ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

নিষিদ্ধ হতে পারে পুরো রাশিয়া!

প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : ডোপ কেলেঙ্কারিতে অলিম্পিকে নিষিদ্ধ ছিলেন রাশিয়ার ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড অ্যাথলেটরা। এ জন্য আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আদালতে মামলাও করেছেন তারা। আজ এর শুনানি হবে আর চূড়ান্ত রায় ২১ জুলাই। সেই মামলার শুনানির আগে বড় ধাক্কা খেল রাশিয়া। শুধু ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড নয়, পুরো রাশিয়ান দলই নিষিদ্ধ হতে পারে রিও অলিম্পিকে। অলিম্পিক কমিটির কাছে তাদের নিষিদ্ধ করার আবেদন জানিয়েছে খোদ ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি (ওয়াডা)।
খবর ছিল, সোচিতে শীতকালীন অলিম্পিকে ‘সরকারিভাবে’ ডোপ করা হয়েছিল কি না, তা খতিয়ে দেখে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করার কথা সামনের সপ্তাহে। সেই প্রতিবেদন রাশিয়ার বিরুদ্ধে গেলে তাদের পুরো রিও অলিম্পিক থেকে নিষেধাজ্ঞার আবেদন জানাবে কানাডা ও আমেরিকা। গতকাল ওয়াডার কানাডিয়ান আইনজ্ঞ রিচার্ড ম্যাকলারেনকে প্রধান করে গড়া তদন্ত কমিটি যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তাতে বদলে গেছে পুরো ছবিটা। ম্যাকলারেন জানিয়েছেন, গত চার বছর ‘রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায়’ ডোপিং কার্যক্রম চালিয়েছে রাশিয়া। ২০১১ সালের শেষ দিকে শুরু হওয়া এই ‘পরিকল্পনা’য় লন্ডন অলিম্পিকের জন্য তৈরি করা হয়েছে অ্যাথলেটদের, যেটা সোচির শীতকালীন অলিম্পিকের পর চলেছে ২০১৫ সালের আগস্ট পর্যন্ত। প্রতিবেদনে এও জানানো হয়, ডোপ পাপী অ্যাথলেটদের রক্ষা করতে ‘বিশেষ প্রক্রিয়া’ ব্যবহার করা হয়েছিল মস্কোর পরীক্ষাগারে, যাতে তাঁদের শরীরে পাওয়া যায়নি নিষিদ্ধ কোনো পদার্থ। ম্যাকলারেনের দাবি, অ্যাথলেটদের দেওয়া মূত্রের নমুনা পরীক্ষার জন্য সরবরাহ করে রাশিয়ার ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং তারাই সব কিছু ‘পরিচালনা, নিয়ন্ত্রণ ও দেখভাল করে’। ওয়াডার মুখপাত্র বেন নিকোলাস জানিয়েছেন, ‘রাশিয়ান সংস্কৃতি বদল না হওয়া পর্যন্ত রিও অলিম্পিকসহ সব ধরনের খেলায় রাশিয়ান অ্যাথলেটদের নিষিদ্ধ চায় ওয়াডা।’ এমনকি অলিম্পিকের পাশাপাশি সব ধরনের খেলা থেকেও নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব করেছে সংস্থাটি।
প্রতিবেদনে উঠে এসেছে প্রায় ৩১২ অ্যাথলেটের শরীরে নিষিদ্ধ পদার্থ থাকা সত্তে¡ও অংশ নিয়েছেন সোচিতে, যাঁদের মধ্যে রয়েছেন পদকজয়ী অনেক অ্যাথলেট। রাশিয়াকে নিষিদ্ধ করার কথা গুরুত্ব দিয়েই এখন ভাবছে আইওসি। তাদের অ্যাথলেটরা রিওতে খেলতে পারবে কি না সেই সিদ্ধান্ত বিশেষ টেলিফোন কনফারেন্সের পর জানানো হবে। সে কথাই জানালেন আইওসিপ্রধান থমাস বাখ, ‘এ রিপোর্ট বেদনাদায়ক ও নজিরবিহীন। আমরা সতর্কতার সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করব এটা। এরপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেব।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন