বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সন্ত্রাসবাদ নিয়ে সংলাপে বসবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশের সময় : ২৭ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কূটনৈতিক সংবাদদাতা
বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ দমনে যুক্তরাষ্ট্র সংলাপে বসবে। গতকাল বিকেলে পদ্মায় পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক এবং যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট নিরাপত্তা সংলাপ নিয়ে এক বৈঠক করেন। সূত্র জানায়, চলতি জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে দু’টি সন্ত্রাসী ঘটনার পর যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে সরকারকে সহযোগিতার প্রস্তাব দেয়া হয়। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান তদন্তকারী সংস্থা ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন গুলশান সন্ত্রাসী হামলার তদন্তে যুক্ত হয়েছে এবং সন্ত্রাসীদের ডিএনএ পরীক্ষার নমুনা যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া, বাংলাদেশের পুলিশের একটি দলকে সন্ত্রাসবাদ দমনে প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য আগামী দুই মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের একটি দল ঢাকায় আসবে বলে জানায় সূত্র।
গতকালের বৈঠক নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নিরাপত্তা সংলাপ ছাড়াও অন্যান্য বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হয়। বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র নিরাপত্তা সংলাপের প্রতিটি বৈঠকে আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এবারে বিষয়টি নিয়ে আরও বড় পরিসরে আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশে বড় আকারে দুইটি সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে। এর ফলে দেশে নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, দক্ষিণ এশিয়াতে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ রয়েছে এবং এ স্বার্থ রক্ষায় বাংলাদেশের গুরুত্ব এবং দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক সাম্প্রতিক সময়ে বেড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে সামরিক সম্পর্ক দ্রুত বেড়ে চলেছে বিশেষ করে ২০০৭ সালের নভেম্বরে ঘূর্ণিঝড়ে ইউএস মেরিনের ত্রাণ তৎপরতায় অংশগ্রহণের পর থেকে। নিরাপত্তা সংলাপে আঞ্চলিক সহযোগিতা বিষয়ক আলোচনায় দুই দেশ ভারত, আফগানিস্তান, মিয়ানমার এবং ভারত মহাসাগর অঞ্চল নিয়ে আলোচনা করবে।
সামরিক সম্পর্কের আওতায় গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদান, সামরিক-বেসামরিক যোগাযোগ নিয়েও আলোচনা হবে। এছাড়া, সামরিক খাতে ক্রয়, মিলিটারি প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা ইত্যাদি বিষয় নিয়েও এ সংলাপে আলোচনা হবে।
বাংলাদেশ চারটি লকহীড মার্টিন সি-১৩০ বিমান ও ২০টি বিশেষ মডেলের রোলস-রয়েস ইঞ্জিন অনুদান হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে চেয়েছে। এগুলির মূল্য ১৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
প্রসঙ্গত, নিরাপত্তা বিষয়ে আলোচনার জন্য দুই দেশ ২০১১ সালে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তা সংলাপে বসে। ভারতের সঙ্গেও বাংলাদেশ অনুরূপ সংলাপে বসে থাকে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন