ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বগুড়ায় বিক্ষোভে প্রতিদিন ৫০ হাজার করোনা পরীক্ষার দাবি

বগুড়া ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০২০, ৬:০৫ পিএম

বাজেটে কমপক্ষে ২০% স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ করা, প্রত্যেক জেলা-উপজেলায় করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপন করে উপজেলায় ২০০, জেলায় ৫০০ এবং সারাদেশে প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ হাজার করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করাসহ ৮ দফা দাবিতে বগুড়ার সাতমাথায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট আয়োজিত এক বিক্ষোভ ও সমাবেশ ধনঞ্জয় বর্মনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন বাসদ বগুড়া জেলা আহ্বায়ক এ্যাড.সাইফুল ইসলাম পল্টু, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি শ্যামল বর্মন, জেলা সাংগঠনিক স¤পাদক মুক্তা আক্তার মীম, অর্থ স¤পাদক নিয়তি সরকার প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার এমন বেহাল দশা যে, করোনা ভাইরাসের মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যাতো বাড়ছেই, এই সময়ে নন করোনা বহু রোগীও বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে। একদিকে হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত আইসিইউ, ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা নেই, ন্যূনতম সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যবস্থা নেই।। সিন্ডিকেটের হাতে বন্দী হয়ে আছে অক্সিজেন। হাসপাতালে পর্যাপ্ত বেড নেই, ডাক্তার-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মী ও দক্ষ জনবল সংকট রয়েছে। রাস্তায় ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও করোনা টেস্ট মিলছে না, আবার টেস্ট করানোর দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন এমন চিত্রও গনমাধ্যমে এসেছে। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর একটি গবেষণা অনুযায়ী বাংলাদেশে বর্তমানে যে ৬০ টি পিসিআর ম্যাশিন আছে, দৈনিক ৩ শিফটে নমুনা পরীক্ষা করলেও এতে প্রতিদিন ২৪,০০০ টেস্ট করার সক্ষমতা আছে। কিন্তু দক্ষ জনবল ও পরিকল্পনার অভাবে তা করা যাচ্ছে না। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন অনিয়ম ও চুরি-দুর্নীতির খবর প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের ওপর ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের খড়গ নেমে এসেছে। করোনা সংক্রমনের শুরু থেকে এখন পর্যšত এই আইনে গ্রেফতার হয়েছে ৬৭ জন, যার মধ্যে ৩৭ জনই সাংবাদিক। গ্রেফতার করা হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কার্টুনিস্ট, একটিভিস্টসহ সাধারণ মানুষকে। করোনা কালে শিক্ষার্থীরা চরম সংকটে। ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। দেশের আর্থসামাজিক পরিস্থিতির কারণে বিশাল পরিমান শিক্ষার্থীর ঝড়ে পড়ার আশংকা করা হচ্ছে। এই বন্ধ সময়ে তাদের কাছ থেকে বেতন-ফি আদায়ের চেষ্টা করলে তা চরম সংকট তৈরী করবে। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একবছরের বেতন-ফি এবং বেসরকারী বিশ্ববিদ্যলয়ের চলতি এক সেমিস্টার ফি মওকুফের দাবি করা হলেও এখনো তা নিয়ে সরকারের কোনো সাড়া নেই। দেশের বহু ক্ষমতাধর লোকেরা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করছেন। শ্রমজীবী-পেশাজীবী মানুষের জীবনের মূল্য তো শাসকদের কাছে নেহাতই একটা সংখ্যা মাত্র। অথচ প্রাণ হারাচ্ছেন চিকিৎসারত অবস্থায় সরকারি দলের নেতাকর্মীরাও। উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে বাজেটের ২০% স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দসহ ৮ দফা দাবি বাস্তবায়ন করার দাবি জানান।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন