ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

লাদাখ সীমান্তে চীন-ভারত তীব্র উত্তেজনা : অনুপ্রবেশের অভিযোগ ভারতের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০২০, ১২:৫৯ পিএম

চীনের অতিরিক্ত সেনা সমাবেশকে ঘিরে গত কয়েকদিনে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (এলএসি) বরাবর বিভিন্ন স্থানে চীন ও ভারতের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। দু’দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষও হয়েছে। -বিবিসি, এনডিটিভি

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের সেনারা এবার ঘাঁটি তৈরি করেছে লাদাখের গালওয়ান ভ্যালির মতো সম্পূর্ণ নতুন জায়গাতে। সম্প্রতি চীনের সেনাবাহিনী এই ‘এলএসি’ বরাবর চার জায়গায় অনুপ্রবেশ করে অবস্থান নিয়েছে। এ এলাকাগুলো হচ্ছে লাদাখের প্যাংগং সো বা প্যাংগং লেক, গালওয়ান নালা ও ডেমচক আর সিকিমের নাকুলা। এক পর্যায়ে কয়েকজন ভারতীয় সেনাকে চীন বেশ কিছুক্ষণ আটকে রেখেছিল বলেও রিপোর্ট হয়েছে যদিও ভারত পরে তা অস্বীকার করেছে । ভারতের প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক অজয় শুক্লা তার ব্লগে লিখেছেন , এই প্রথম সমগ্র গালওয়ান ভ্যালিকেই চীন নিজেদের বলে দাবি করছে । গত কয়েকদিনে দু ’ দেশের সেনাদের মধ্যে কয়েকদফা মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে দু ’ পক্ষের অনেক সেনা আহত হয়েছে ।

শুক্রবার ভারতের সেনা প্রধান জেনারেল এম এম নারাভানে লাদাখে গিয়ে পরিস্থিতি সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন । লাদাখ সফরের আগে জেনারেল নারাভানে বলেছিলেন , আসলে যেহেতু এলএসি স্পষ্টভাবে চিহ্নিত নয় , তাই দুপক্ষই এই সীমান্তকে নিজেদের মতো ব্যাখ্যা করে । ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে , ভারতীয় সেনার স্বাভাবিক টহল বাধা দিয়ে চীন সীমান্তে নানা কর্মকান্ড চালাচ্ছে । ১৯ মে বেইজিং এ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের বিবৃতিতে ভারতের বিরুদ্ধে পাল্টা অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগ আনে যা দিল্লি জোরালোভাবে অস্বীকার করে ।

চীনে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত অশোক কান্থা মনে করেন , প্রতি গ্রীস্মে দুদেশের সেনাদের মধ্যে যেমন হাতাহাতি বা মারামারি হয় , তার চেয়ে এবারের সংঘাত কিন্তু সম্পূর্ণ আলাদা । অশোক কান্থা বিবিসিকে বলেন , প্রথমত চীন এবার অনেক বেশি আগ্রাসী , দ্বিতীয়ত একসঙ্গে অনেকগুলো জায়গায় হামলা চালাচ্ছে আর গালওয়ান ভ্যালিতে এলএসি - র নতুন ব্যাখ্যা এনে নতুন একটা ফ্রন্ট খুলতে চাইছে। তিনি বলেন , এর কারণ কী বলা মুশকিল , তবে হতে পারে তারা বিতর্কিত সীমানার ওপর নিজেদের দাবি প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে।
ভারত ও চীনের মধ্যে কোনও সুনির্দিষ্ট ও সুচিহ্নিত আন্তর্জাতিক সীমানা নেই , এর পরিবর্তে রয়েছে কয়েক হাজার কিলোমিটার লম্বা একটি প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বা লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল ( এলএসি ), যা লাদাখ থেকে অরুণাচল প্রদেশ পর্যন্ত বিস্তৃত । আর সেজন্যই এমন উত্তেজনার সৃষ্টি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন