তার আগের নিয়মে। মানুষ পাবে মুক্তি। তাই, এই বিবেচনায় গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতিও সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের দৃষ্টি থাকা প্রয়োজন।
রাসেল খান
শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন