ঢাকা, সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০১ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

ধান কাটতে শ্রমিক সঙ্কট

মুন্সীগঞ্জ থেকে মো. মঞ্জুর মোর্শেদ | প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৫২ পিএম


মুন্সীগঞ্জের ২৪ হাজার হেক্টর জমিতে পাকা ধান

মুন্সীগঞ্জে প্রায় ২৪ হাজার হেক্টর জমির পাকা বোর ধান। শ্রমিক সঙ্কটে ক্ষতিগ্রস্ত হবার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে জমির পাকা ধান কাটতে না পারলে বৈশাখী ছোবলে জমিতেই নষ্ট হবে ধান। ক্ষতির পরিমান দাড়াবে প্রায় কয়েক কোটি টাকা। আড়িয়ল বিলেই চাষ প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমি। এসব জমির ধান কাটতে প্রায় ৩ হাজার শ্রমিক কাজ করে।
কৃষি সম্প্রসারণ সূত্রে জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় প্রায় ২৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরোসহ বিভিন্ন ধান চাষ করা হয়। এর মধ্যে সদরে ৯ শ’ ৯৫ হেক্টর, টংগিবাড়িতে ২ হাজার ৫শ’ হেক্টর, গজারিয়ায় ২ হাজার ৬১০ হেক্টর, সিরাজদিখানে ৫১০ হেক্টর, শ্রীনগরে ৯ হাজার ৯১০ হেক্টর, লৌহজেং ২ হাজার ৯৫৫ হেক্টর জমিতে ধান চাষ হয়েছে। এসব জমিতে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপন্ন হয়। শ্রীনগরে শুধু আড়িয়ল বিলেই বোরো ধান চাষ হয় প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে। এখানকার জমির পাকা ধান কাটার জন্য মৌসুমের শুরুতে ফরিদপুর, জামালপুর, শেরপুর, কুড়িগ্রাম, রংপুর, এলাকা থেকে আসা প্রায় ৩ হাজার শ্রমিক কাজ করে। করোনা পরিস্থিতির কারণে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় এখানে ধান কাটার শ্রমিক আসতে পারছে না। নিচু এলাকা বলে মেশিনেও ধান কাটা ও মারাই করা সম্ভব হয় না।
এ মাসে ঝড় বৃষ্টি তুফান চলছে। জমিতে পানি জমে যাবে ফলে পাকা ধান আর কেটে ঘরে আনা সম্ভব হবে না।
কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তা জানান, আগামী ৭ দিনের মধ্যে ধান কাটার পূর্ন মৌসুম শুরু হবে। এ সময়ের মধ্যে ধান কাটতে না পারলে পাকা ধানের ব্যাপক ক্ষতি হবে। সর্বস্বান্ত হবে কৃষক, দেখা দিবে সামাজিক অস্থিরতা। কৃষকের দাবি এসব শ্রমিক আসার বিষয়ে আইনের সিথিলতা করা জরুরি প্রয়োজন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
mazaman ২৪ এপ্রিল, ২০২০, ৭:৪৩ এএম says : 0
দেশে কি পুলিশ কম আছে।
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন