ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

দক্ষিণাঞ্চলে করেনা ভাইরস পরিস্থিতি উদ্বেগজনক চব্বিশ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ২৪জন

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৩ মে, ২০২০, ১:১২ পিএম

দক্ষিণাঞ্চলে করেনা ভাইরসের উদ্বেগজনক বিস্তার অব্যাহত রয়েছে। শণিবার দুপুরের পূর্ববর্তি ২৪ ঘন্টায় বরিশাল, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, ভোলা ও ঝালকাঠীতে আরো ২৪জন নতুন কোভিড-১৯ রোগী সনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়াল ৩৩২-এ । গত ২৪ ঘন্টায় শুধু বরিশালেই নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ১২। যার মধ্যে পুলিশ সদস্য রয়েছে ৯জন। এছাড়া পিরোজপরে নতুন করে ৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। এরমধ্যে ইন্দুরকানী উপজেলাতেই ৭জন নতুন কোভিড-১৯ রোগী পাওয়া গেছে। এছাড়া পটুয়াখালী ও ভোলাতে আরো ১জন করে কোভিড-১৯ রোগী সনাক্ত হয়েছে।
গত ১০মে লক ডাউন শিথিল করার পর থেকে বরিশাল সহ সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলে প্রতিদিন করেনা ভাইরাসের রোগী উদ্বেগজনক হারে বেড়ে চলেছে। গত ১০মে থেকে ২৩মে দুপুর পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলে নতুন আক্রান্ত হয়েছে ১৮৩জন। অথচ গত মার্চ থেকে ৯মে পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ছিল ১৪৯। শণিবার দুপুর পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলে আক্রান্তদের মধ্যে বরিশালে ১৩৭, পিরোজপুরে ৫৩, বরগুনায় ৪৯, পটুয়াখালীতে ৪১, ঝালকাঠীতে ৩৪ ও ভোলাতে ১৮জন কোভড-১৯ রোগী রয়েছে বলে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।
শণিবার পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন সরকারী হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে মোট রোগী ভর্তি হয়েছেন ৪৪০জন। এরমধ্যে ২৫০জন ছাড়পত্র লাভ করেছেন। এছাড়া এসময় পর্যন্ত হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারিন্টিনে ছিলেন ১২ হাজার ৯২০জন। যার মধ্যে ১০ হাজার ৬২০ জন সুস্থবস্থায় কোয়ারিন্টিন শেষ করেছেন বলে জানা গেছে। শণিবার দুপুর পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন সরকারী হাসপাতাল সমুহে মোট ১১৯জন কোভিড-১৯ রোগী চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছেন। যার মধ্যে বরিশাল শের এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তিকৃত ৪৪ জনের মধ্যে ২জনের মৃত্যু ঘটেছে। সুস্থ্য হয়েছেন ২৩জন। এছাড়া এ হাসপাতালের করেনা এবং আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত মোট ১৭৪ জনের মধ্যে ১৬৫ জনের রক্তের নমুনা পরিক্ষায় ৪৩ জনের করেনা পজেটিভ সনাক্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। দক্ষিণাঞ্চলে মোট করেনা আক্রান্ত ৩৩২ জনের মধ্যে সুস্থ্য হয়েছেন ১১৯জন।
তবে অবিলম্বে কঠোরভাবে লকডাউন কার্যকর করতে না পারলে দক্ষিণাঞ্চলে করেনা ভাইরাসের বিস্তার রোধ করা দুরুহ হয়ে পড়তে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসা বিশেষজ্ঞগন। পাশাপাশি রক্ত পরিক্ষার ফলাফল দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করে আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে বা বাসায় যথাযথ চিকিৎসা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা সহ পরিপূর্ণ ফলোআপেরও তাগিদ দেয়া হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন