ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনায়ও খুনোখুনি

চট্টগ্রামে সাত দিনে ৯ হত্যাকান্ড

রফিকুল ইসলাম সেলিম | প্রকাশের সময় : ২৮ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০২ এএম

চট্টগ্রামে করোনায়ও থেমে নেই খুনোখুনি। গেল এক সপ্তাহে হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন শিশুসহ নয় জন। দুর্যোগে দুঃসময়ে মানবিকতার বদলে প্রতিহিংসা, প্রতিশোধের শিকার হচ্ছেন নারী, শিশুসহ অনেকে। তুচ্ছ ঘটনায়ও প্রাণ নেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, টানা শাটডাউনের মধ্যে কলহ-বিরোধ বাড়ছে। তাতে খুনের ঘটনা ঘটছে। সর্বশেষ খুনের শিকার হন রাউজানের আওয়ামী লীগ নেতা বিতান বড়ুয়া ওরফে বিধান বড়ুয়া (৪৫)। রোববার তাকে নিজ বাড়ির সামনে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হয়। এই ঘটনায় রাউজানের গহিরায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বিধান বড়ুয়া এক নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ছিলেন।

থানার ওসি মো . কেফায়াত উল্লাহ বলেন, খুনিদের ধরতে অভিযান চলছে।
ওই ঘটনার আগে ফটিকছড়ির পাইন্দং ইউনিয়নে চার বছরের এক ফুটফুটে শিশুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শিশুটির চাচী রেশমা বেগমকে গ্রেফতারের পর ঘটনার রহস্য উদঘাটন হয়। থানার ওসি মো. বাবুল আক্তার বলেন, রেশমা প্রতিহিংসার বশে শিশুটিকে তুলে নিয়ে গলায় এবং পেটে ছুরি চালিয়ে হত্যা করে।
পরে লাশ কলাপাতায় মুুড়িয়ে রেখে দেন বাড়ির পেছনে লাকড়ি রাখার ঘরে। রেশমা খুনের দায় স্বীকার করেছেন বলেও জানান ওসি। শিশু আবদুল্লাহ আল দিহান প্রবাসী দিদারুল আলমের পুত্র।

সীতাকুন্ডে কিশোর গ্যাংয়ের বিরোধে দুই যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে একদল কিশোর। শুক্রবার চমেক হাসপাতালে মারা যান শাহীন (২২) ও জাহিদ (২৪)। পৌর এলাকার ভূইয়া পাড়ায় আড্ডায় একজনের মুখে সিগারেটের ধুয়া ছাড়াকে কেন্দ্র করে ঘটে এই জোড়া খুনের ঘটনা।

পরদিন শনিবার নগরীর কর্ণফুলী থানা এলাকায় সালিশে কথা কাটাকাটির জেরে আরিফ দোভাষ নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। তার আগে একই এলাকায় মাওলান শায়ের মোহাম্মদ নামে একজনকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

ও্ই ঘটনায় র‌্যাবের হাতে ধরা পড়ে ছয় কিশোর-যুবক। তুচ্ছ ঘটনায় প্রতিশোধ নিতে ওই আলেমকে হত্যা করে এসব উঠতি সন্ত্রাসীরা। ২৪ এপ্রিল আনোয়ারার চাতরি থেকে নিখোঁজ এক বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। একই দিন পারিবারিক কলহে নগরীর বাকলিয়া খুন হন অন্তঃসত্ত্বা জোবাইদা বেগম। তার ১২ ঘণ্টা আগে একই এলাকা খুন হন আরেক গৃহবধূ। খুনের অভিযোগে দুইজনের স্বামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
jack ali ২৮ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৩৯ এএম says : 0
All these fighting and killing is happening because our country is run by .......... We need to rule our country by the Law of Allah than people will love each other rather feeling enmity among themselves. If we look back when muslim used to rule half of the world by the law of Allah, there was peace. People used to love each other.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন