ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দুই ভাইয়ের ত্রাসের সাম্রাজ্যের পতন

আওয়ামী লীগে তোলপাড়

ইয়াছিন রানা | প্রকাশের সময় : ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:০৪ এএম, ৬ জুলাই, ২০২০

পতন হয়েছে ফরিদপুরের দুই ভাই শহর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ফরিদপুর প্রেসক্লাবের অব্যহতিপ্রাপ্ত সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের ত্রাসের সাম্রাজ্যের। জেলার একজন প্রভাবশালী এমপির ছত্রছায়ায় অবৈধ সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছিল এ দুই ভাই। টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ, মাদক-অস্ত্র ব্যবসা, জমি দখল, সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর দখলসহ এমন কোন অপকর্ম নেই যা করতো না এই দুই ভাই। জেলা আওয়ামী লীগের কর্মকাÐ নিয়ন্ত্রণ করতো বরকত। ত্যাগী ও দলের নিষ্ঠাবান নেতাদের বিতাড়িত ও কোনঠাসা করাই ছিল বরকতের কাজ। স্বাধীনতা বিরোধী পরিবার, বিএনপি, জামায়াতের লোকদের ভিড়িয়ে খোদ আওয়ামী লীগের কর্মীদের বিতাড়িত করেছে। জেলার অনেক নেতাই এলাকায় যেতে পারতেন না, এলাকা ছেড়ে ঢাকায় থাকতে বাধ্য হয়েছেন।

আর ছোট ভাই ইমতিয়াজ হাসান রুবেল তো রীতিমত জেলার প্রেসক্লাব দখল করে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করেছেন। হাজার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন এক সময়ের পরিবহন শ্রমিকের কাজ করা এ দুই ভাই। দুই ভাইয়ের গ্রেফতারের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের কোনঠাসা নেতারা।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন ইনকিলাবকে বলেন, এমনটা হতে পারে তা আমরা কল্পনাও করিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপের কারণে পরিত্রাণ পেয়েছে ফরিদপুর আওয়ামী লীগ। ত্যাগী নেতাকর্মীরা দল ক্ষমতায় থাকতে কোনঠাসা ও বিতাড়িত ছিল। আমরা কাউকে কিছু বলতে পারিনি। অনেকে সহ্য করতে না পেরে ঢাকায় বসবাস শুরু করেছিলেন। এখন আমরা মুক্ত হলাম।
তিনি বলেন, এই জেলায় স্বাধীনতা বিরোধী পরিবার, বিএনপি জামায়াত থেকে অনুপ্রবেশকারীদের কারণে এতটাই দুর্বল ছিলাম আমরা যা কখনো ভাবতেই পারবে না কেন্দ্র বা অন্য জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে আবারও আওয়ামী লীগের ত্যাগীরা রাজনীতি করার সুযোগ পাবে বলে আমরা আশাবাদী।
সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ ও ছত্রছায়া দানকারী সেই প্রভাবশালী এমপির সঙ্গে সাম্প্রতিক বিরোধের কারণে দুইভাই বরকত ও রুবেলের পতন হয়েছে। এক্ষেত্রে জেলা পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান শক্তিশালী ও সাহসী ভ‚মিকা পালন করেছেন। গত ৭ জুন রাতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হামলা মামলার আসামি হিসেবে শহরের বদরপুরসহ বিভিন্ন মহল্লায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ বরকত, রুবেলসহ নয়জনকে গ্রেফতার করে। ১ জুলাই ফরিদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেনের বাড়ি থেকে ডলার চুরির মামলায় বরকত এবং একটি চাঁদাবাজির মামলায় তার ভাই রুবেলকে এক দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। এখন তারা জেলে আছেন। এছাড়া ঢাকার কাফরুল থানায় দুই হাজার কোটি টাকার মানি লন্ডারিংয়ের মামলা করেছে সিআইডি।
২০১৯ সালের ১ মে থেকে দুই ভাইয়ের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান চালায় দুদক। এরপর অনেকবার জিজ্ঞাসাবাদও করেছে তাদের। অপকর্মের কারণে পত্রিকার পাতার হেডলাইন হয় এই দুইভাই। কিন্তু প্রভাবশালী সেই এমপির কারণে বেঁচে গেছে বাড়ে বাড়ে।
দুই ভাইয়ের উত্থান : বরকত ও রুবেলের বাবা আবদুস সালাম মন্ডল ছিলেন বিএডিসির চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী। অভাবের সংসারের কারণে পড়ালেখা বেশিদূর করতে পারেননি তারা। এরশাদ সরকারের সময়ে শহরের রাজবাড়ী মোড়ে পরিবহনে চাঁদা উঠাতেন দুই ভাই।
’৯১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এলে পরিচয় হয় স্থানীয় বিএনপির এক প্রভাবশালী নেতার সঙ্গে। এরপর থেকে ওই নেতার ঘনিষ্ঠ হিসেবে কাজ শুরু করেন। ওই সময় কোমরপুর এলাকার জাকির নামের এক যুবকের দুই হাত কেটে প্রথম আলোচনায় আসেন দুই ভাই। পরে ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন খোকনকে হত্যার অভিযোগ উঠে দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে। মামলা হয় তাদের বিরুদ্ধে। আসামি করা হয় ১ ও ৩ নম্বর। এরপর গ্রেফতার এড়াতে গা-ঢাকা দেন তারা। তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা নিহত খোকনের বাড়িতে যান সমবেদনা জানাতে। অভিযোগ রয়েছে অদৃশ্য ইশারায় পার পেয়ে যান এই দুই ভাই। হত্যা মামলার রায়েও খালাস পান তারা। ফের প্রকাশ্যে এসে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন। ক্ষমতার পালা বদলে তারা ভিড়েন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে। সান্নিধ্যে আসেন ফরিদপুর আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতার। এরপরই ভাগ্য খুলে যায় দুই ভাইয়ের। জড়িয়ে পড়েন টেন্ডারবাজিতে। দুই ভাইয়ের টেন্ডারবাজির কারণেই এলজিইডি অফিস ঝিলটুলী থেকে তাদের নিজবাড়ি বদরপুরে স্থানান্তর করার অভিযোগ ওঠে তাদের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে ওই সময় জেলা যুবদল নেতা আফজাল হোসেন খান পলাশ মামলাও করেন। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো পলাশকে একাধিক মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়। একসময় ফরিদপুরের টেন্ডারবাজির একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন দুই ভাই। এলজিইডির সব টেন্ডারে নির্ধারিত ভাগ দিতে হয় তাদের। ওদিকে টেন্ডারবাজির পাশাপাশি মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণের জন্য তৈরি করেন আলাদা সিন্ডিকেট। তাদের মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব দেন ভাগিনা সিদ্দিক ও জুয়েলকে। একধিকবার সিদ্দিক ও জুয়েল অস্ত্র ও মাদকসহ গ্রেফতার হন।
এই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাড়ি দখল ও নির্যাতনের। শহরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের দক্ষিণ পাশে অরুণ গুহ নামে এক ব্যক্তিকে নির্যাতনের মাধ্যমে বিশাল বাড়ি দখল করে নেন তারা। পরে বাড়ির পাশে প্রধান কালী মন্দিরটিও ভেঙে জায়গাটি দখল করে নেন। বাড়ি দখলের প্রতিবাদে ২০১৬ সালে ফরিদপুর প্রেসক্লাবে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ব্যানারে মানববন্ধন করার কারণে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আলোক সেনকে নির্যাতনের শিকার হতে হয়। তিনি এখনো স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি।
দুই ভাইয়ের অঢেল সম্পদ : স্থানীয়রা জানান, দুই ভাইয়ের নেশা জমি করার। যেখানে যেভাবে পারেন অন্যের জমি নিজেদের কব্জায় নেন। বরকতের সম্পদের যতটুকু খোঁজ পাওয়া গেছে তার মধ্যে রয়েছে- ঝিলটুলী এলাকায় ১০তলা বাড়িসহ ১০ শতাংশ জমি, ধুলদিতে পাথর ভাঙা কারখানাসহ ১৫ একর জমি, চন্ডিপুরে ১০ একর জমি, সিবরামপুরে ৩ একর জমি, চন্ডিপুরে পাম্পসহ ২ একর জমি, গঙ্গাবর্দিতে ২ একর জমি, বোয়ালমারীতে ১৫ শতাশ জমি, নর্থ চ্যানেলে ৩৩ একর জমি, বদরপুরে ১ একর ৫০ শতাংশ জমি। অভিযোগ উঠেছে, ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে ওয়ারলেছ পাড়ার মিজান চৌধুরী ও জামানের ১ একর ৪ শতাংশ জমি লিখে দিতে বাধ্য করেন বরকত। এছাড়া রুবেলের রয়েছে ঝিলটুলী টেলিগ্রাম অফিসের সামনে ৪৫ শতাংশ, জনতা ব্যাংকের মোড়ে ৫.৫ শতাংশ, মুন্সীবাজারে ৩ একর, বাইপাসে ১৫ একর, ব্রাহ্মণকান্দায় ১০ একর, পাট গবেষণা কেন্দ্রের পাশে ৬ একর, চন্ডিপুরে ইট ভাটাসহ মাচ্চরে ১১ একর, মাচ্চর ইউনিয়ন পরিষদের পাশে ৬ একর, চন্ডিপুর বাবু বাড়ির পাশে ২ একর, নর্থ চ্যানেলে ১০০ একর, ধুলদিতে ১৫ একর, রাজবাড়ি রাস্তার মোড়ে ১ একর ৫০ শতাংশসহ মোট ১৮২ একর জমি।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঢাকা, দিনাজপুর, গাজীপুর, সাতক্ষীরায় রয়েছে তাদের জমি, ফ্ল্যাট বাড়ি, চা বাগান, মাছের ঘের। গুলশান, বনানী, ধানমন্ডি, মহাখালী ডিওএইচএস ও সেগুনবাগিচায় রয়েছে একাধিক অত্যাধুনিক ফ্ল্যাট। বিএমডবিøউ, হ্যারিয়ার, লেক্সাসসহ মোট ৫টি অত্যাধুনিক গাড়ি ব্যবহার করেন তারা। সাউথ লাইন পরিবহনে রয়েছে ৬০টি বাস। রয়েছে অসংখ্য ট্রাক-ভেকু। এছাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আবাসিক হোটেল, চরে রয়েছে কলা ও মাল্টার বাগান, একাধিক পেট্রোল পাম্প, ইটভাটা, রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ে ব্যক্তিগত ২টি অফিস, বাইপাসে অসংখ্য দোকান। ফরিদপুর নিউ মার্কেটে রয়েছে ৪৪টি দোকান। সুইডেন, দুবাই ও মালয়েশিয়ার তাদের সম্পত্তি রয়েছে বলেও অভিযোগ এসেছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (9)
নাজারেথ স্বনন ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৫২ এএম says : 0
এদের যারা পৃষ্ঠপোষক ছিল তাদেরও আইনের আওতায় আনা হোক। তাহলে ত্রাসের রাজত্ব নতুন করে গড়ে ওঠবে না।
Total Reply(0)
কামাল ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৫২ এএম says : 0
ত্রাসের রাজত্ব আর কতদিন করবে? সময় শেষ, এবার চৌদ্দ সিকির ভাত খাও।
Total Reply(0)
জাহিদ খান ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৫৩ এএম says : 0
দুই ভাইকে ক্রসের রাজত্বে নিয়ে গিয়ে ঠাস ঠাস ঠাস করে দেয়ার দরকার!!!
Total Reply(0)
বাতি ঘর ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৫৪ এএম says : 0
যাদের সহায়তায় এই সম্রাজ্য গড়ে উঠেছিল তাদেরও গ্রেফতার করা হোক।
Total Reply(0)
নাসিম ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৫৪ এএম says : 0
তাদের কঠোর শাস্তি দাবি করছি।
Total Reply(0)
রাজনীতি বলে কথা আছে ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:২৪ পিএম says : 0
সম্পত্তির পরিমান তুলে ধরা কম হয়ে গেলো না? কত বছর রাজনীতিতে ওরা,বা আওয়ামিলীগ যে সম্পদের বর্ননা দিয়েছেন তাতে মনে হয় ওদের উপরে আর কেউ ছিলো না ফরিদপুর। নিউমার্কেটে আওয়ামী সাধুদের অসংখ্য দোকান পজিশন অবৈধ ভাবে ক্ষমতা খাটিয়ে নিয়েছে, তাদের আরও কতশত একর জমিও আছে।হয়তো ওরা একটু ভাগ কম দিত বাকিদের তাই আজ প্রকাশিত ওরা দুই ভাই। অন্যায়ের বিচার কার কাছে চাইব,যে দেশে আইন'ই অন্যায় করে।
Total Reply(0)
মিলন মৃধা ৬ জুলাই, ২০২০, ১১:১৩ এএম says : 0
বিয়েই কে আগে আইনের আওতায় আনা হোক।
Total Reply(0)
Mohammed Shah Alam Khan ৬ জুলাই, ২০২০, ৯:২৭ পিএম says : 0
এক সময়ে পরিবহন শ্রমিক হিসাবে কাজ করা দুইভাই আওয়ামী লীগের মত এতবড় একটা দলের ক্ষমতাধর পদে অধিষ্টিত ছিলো এটা ভাবাই জায়না। যখন আওয়ামী লীগ সাংঠনিকভাবে খুবই দুর্বল ছিল তখনও আওয়ামী লীগের শহর পর্যায়ের কমিটির সভাপতি কিংবা সাধারন সম্পাদক একজন পরিবহন শ্রমিক (সাধারণত পরিবহন শ্রমিকদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই বললেই চলে) হবেন এটা কল্পনার বাইরে ছিল। সেসময়ে শহর কমিটির একজন নির্বাহী সদস্যও শিক্ষিত ও ছাত্র রাজনীতি (সেসময়ে যুব রাজনীতি ছিলনা) করা লোকই পদ পেতো। আজ সেই দলের এমন কি দূরবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে, পরিবহন শ্রমিক দিয়ে কমিটি গঠন করতে হবে????? তারপর আবার সাংবাদিকদের প্রাণকেন্দ্র প্রেসক্লাব এখানেও পরিবহন শ্রমিক নেতৃত্ব দিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের সাংসদের ছত্রছায়ায়............ নিন্দুকেরা বলছেন এর কারন হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের সাংসদদের মনোনয়ন দেয়ার সময় তাদের শিক্ষগত যোগ্যতা বা রাজনৈতিক দক্ষতার বিচার না করে অর্থের জোর যাদের আছে তাদেরকে মনোনয়ন দেয়ার কারনেই আজ সেইসব অকর্মণ্য সাংসদেরা নিজের মর্যাদা ধরে রাখার জন্যেই এসব গুন্ডা মার্কা লোকদেরকে দলের বড় বড় চেয়ারে বসিয়ে দেশের বারটা বাজাচ্ছে। যারা শিক্ষিত ও রাজনৈতিক জ্ঞানের অধিকারি আল্লাহ্‌ যেন তাদেরকেই বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতা হিসাবে সামনে আসার ব্যাবস্থা করেন। আমিন
Total Reply(0)
Azad mullah ৭ জুলাই, ২০২০, ৫:৩০ পিএম says : 0
আছছালামু আলাইকুম দেশবাসীর কাছে অনুরোধ আপনারা যদি সম্মিলিত চেস্টা চালিয়ে যান সামাজিক ভাবে আরো জাগ্রত হয়ে যান আর সরকারি যতটা আইনি বিভাগ আছে এমন কি প্রধান মন্ত্রীর সহযোগিতা নিয়ে দল নির্বিশেষে সামাজিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য কাজ করলে আসা করা করা যায় এই রকম অনেক ই আইনের আওতায় আসবে যেভাবে আমাদের প্রধান মন্ত্রী ঘোষনা করেছেন মাদক আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে জির টলারেনছ আর তার প্রতিফল ও আমরা দেখছি আসলে দুর্নীতিবাজদের কোনো জাত ও দল নাই কথাই বলে চুরে সুনে না ধর্মের কাহিনী ঐ যে চুরেরা দল সমাজ ও দেশের খতি করে ঔ নোংরা ও ইতর প্রাণীর দের কারনে সর্ব প্রথম শাসক দলের বেসি দুর্নাম ছড়িয়ে পড়ে এর পর দেশের ও দুর্নাম ছড়িয়ে পড়ে তাই আল্লাহ ছুবহানাহোতালার দোআ করি আল্লাহ ছুবহানাহোতালা যেন আমাদের দেশের সর্ব স্তরের সবাইকে সুখ শান্তি ও নিরাপত্তা আতা করেন আমিন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন