ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনা উপসর্গ : ৮ জনের মৃত্যু

কোয়ারেন্টিনে ৫৭ হাজার ৫৬৯ জন।

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০২০, ৯:২৮ পিএম

করোনার উপসর্গ জ্বর, শ্বাসকষ্ট, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়েছে সারা দেশে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে চট্টগ্রামে ২, রাজধানী ঢাকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, মৌলভীবাজার, লালমনিরহাট, ফেনী ও হবিগঞ্জে একজন করে। তবে এদের কারো শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ছিল কিনা তা নিশ্চিত নয় বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৩৮৬ জনকে। ছাড় পেয়েছেন ১৩০ জন । বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ছয় হাজার ৭৫৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে দুই হাজার ৩৭৫ জনকে। এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৯৫ হাজার ১৮৮ জনকে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড় পেয়েছেন দুই হাজার ৬৩৪ জন, এখন পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন দুই লাখ ৩৭ হাজার ৬১৯ জন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৭ হাজার ৫৬৯ জন।
ঢাকা : রাজধানীর তুরাগের দলিপাড়া এলাকায় করোনার উপসর্গ নিয়ে বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মজিবর রহমান খান (৫০) মৃত্যুবরণ করেছেন। গতকাল দুপুর আড়াইটার দিকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন দুই আওয়ামী লীগ নেতা। গতকাল বৃহস্পতিবার মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য ও বন্দর থানার সভাপতি নুরুল আলম আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে মারা যান। চমেক হাসপাতালে যান মোহরা ওয়ার্ডের আহ্বায়ক মো. রফিকুল আলম।
দুইজনই করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তবে তাদের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে কী না তা জানা যায়নি। দুই নেতার ইন্তেকালে মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন শোক প্রকাশ করেছেন।
বরিশাল ব্যুরো জানায়, দক্ষিণাঞ্চলে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা অতীতের রেকর্ড অতিক্রম করার পাশাপাশি বরিশাল মহানগরীতে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। নগরীর কাজীপাড়া এলাকার নিজ বাসায় ৭৫ বছর বয়সি একজন পুরষের মৃত্যু ঘটেছে করোনা সংক্রমনে। এনিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে ১৫ জন কোভিড-১৯ রোগীর মৃত্যু হল। গত ৪৮ ঘণ্টায় দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় নতুন করে করোনাভাইরাস সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ছিল দেড়শ। এরমধ্যে গত বুধবার ৮৬ ও গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত আরো ৫৭জন আক্রান্ত হয়েছে। বিগত দুদিনের এ রেকর্ডই এযাবত কালের সর্বোচ্চ। এসময়ে শুধু বরিশাল জেলায়ই আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১০৪। এনিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৮০৬-এ উন্নীত হল। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন আরো ১১ জন। এ নিয়ে আক্রান্ত ৮০৬ জনের মধ্যে ১৫৯ জন সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছে বলে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে।
নগরীতে নতুন আক্রান্তদের মধ্যে পুলিশ ছাড়াও ডাক্তার, নার্সসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষও রয়েছে। খোদ শের এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই একাধিক চিকিৎসক ও নার্স ছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগীয় কর্মী রয়েছে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তরেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালগুলোর আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত ৭৬৮ জনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩৪১ জন। গত ৪৮ ঘণ্টায় বরিশাল শের এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ড থেকে ১১ জনকে এবং আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে ১২ জনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। তবে এসময়ে হাসপাতালটির করোনা ওয়ার্ডে ও আইসোলেশন ওয়ার্ডে নতুন দুইজন করে ভর্তি হয়েছে। ফলে হাসপাতালটির করোনা ওয়ার্ডে গতকাল সকাল পর্যন্ত ৩১ জন ও আইসোলেশনে ১৫ জন চিকিৎসাধীন ছিল। এ পর্যন্ত হাসপাতালটির করোনা ওয়ার্ডে সংক্রমিত ৬ জন ছাড়াও আইসোলেশন ওয়ার্ডে আরো ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। যাদের মধ্যে ৫ জনের রক্ত পরিক্ষার ফলাফল পাওয়া যায়নি।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতা জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৩৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়েছে। এনিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২০৬ জনে দাঁড়ালো। জেলায় এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৬৭৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪ হাজার ৮১ জনের রিপোর্ট পাওয়া গেছে। ৭২ জন ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। আক্রান্তদের আইসোলেশনে রাখার প্রক্রিয়া চলছে। আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন ৬৯ জন। এদিকে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৬২ বছরের এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যায়। সে জেলা শহরের মধ্যপাড়ার বাসিন্দা।
কুষ্টিয়া থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, কুষ্টিয়ায় নতুন করে আরও ১৬ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আর এ সংখ্যায় জেলার একদিনের সব্বোর্চ আক্রান্তের রেকর্ড। এ নিয়ে জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা (বহিরাগত বাদে) দাঁড়ালো ৯০ জনে। মোট সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৯ জন। গত বুধবার সন্ধ্যায় কুষ্টিয়ার জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার এস এম আনোয়ারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
স্টাফ রিপোর্টার, চাঁদপুর থেকে জানান, চাঁদপুরে গত দুই মাসে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৪৩ জন নারী-পুরুষের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর পর তাদের নমুনা পরীক্ষা করে ১৮ জনের রিপোর্ট পজিটিভ পাওয়া গেছে। বাকী ১৯ জনের নেগেটিভ এবং ৬ জনের রিপোর্ট অপেক্ষমান।
এদিকে, চাঁদপুর জেলায় আরো ১৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে চাঁদপুর সদরে ৫ জন, হাজীগঞ্জে ৪জন, শাহরাস্তিতে ৪জন, মতলব উত্তরে ৩ জন, কচুয়ায় ২জন এবং মতলব দক্ষিণে ১জন। চাঁদপুর জেলায় এখন পর্যন্ত করানোয় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২৫৫ জন।
মাগুরা থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, ২৪ ঘণ্টার প্রাপ্ত রিপোর্টে মাগুরায় বৃহস্পতিবার নতুন করে এক পুলিশ পরিবারের সদস্যসহ ৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা সনাক্ত ৩৪ জন। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ১৯জন।
মাগুরা সিভিল সার্জন ডা. প্রদীপ কুমার সাহা জানান, নতুন করে এক পুলিশ পরিবারের সদস্যসহ ৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সদরের ৪ জন ও শ্রীপুরে ১ জন। এখন পর্যন্ত মাগুরায় মোট করোনা সনাক্ত হয়েছে ৩৪ জন।
নারায়ণগঞ্জ থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নারায়ণগঞ্জে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি। জেলায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৮৫। নতুন করে ১৩৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩২৯১। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জেলা সিভিল সার্জন অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তাদের দেয়া তথ্যানুসারে, গত ২৪ ঘণ্টার (৩জুন সকাল ৮টা হতে ৪জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত) এ জেলায় নতুন ভাবে আক্রান্ত হয়েছে ১৩৮জন, মোট আক্রান্ত ৩২৯১জন। মোট মৃত্যু ৮৫ জনের। নতুন করে ২৯জনসহ, মোট সুস্থ ৮৪২জন। ৩ জুন ও ৪ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যমতে মোট মৃত্যু ৮৫ জন। এনিয়ে ৪৮ ঘণ্টায় নারায়ণগঞ্জে কোন মৃত্যু নেই।
নীলফামারী সংবাদদাতা জানান, নীলফামারী জেলায় আরও নতুন করে ৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন পুলিশ সদস্য রয়েছে। গত বুধবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিভিল সার্জন রনজিৎ কুমার বর্মন জানান এনিয়ে জেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা হলো ১৫৩ জনে।
পটুয়াখালী জেলা সংবাদদাতা জানান, পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের একজন সিনিয়র স্টার্ফ নার্স (পুরুষ)সহ পটুয়াখালীতে নতুন ৫ জন করোনা পজেটিভ সনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে পটুয়াখালী জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭২ জনে দাঁড়ালো।
পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, নতুন আক্রান্তের মধ্যে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের ৪৬ বৎসর বয়স্ক একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স(পুরুষ), শহরের হাসপাতাল রোডের ২৪ বৎসর বয়স্ক এক যুবক,পুরাতন হাসপাতাল রোডের ৩৫ বৎসর বয়স্ক একজন,শহরের নদীর অপর পাড়ে খলিসাখালী এলাকার ৩০ এবং ৩২ বৎসর বয়স্ক দুই যুবক নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন।
স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে জানান, ঢাকার সাভারে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত (কোভিড-১৯) হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলঝে। এপর্যন্ত মোট ৯ জন মারা গেছে। আর আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫১০ জনে।
বৃহস্পতিবার সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা জানান, সাভারের আলোচিত ধ্বসেপড়া রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার বাবা আব্দুল খালেক (৬০) ভোরে করোনা পজেটিভ নিয়ে নিজ বাসায় মারা যায়।
এর আগে মঙ্গলবার রাতে নিজ বাসায় ৬২ বছর বয়সী হামিদুর রহমান করোনা পজেটিভ নিয়ে মারা যায়। তিনি সাভার উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক স্বাস্থ্যকর্মী। কয়েক বছর আগে তিনি অবসরে যান। ৩০মে তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। এরপর তিনি বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক মৃতদের দাফনের সব ব্যবস্থা করা হচ্ছে। উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডা. মোহাম্মদ সায়েমুল হুদা বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সাভারে ৯জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরন করেছে। আর আক্রান্ত হয়েছে ৫১০জন। দিন দিন আক্রান্ত ও মৃত্যের সংখ্যা বেড়েই চলছে। তিনি স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে সাভার বাসিকে আরও সচেতন হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।
মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু হয়েছে। শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের সিরাজনগর গ্রামের বৃদ্ধ খলিলুর রহমান ১০/১২ দিন ধরে জ্বর-সর্দি-কাশি গলাব্যথায় ভূগছিলেন।
লালমনিরহাট : লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দক্ষিন সির্ন্দুনা গ্রামে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৫৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর পর তার নমুনা সংগ্রহ করেছেন মেডিকেল টিম। সে ওই এলাকার তফসির সরদারের পুত্র বলে জানা গেছে। স্থানীয়রা জানান, ওই ব্যক্তি করোনা উপসর্গ জ্বর সর্দি নিয়ে কয়েক দিনে আগে ঢাকা থেকে বাড়ি আসে। বাড়িতে ডাক্তারদের পরামর্শে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেন।
ফেনী : ফেনী জেনারেল হাসপাতালে করোনার উপসর্গ নিয়ে এক বৃদ্ধার (৭৮) মৃত্যু হয়েছে। তিনি মঙ্গলবার রাতে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হন। পরে গত বুধবার রাতে তার মৃত্যু হয়। ওই ব্যক্তির বাড়ি ফেনী সদর উপজেলার রুহিতিয়া গ্রামে।
হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে গতকাল হাসপাতালে আসা মনিরুল ইসলাম (৪৬) নামে এক রোগী মারা গেছে। পরে করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মারা যাওয়া মনিরুল ইসলাম হবিগঞ্জ শহরতলীর বহুলা গ্রামের ২ নম্বর পুল এলাকার জমির আলীর ছেলে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন