ঢাকা, বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বীভৎস চিত্র : মৃত্যুর আগে বন্দি করে রাখেন স্ত্রী-সন্তান, খাবার-পানি চেয়েও পাননি সাহাব উদ্দিন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০২০, ১০:৫৭ এএম

যাদের জন্য জন্য জীবনভর কষ্ট করলেন তারা মৃত্যুর আগে ও পরে করেছেন নিষ্ঠুর আচরণ। পানি পর্যন্ত দেয়নি কেউ।
মতিগঞ্জ ইউনিয়নের ভাদাদিয়া এলাকার বাসিন্দা সাহাব উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামে একটি পেট্রলপাম্পে চাকরি করতেন। কিছুদিন আগে সাহাব উদ্দিনের শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। একই সঙ্গে জ্বর ও কাশি ছিল। স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়ে তিনি সুস্থ হয়ে যান। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে গত বুধবার রাতে চট্টগ্রাম থেকে বাড়িতে আসেন। গত শনিবার রাত থেকে তার শ্বাসকষ্ট, জ্বর ও কাশি বেড়ে যায়। এর পরদিন রোববার সকালে তিনি হাসপাতালে গিয়ে কোভিড–১৯ আক্রান্ত কি না, তা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়ে আসেন। সাহাব উদ্দিনের স্ত্রী, তিন ছেলে, তিন মেয়ে ও তিন জামাতা রয়েছেন। দুই ছেলে কাজের সূত্রে গ্রামের বাইরে থাকেন। মৃত্যুর সময় বাকিরা সবাই বাড়িতে ছিলেন। কিন্তু কেউ তার পাশে আসেননি।


ফেনীর সোনাগাজীতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে বদ্ধ ঘরে মৃত্যু হওয়া সাহাব উদ্দিনের (৫৫) মৃত্যুর পূর্বে বীভৎস চিত্র প্রকাশ পেয়েছে। মৃত্যুর আগে পরিবারের লোকজন তাকে ঘরে একা রেখে বাইরে থেকে দরজার ছিটকিনি লাগিয়ে রাখে। দেওয়া হয়নি দুপুরে খাবার। মৃত্যুর সময় পানি চেয়েও পায়নি। মৃত্যুর পরও কাছে আসেননি স্ত্রী, ছেলে–মেয়ে ও জামাতাসহ কোন স্বজন। মৃত্যুর পর পায়নি স্থানীয় মসজিদের খাটিয়া, কেউ দেয়নি কবর খোঁড়ার কোদালও।

মতিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. রবিউজ্জামান মৃত সাহাব উদ্দিনের ছোট ছেলের বরাত দিয়ে জানান, রোববার হাসপাতালে গিয়ে কোভিড–১৯ আক্রান্ত কি না, তা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়ে আসেন। দুপুরে বাড়িতে আসলে পরিবারের লোকজন তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার শুরু করেন। এসময় তাকে শয়নকক্ষে রেখে বাইরে থেকে দরজায় ছিটকিনি লাগিয়ে রাখেন পরিবারের সদস্যরা।

এর পর থেকে পরিবারের কেউ সাহাব উদ্দিনের সঙ্গে কথা বলেননি। দুপুরে তাঁকে খাবারও দেননি। বিকেলে তাঁর শ্বাসকষ্ট ও কাশি বেড়ে যায়। এ সময় তিনি চিৎকার করে খাবার চাইলেও কেউ দেননি। ছোট ছেলে এগিয়ে যেতে চাইলে তাঁকে বোনেরা বাধা দেন। এভাবে চিৎকার করতে করতে রাত ১০টার দিকে সাহাব উদ্দিনের মৃত্যু হয়। রাতে সাড়াশব্দ না পেয়ে পরিবারের লোকজন জানালা দিয়ে উঁকি দিয়ে দেখেন তিনি মারা গেছেন। এরপর সবাই যাঁর যাঁর ঘরের দরজা বন্ধ করে ভেতরে ঢুকে যান। পরে ছোট ছেলে 'বাবা মারা গেছে' বলে চিৎকার শুরু করেন।

মতিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ফেরদৌস রাসেল বলেন, 'সাহাব উদ্দিনের বাড়ি থেকে চিৎকারের শব্দ শোনার বিষয়টি একজন প্রতিবেশী চেয়ারম্যানকে জানান। পরে রাত একটার দিকে গ্রামপুলিশ নিয়ে চেয়ারম্যান সহ আমরা কয়েকজন ওই বাসায় গিয়ে উপস্থিত হই। অনেক ডাকাডাকির পর ওই বাড়ির লোকজন মূল দরজা খুলে দিয়ে যাঁর যাঁর কক্ষে চলে যান। বাড়ির একটি কক্ষে সাহাব উদ্দিনকে রেখে বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগানো ছিল। ছিটকিনি খুলে আমরা ভেতরে বীভৎস দৃশ্য দেখতে পাই। সম্ভবত সাহাব উদ্দিনের শ্বাসকষ্ট উঠেছিল এবং তিনি তা সহ্য করতে না পেরে মাটিতে গড়াগড়ি করেছিলেন। তাঁর পরনের কাপড় খোলা অবস্থায় পাশে পড়েছিল।'

ইসলামী আন্দোলনের করোনা রোগে দাফন টিমের এক সদস্য জানান, দাফন জন্য মধ্যরাতে ইসলামী আন্দোলনের করোনা রোগে দাফন টিমকে খবর দেন চেয়ারম্যান। দাফন টিমের সদস্যদের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পিপিই (পার্সোনাল প্রটেক্টিভ ইক্যুইপমেন্ট) ও থানা থেকে মরদেহ রাখার জন্য একটি ব্যাগ সংগ্রহ করে দেন। লাশ দাফন করার জন্য স্থানীয় মসজিদ থেকে খাটিয়া আনতে লোক পাঠালে মসজিদ কমিটির লোকজন খাটিয়া দিতে অস্বীকৃতি জানান ও কবর দিতে বাধা দেন। কবর খোঁড়ার কোদালও দিচ্ছেন না কেউ। মরদেহ গোসল করানোর জন্য সমাজের পর্দাও না দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সমাজপতিরা। পরে চেয়রাম্যান নিজের টাকায় কাপনের কাপড় কিনে, সমাজপতি, গ্রামের লোকদের অনেকটা বুঝিয়ে খাট ও পর্দার কাপড়, কোদাল সংগ্রহ করেন। গ্রাম পুলিশ ও ইসলামী আন্দোলনের লোকদের সাথে নিয়ে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরাস্থানে মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করেন চেয়ারম্যান। কবর খোঁড়া, জানাজা ও দাফন কাজে অংশ নেন চেয়ারম্যান সহ ৭জন ব্যক্তি। দাফন করে চলে আসার সময় ছোট ছেলেটি তার বাবার জন্য সবার কাছে দোয়া চান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২ জুন, ২০২০, ১২:০৬ পিএম says : 0
পরিবারের সবাই হয়ে গেলেন ফেরআউনের বীভৎসতায় চরিত্রে। সমাজকাঠামোয় মানবিকতা ধ্বংসযজ্ঞ দ্বারপ্রান্তে করোনা ভাইরাস বাংলাদেশের মানুষের আসল চরিত্র পরিচয় প্রকাশ হচ্ছে। আল্লাহ্ যে সন্তান যে পরিবার মৃত্যুর সময় পাশে থাকেনা ঐ রকম সন্তান কে পরিবারের সবাই কে দুনিয়ায় দেখাও ভয়ংকর বিপদ শাস্তি দিয়ে। না হয় ঐ রকম জালেম সন্তান গুলো জর্ম হওয়ার সময় ধ্বংস করে হওয়া উচিৎ। জাহান্নামি ঐ পরিবারের প্রতি ঘৃণা জানানো উচিৎ সবার।
Total Reply(0)
khorshed ২ জুন, ২০২০, ১২:১৯ পিএম says : 0
সাধের পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে।তাই আমরা আল্লাহ হুকুম পালন করি,মাপ চাই,দুনীয়ার খারাপ কাজ অন্যায় থেকে বিরত থাকি,(আমিন)
Total Reply(0)
শওকত আকবর ২ জুন, ২০২০, ১২:৪৩ পিএম says : 0
মৃত্যুর ভয় ষীশাগালা প্রাচিরের মধ্যে লুকালেও মৃত্যু সেখানে গিয়ে আলিঙ্গন করবে এ বিস্বাশ আমার আছে।কিন্তু আল্লাহর কাছে এই ফরিয়াদ।আল্লাহ তুমি এমন মৃত্যু দিওনা।
Total Reply(0)
wahialkalambookshop ২ জুন, ২০২০, ২:১২ পিএম says : 0
allah amader map karok
Total Reply(0)
Mohammed ২ জুন, ২০২০, ৩:২৯ পিএম says : 0
Once upon a time Muslim people joined war(jihad) Because they wanted to die in the path of Allah. Or embraced any situation because they wanted to die. They knew they would go to the jannat( heaven) after death. Due to very strong faith on Islam and their takkoya. Now a days we are afraid of death, due to our sins. We know we will go to the hell fire. So as a Muslim now it is time rectify ourselves.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন