ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সিরাজউদ্দৌলা গ্রেফতার হন এক ফকিরের দেয়া খবরে

বাংলার স্বাধীনতা হারানোর ইতিহাস-২

বিবিসি | প্রকাশের সময় : ৫ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

যখন লুটের ভাগ পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন ক্লাইভ, মীর জাফরের ছেলে মীরান তখন গোটা বাংলায় খুঁজে বেড়াচ্ছেন রাজধানী থেকে পালিয়ে যাওয়া সিরাজউদ্দৌলাকে।
‘সিরাজউদ্দৌলা সাধারণ মানুষের বেশে রাজধানী থেকে বেরিয়ে গেছেন। সঙ্গে আছেন কিছু বিশ্বাসভাজন আত্মীয়স্বজন, আর কয়েকজন হিজড়া। রাত তিনটের সময়ে স্ত্রী লুৎফ-উন-নিসা আর কয়েকজন ঘনিষ্ঠকে ঢাকা দেয়া গাড়িতে বসানো হল। সোনা জহরত যতটা সম্ভব নিয়ে প্রাসাদ ছাড়লেন সিরাজ’- ইতিহাসবিদ সৈয়দ গুলাম হুসেইন খান লিখেছেন ফারসি ভাষায় লেখা ‘সিয়ারুল মুতাখিরী’ বইতে।

মুর্শিদাবাদ থেকে প্রথমে ভগবানগোলা গিয়েছিলেন সিরাজ। দিন দুয়েক পরে, কয়েকবার বেশভ‚ষা বদল করে পৌঁছেছিলেন রাজমহলের কাছে। তিন দিন ধরে কিছু খাওয়া হয়নি, তাই একটু বিরতি নিয়েছিলেন সবাই। রান্না করা হয়েছিল খিচুরি।

এক ফকিরের দেয়া খবরে গ্রেফতার হন সিরাজ
ওই এলাকাতেই থাকতেন শাহ দানা নামের এক ফকির। সে-ই গোপনে খবর দিয়ে দেয় যে সিরাজউদ্দৌলা সেখানে আছেন। এ যেন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়ে গেল মীর জাফর, মীরানরা। দিনরাত এক করে যার খোঁজ চলছে গোটা বাংলায়, সেই সিরাজ এত কাছে রয়েছেন!
খবর পেয়েই মীর জাফরের জামাই মীর কাশিম সশস্ত্র সৈন্যদের সঙ্গে করে নদী পার করে ঘিরে ফেললেন গোটা এলাকা। সিরাজকে ১৭৫৭ সালের দোসরা জুলাই নিয়ে আসা হল মুর্শিদাবাদে। রবার্ট ক্লাইভ তখনও সেখানেই ছিলেন। সিরাজউদ্দৌলাকে নিয়ে শহরে আসার আগেই ক্লাইভ ফোর্ট উইলিয়ামে কোম্পানির দপ্তরে চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। লিখেছিলেন, ‘আমি আশা করব মসনদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে এমন একজন নবাবের প্রতি মীর জাফর সেই শিষ্টাচারটা দেখাবে, যা এই পরিস্থিতিতে দেখানো সম্ভব’।

ওই চিঠি পাঠানোর দু’দিন পরে আরেকটি চিঠি লিখেছিলেন ক্লাইভ।
‘সিরাজউদ্দৌলা এই পৃথিবীতে আর নেই। নবাব মীর জাফর হয়তো সিরাজউদ্দৌলাকে কিছুটা দয়া দেখাতেন। কিন্তু মীরান মনে করলেন দেশে শান্তি বজায় রাখার জন্য সিরাজউদ্দৌলাকে মারতেই হবে। তাকে গতকাল সকালে খোশবাগে কবর দেয়া হয়েছে’ -৪ জুলাইয়ের চিঠিতে লিখেছিলেন কর্নেল রবার্ট ক্লাইভ। (চলবে)

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Ab Jalil ৫ জুলাই, ২০২০, ১:৪৬ এএম says : 1
ব্রিটিশ ও এদেশীয় একটি কুচক্রী মহল সকল নির্যাতন, নিপীড়ন, স্বাধীনতাহরণ, দু:শাসন চালিয়েছে। এদের জন্য কেবল ঘৃণাই আছে, থাকবে।
Total Reply(0)
Babu L Hossain ৫ জুলাই, ২০২০, ১:৪৭ এএম says : 1
খুবই বেদনা দায়ক স্মৃতি বহন করে, এ ইতিহাস আর শুনতে চাইনা। কিন্তু এখনকার রাজনৈতিকরা এখনও সে ভুল থেকে শিক্ষা নিচ্ছে না।
Total Reply(0)
Quazi Sayed ৫ জুলাই, ২০২০, ১:৪৮ এএম says : 1
ঠিক বুঝলাম না,, এখন সব দোষ মীর জাফর ও মিরন কে দিয়ে ব্রিটিশ রা নিজেদের কেন ধোয়া তুলসীপাতা প্রমাণ করতে চায়???ইতিহাস বলে যুদ্ধ টা ইংরেজ বনাম নবাব সিরাজুদ্দৌলা হয়েছিল ,
Total Reply(0)
MH Khan ৫ জুলাই, ২০২০, ১:৪৯ এএম says : 1
প্রতি‌কেদনটি প‌ড়ে মনটা অ‌নেক খারাপ হ‌য়ে গে‌ল।‌নির্মম ভা‌বে সিরাজ‌দ্দৈালা‌কে হত‌্যা করা হ‌য়ে‌ছে ও তার মৃত‌দেহ হা‌তির পি‌ঠে প্রদর্শন করা হ‌য়ে‌ছিল জানতাম।‌কিন্তু বিস্তা‌রিত বর্ননা জানা ছিল না।‌যেভা‌বে ৭০ জন বেগম‌দের স‌লিল সমা‌ধি দেয়া হ‌য়ে‌ছে।এর চাই‌তে বর্বর নিস্ঠুরতা অার কিছু থাক‌তে পা‌রে ব‌লে অা‌মি ভাব‌তে পার‌ছি না।‌সিরা‌জের ছোট ভাই‌কে দুই কা‌ঠের ম‌ধ্যে রে‌খে পিস্ট ক‌রে হত‌্যা করা , প‌রিবার ও বংশের সকল‌কে খু‌জে বের ক‌রে এ‌নে নির্মম ভা‌বে হত‌্যা করা,পরা‌জিত‌দের সা‌থে নির্মম নিস্ঠুরতা অাল্লাহও বরদাস্ত ক‌রেন নাই।‌মিরন‌কেও তার নি‌জের প্রান দি‌য়ে প্রায়‌শ্চিত কর‌তে হ‌য়ে‌ছিল।অার মীরজাফর তো রোজ কেয়ামত পর্যন্ত বিশ্বাষঘাতকতার বৈ‌শ্বিক ম‌ডেল হয়ে বিরাজমান।লোভী, অনপুযুক্ত ও নিন্ম জাত‌কের, ‌চিন্তা ও চেতনার মানু‌ষের হা‌তে ক্ষমতা যে কত কদর্য রু‌পে অ‌র্বিভুত হ‌তে পা‌রে,এই সমস্ত ‌নির্মম, নিস্ঠুর বর্বতার তারই প্রকৃস্ট প্রমান রে‌খে গে‌ছে ই‌তিহা‌সের পাতায়। মহান অাল্লাহ তার গোনাহগার বান্দা‌দের ক্ষমা করুন।
Total Reply(0)
মোয়াজ্জেম হোসেন সজীব ৫ জুলাই, ২০২০, ৭:১৮ এএম says : 1
পৃথিবীতে বেইমানদের কখনো ক্ষমা হয় না ,তার প্রমান মীর জাফর,মীরন ,মোস্তাক ।।।।।
Total Reply(0)
Jack Ali ৫ জুলাই, ২০২০, ৬:০৫ পিএম says : 0
We have so many Mir Jafar in our Beloved Country... they have sold our country to India,, now we are slave of India and the Mir Jafar of our country...
Total Reply(0)
আজম ৭ জুলাই, ২০২০, ৯:১৬ এএম says : 0
এই ট্র্যাজেডি অসহনীয় কষ্টের উদ্রেক করে চলছে সেই শিশুকাল থেকেই।এসব শুনতে মোটেও ভাল লাগছেনা, নিজেকেই ছোট মনেহয়। এত জাতির ইতিহাস জেনেছি, কিন্তু এ কোন জাতির পরিচয় বহন করে চলছি? আমরা কেবল মীরজাফরকে ঘৃণা করেই দায়িত্ব শেষ করে নিজেদের বাহাদুরিভাব প্রকাশ করি। অথচ বর্তমানে মীর জাফরদের চেয়ে অনেক বেশি কূটকৌশলী তাদের ব্যাপারে করণীয় কি করছি আমরা? যাদের কোন নীতি নেই, চরিত্র নেই, কেবল নিজের স্বার্থই এদের জন্য সবকিছুর উর্ধ্বে। দেশ, জাতি,নাগরিক তথা অপরের কোন মূল্যই এদের কাছে কিছুইনা। সুনাগরিক তৈরির ফর্মুলা কি আছে? আছে কেবল মিথ্যার ফুলঝারি।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন