শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ঢাকার পাশে থাকবে নয়াদিল্লি

ভারত সফররত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতে শেখ হাসিনার প্রশংসায় মোদি

প্রকাশের সময় : ২৯ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১:২৬ এএম, ২৯ জুলাই, ২০১৬

ইনকিলাব ডেস্ক : সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নয়াদিল্লি সবসময় ঢাকার পাশে থাকবে বলে আবারো জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে দুই  দেশের মধ্যে দ্বিতীয় দিনের মতো পঞ্চম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এদিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে  সৌজন্য সাক্ষাতে এ কথা বলেন মোদি। ঢাকা থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়েছে।
এর আগে গত ২১ জুলাই বেনাপোল স্থলবন্দরের সংযোগ সড়ক দিয়ে ভারতের নবনির্মিত পেট্রাপোল স্থলবন্দরের সুরক্ষিত সমন্বিত তল্লাশি চৌকির আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লড়াইয়ে ভারত সবসময় পাশে থাকবে বলে জানিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি।
গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সময় বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী হামলার বিষয়ে উল্লেখ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন মোদি। এ ছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অতীত ঐতিহ্য উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে জানান, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়সহ সব ধর্ম, বর্ণের মানুষ নিরাপদে তাদের ধর্মীয় আচার-উৎসব পালন করে। এ সময় ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো: মোজাম্মেল হক খানসহ দুই দেশের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ভারত ও বাংলাদেশ গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় বাড়াবে  
দিল্লিতে গতকাল বৃহস্পতিবার ভারত ও বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে সন্ত্রাসবাদের  মোকাবিলায় দ’ুদেশের সহযোগিতাকে আরও নতুন নতুন ক্ষেত্রে সম্প্রসারিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই বৈঠকের পর ভারত জানিয়েছে, সন্ত্রাসবাদ, মৌলবাদ ও র‌্যাডিক্যালাইজেশনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের লড়াইতে তারা আরও বেশি করে সমর্থন দেবে।
তা ছাড়া দু’দেশের পলাতক আসামিদের যাতে পরস্পরের হাতে তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়াকে আরও সহজ করে তোলা যায়, সে ব্যাপারেও বৈঠকে দু’পক্ষ একমত হয়েছেন। তবে নির্দিষ্টভাবে ইসলামিক স্টেট কিংবা বিতর্কিত ধর্মপ্রচারক জাকির নায়েককে নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে কোনও আলোচনা হয়নি বলেই বাংলাদেশ দাবি করেছে।
সাড়ে তিন বছর বাদে এদিন দিল্লিতে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হল, সেখানে ভারতীয় দলের নেতৃত্বে থাকা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তার বক্তব্য শুরুই করেন গুলশানের জঙ্গি হামলায় নিহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে। বৈঠকে দু’পক্ষই একমত হয়েছেন, জঙ্গিবাদের মোকাবিলায় দু’দেশের সহযোগিতাকে এখন পরের ধাপে উন্নীত করার সময় এসে গেছে। তার অংশ হিসেবে ‘রিয়েল টাইম’ গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় যেমন আরও বাড়বে- তেমনি দু’দেশের নিরাপত্তা কর্মকর্তারাও আরও ঘন ঘন একে অন্যের দেশে যাবেন, প্রশিক্ষণ ও দক্ষতাবৃদ্ধির কাজও চলবে পাশাপাশি।
আরও একটি বড় বিষয় হল, দিল্লি ও ঢাকার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক প্রত্যর্পণ চুক্তিতেও সম্প্রতি যে নতুন ধারা যুক্ত হয়েছেÑ তাতে একে অন্যের কাছ থেকে পলাতক আসামিদের হাতে পাওয়াও অনেক সহজ হবে। বৈঠকে অংশ নেওয়া ভারতের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু জানান, “এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতৃত্ব তথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে নিরাপত্তার দৃষ্টিকোণ থেকে এই সমস্যাগুলো দেখছেন তাতে তাদের সাধুবাদ জানাতেই হবে।”
সমগ্র উত্তর-পূর্ব ভারতে শান্তির পরিবেশ তৈরি করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ভূমিকা ও অবদান কিছুতেই অস্বীকার করা যাবে না বলেও মি রিজিজু মন্তব্য করেন। দু’দেশের জলসীমায় তথা বঙ্গোপসাগরে অবৈধ কর্মকা- রুখতে, সীমান্তে জাল নোটের পাচার ঠেকাতে এবং মানব পাচার বন্ধ করতে তিনটি মউ বা সমঝোতাপত্র যাতে দ্রুত বাস্তবায়ন করা যায়, সে ব্যাপারেও দুই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একমত হয়েছেন। তবে বৈঠকের পর বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল দাবি করেন, জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট কিংবা মুম্বইয়ের ইসলামী ধর্মপ্রচারক জাকির নায়েককে নিয়ে ওই বৈঠকে কোনও আলোচনা হয়নি।
তিনি আরও বলেন, “আমরা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যেমন একসঙ্গে লড়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছি, তেমনি স্থল সীমান্ত চুক্তির রূপায়ণও আমাদের বন্ধুত্বকে নতুন উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে।” সূত্র : বিবিসি

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps