ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গড়াই নদীতে গোসল করতে নেমে যুবক নিখোঁজ

কুষ্টিয়া থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০২০, ৮:৪৯ পিএম

কুষ্টিয়ার গড়াই নদীতে গোসল করতে নেমে রাফসান হক (৩১) নামে এক যুবক নিখোঁজ হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুপুরে গড়াই নদীর ঘোড়ার ঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শহরের ঘোড়াঘাট এলাকায় নদীতে নেমে গোসল করে তিনযুবক। এর মধ্যে দুজন উঠে আসতেপারলেও একজন পানিতে তলিয়ে যায়।

নিখোঁজ রাফসান হক কুষ্টিয়া পৌরসভার থানাপাড়া এলাকার মৃত রেজাউল হকের ছেলে।

এর আগে ২৩ মে দুপুরে এই পাচ বন্ধুর মধ্যে চার জন প্রথমবারের মতো গড়াই নদীতে গোসল করতে যান। সেদিন গোসলের দৃশ্য ধারণ করে রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হাসিবুর রশিদ তামিম রাফসান হক খান কে ট্যাগ করে তাদের চার জনের ছবিসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেন, ‘বাল্যবন্ধুদের সাথে জীবনে প্রথম গড়াই নদীতে গোসল…’সেদিন চার বন্ধুর মধ্যে ছিলেন তামিম, রশিদ আবির ও নিখোঁজ রাফসান। সেদিন গোসল করে সাহস পেয়ে ৪ দিন পর দ্বিতীয় বারের মতো গোসনের জন্য নদীতে নামেন ৫ বন্ধু। আগের চার জনের সাথে আজ নতুন করে যোগ দেন ব্যবসায়ী বন্ধু বিশ্বজিৎ। আজ দ্বিতীয় দিনে ঘটে গেল দুর্ঘটনা।

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, ঈশ্বরদী শাখার কর্মকর্তা রাফসান হক খান তার বন্ধু কুষ্টিয়ার রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রভাষক হাসিবুর রশিদ তামিম সহ ৫ বন্ধু আজ ( বৃহস্পতিবার) দুপুর ১.৪০ মিনিটে করতে কুষ্টিয়ার রেনউইক বাঁধ সংলগ্ন ঘোড়াঘাট এলাকায় গোসল করতে নামে। শ্রোতের টানে এসময় তামিম ও রাফসান ডুবে যায়৷ সাথে থাকা বাকি তিনজন তামিমকে তাতক্ষনিক উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও ডুবে যান ব্যাংক কর্মকর্তা রাফসান হক খান।

এ ঘটনায় বাকরুদ্ধ হয়ে যান বেঁচে ফেরা রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রভাষক এসএম হাসিবুর রশীদ তামিম।

তিনি বলেন, ‘রাফসান হকসহ আমরা ৫ বন্ধু মিলে গড়াই নদীতে গোসল করতে নামি। এ সময় রাফসান হক পানিতে ডুবে যায়। কিন্তু চেষ্টা চালিয়েও আমরা তাকে উদ্ধার করতে পারি নাই।’

তিনি আরও জানান, অন্য বন্ধুরা সাঁতার জানলেও রাফসান আর আমি সেভাবে সাঁতার জানতাম না। আমাদের বাসা কুষ্টিয়া শহরে হলেও এর আগে কখনো নদীতে নামিনি। ঈদের আগে সবাই একসাথে গোসল করার জন্য গত ২৩ মে প্রথম নদীতে নামি। তারপর আজ আবার পাঁচ বন্ধু দুপুরে গোসল করতে যাই। আমরা দুজন খুব কাছাকাছি ছিলাম এবং দুজনই ডুবতে থাকি, এমন সময় বাঁকি তিনজন ধরাধরি করে কোনো মতে আমাকে টেনে তুলতে পারলে রাফসান চোখের সামনে ডুবে গেল। এ দৃশ্য কিভাবে ভুলব? ওকে খুঁজে পাওয়া না গেলে ওকে ছেড়ে কিভাবে ৪ জন বাসায় ফিরব?

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
OBAIDUL HAQUE ২৯ মে, ২০২০, ১০:১৯ এএম says : 0
ইন্না-লিল্লাহ খুবই দুঃখজনক!
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন