ঢাকা, শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ১২ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

প্রিন্সিপাল মাওলানা সাখাওয়াত হোসাইনের ইন্তেকাল

বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের গভীর শোক

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০২০, ১২:১৬ পিএম | আপডেট : ১:৩৩ পিএম, ১৯ মে, ২০২০

বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীন চট্টগ্রাম মহানগরীর সাবেক সভাপতি চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী নেছারিয়া কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন সমাজসেবী আলহাজ মাওলানা আল্লামা সাখাওয়াত হোসাইন মঙ্গলবার ভোরে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজেউন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৩ বছর। তার পুত্র আ জ ম অলিউল্লাহ চৌধুরী মাসুদ জানান, গভীর রাতে তিনি নগরীর খুলশীর বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি ডায়াবেটিসসহ নানা রোগে ভুগছিলেন।
ইন্তেকালের সময় আল্লামা সাখাওয়াত হোসাইন স্ত্রী, চার পুত্র, দুই কন্যাসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। পবিত্র মাহে রমজান এবং শবে কদরের প্রাক্কালে প্রখ্যাত এই আলেমের ইন্তেকালে চট্টগ্রামে সর্বস্তরের আলেম উলামাদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার প্রতিষ্টিত ও দীর্ঘদিনের কর্মস্থল নেছারিয়া কামিল মাদরাসার সাবেক ও বর্তমান ছাত্র, শিক্ষক অভিভাবক ও সর্বস্তরের মাদরাসা শিক্ষক তথা জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সদস্যদের মাঝেও নেমে আছে শোকের ছায়া।
তিনি মাদরাসা শিক্ষকদের একক সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের চট্টগ্রাম মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক, মহানগরীর সভাপতি, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। নগরীর নেছারিয়া কামিল মাদরাসার উদ্যোক্তাদের একজন হিসাবে তিনি ছিলেন মাদরাসার প্রথম প্রিন্সিপাল। শিক্ষকতার পাশাপাশি মাদরাসা শিক্ষকদের অধিকার আদায়ে জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালনে তিনি ছিলেন অগ্রণি। একই সাথে সমাজসেবায়ও জড়িত ছিলেন। বিভিন্ন সভা সেমিনার, মাহফিলে তিনি সুবক্তা হিসাবে শ্রোতাদের নজর কাড়তেন। একজন সজ্জন সদালাপি আলেমেদ্বীন হিসাবে তিনি ছিলেন সবার শ্রদ্বেয়।
১৯৭৮ সালে তিনি নেছারিয়া কামিল মাদ্রাসায় যোগদান করেন। ২০১১ পর্যন্ত তিনি প্রিন্সিপালের দায়িত্ব পালন করেন।

আজ বাদ জোহর নগরীর একে খান এলাকায় নেছারিয়া কামিল মাদরাসা ময়দানে তার প্রথম নামাজে জানায়া অনুষ্ঠিত হবে। এরপর চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার বরমা ইউনিয়নের কেশুয়া হাই স্কুল মাঠে বাদ আছর দ্বিতীয় জানায়া শেষে সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।
বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি ও মহাসচিবের গভীর শোক

বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি ও দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক আলহাজ এ এম এম বাহাউদ্দীন এবং মহাসচিব প্রিন্সিপাল আল্লামা শাব্বীর আহমদ মোমতাজী প্রিন্সিপাল আল্লামা সাখাওয়াত হোসাইনের ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক বিবৃতিতে তারা বলেন তার ইন্তেকালে দেশ একজন প্রখ্যাত আলেমেদ্বীনকে হারালো। আল্লামা সাখাওয়াত হোসাইন দীর্ঘদিন শিক্ষকতা করেছেন। দেশে ইসলামি শিক্ষা বিস্তার ও মাদরাসা শিক্ষকদের অধিকার আদায়ে তার অবদান উল্লেখযোগ্য। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ শিক্ষক ও সংগঠক। তারা আল্লামা সাখাওয়াত হোসাইনের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। আল্লাহ যেন তাকে জান্নাতের সর্বোচ্চ মর্যাদা দান করেন সে মোনাজাত করেন। একই সাথে তারা তার শোকাহত পরিবার পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
নুরুল আফছারফারুকী ১৯ মে, ২০২০, ৮:৩৬ পিএম says : 0
হযরতের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। ((বাংলাদেশ জামিয়াতুল মোদারর্রেছীন ফেনি জেলা শাখা )
Total Reply(0)
মাওলানা মোহাম্মদ নেছার উদ্দীন ২২ মে, ২০২০, ৫:০৪ এএম says : 0
হুজু‌রের বি‌দেহী আত্নার মাগ‌ফিরাত কামনা কর‌ছি,আল্লাহ হযরত‌কে জান্না‌তে আলা‌য়ে মাকাম দান করুন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন