ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৬ আগস্ট ২০২০, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মক্কায় ঐতিহাসিক প্রত্মতাত্ত্বিক নিদর্শন উদ্ধার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২০, ১২:০১ এএম

সউদী আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় আব্বাসীয় খিলাফত যুগের শেষের দিকের কয়েক ডজন নিদর্শন পাওয়া গেছে। একটি গাড়ি পার্কিং নির্মাণের সময় এই প্রন্ততাত্তি¡ক নির্দশনগুলোর সন্ধান পাওয়া যায়। এর ফলে দেশটির ক্রমবর্ধমান পর্যটন খাত আরও বাড়বে বলে আসা করা হচ্ছে।

মক্কা শহরের আল-মু’আল্লা কবরস্থান উদ্ধার করা এই নিদর্শনগুলোর মধ্যে রয়েছে ২৪ টি খোদাই করা সমাধিপাথর। এর মধ্যে একটি ১২৫৭ সালের। এগুলো আবিষ্কারের পরে সউদীর পর্যটন মন্ত্রণালয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সউদী আরব প্রথমবারের জন্য পর্যটন ভিসা চালু করার কয়েক মাস পরে এই রাষ্ট্রীয় সংস্থাটিকে সম্প্রতি কমিশনের পদে উন্নীত করা হয়।
আল-মু’আল্লা কবরস্থানে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একাধিক আত্মীয়ের কবর রয়েছে। এর আগেও নির্মাণ কাজের সময় সেখানে বিভিন্ন প্রন্ততাত্তি¡ক নিদর্শন পাওয়া গেছে। গত বছরের ডিসেম্বরে সেখানে আরও কয়েকটি সমাধিস্তম্ভ পাওয়া গিয়েছিল।
মদীনার সুপরিচিত জান্নাত আল-বাকীর সমসাময়িক এই কবরস্থানে কবরের উপরে গম্বুজ এবং বিভিন্ন কাঠামো তৈরি করা হয়েছিল। ১৯২৫ সালে মক্কা এবং হিজাজ অঞ্চল জয় করার পরে সউদী কর্তৃপক্ষ এগুলো ধ্বংস করে দেয়। ফলে সেখানে এ ধরণের নিদর্শন পাওয়াটা আশ্চর্যজনক কিছু নয়।

মুসলিম বিশ্বের মধ্যে সমাধি এবং কাঠামো ধ্বংস করাটা একটি বিতর্কিত বিষয়। অনেকে সুন্নী ইসলামের অনুসারী সউদীদের এ ধরণের তথাকথিত গোঁড়ামিকে ‘ওহাবীবাদ’ বলে অ্যাখা দিয়েছেন এবং তাদের বিরুদ্ধে ইসলামী ঐতিহ্য নষ্ট করার অভিযোগ করেছেন। তবে, অনেক মুসলিম স্কলার এই ধ্বংসের পক্ষে মত দিয়েছেন। তাদের যুক্তি, এ জাতীয় কাঠামো ইসলামবিরোধী এবং নবীজি নিষিদ্ধ করেছেন।

পর্যটন শিল্পকে উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে এই নিদর্শনগুলো সংগ্রহ করছে সউদী পর্যটন মন্ত্রণালয়। করোনা মহামারির কারণে সৃষ্ট মন্দা থেকে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করার জন্য এই খাতে মনোযোগ দিচ্ছে দেশটির সরকার। পর্যটন বিকাশের জন্য তারা ৪ বিলিয়ন ডলারের তহবিল চালু করার পরিকল্পনা করেছে এবং উপসাগরীয় দেশটিতে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে ‘সউদী সামার’ প্রকল্পের ঘোষণা করেছে। সউদী অর্থনীতিকে বৈচিত্র্যময় করতে এবং ভিশন ২০৩০ এর লক্ষ্য অর্জন করাই এর উদ্দেশ্য। সূত্র : মিডল ইস্ট মনিটর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
তানিম আশরাফ ২৭ জুন, ২০২০, ১:৩৩ এএম says : 0
সৌদি আরবের পর্যটন শিল্পের জন্য উপকারে আসবে।
Total Reply(0)
মহীয়সী বিন্তুন ২৭ জুন, ২০২০, ১:৩৪ এএম says : 0
সমাধিস্তম্ভের নিদর্শন নিয়ে এত মাতামাতির কি আছে। এগুলো ধ্বংস করেই ভালো করেছিল।
Total Reply(0)
কাজল খান ২৭ জুন, ২০২০, ১:৩৫ এএম says : 0
এখন এগুলো বিদেশি পর্যটকদের দেখিয়ে সৌদি সরকার বৈদেশিক মুদ্রা আয় করবে। ভালোই এমবিএসের।
Total Reply(0)
jack ali ২৭ জুন, ২০২০, ১২:১৮ পিএম says : 0
It is the Command from the Allah that there will be structure on the grave. Those who are against it, they are enemy of Allah [SWT].
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন