ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

প্রতিমন্ত্রীর বাবার নামে সরিষাবাড়ীতে এড মতিয়ার রহমান স্মৃতি সংসদ হুমকির মুখে

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৮ জুলাই, ২০২০, ৯:০৫ পিএম

সরিষাবাড়ী আরামনগর বাজারের হেলেপড়া এডঃ মতিয়ার রহমান স্মৃতি সংসদ ও স্থানীয় ২ বসত ভিটা


সরিষাবাড়ী পৌরসভার বড় বাজার নামে খ্যাত আরামনগর বাজারের কাঠ পট্রিতে অবস্থিত জামালপুর ৪ সরিসাবাড়ী আসনের এমপি তথ্য প্রতিমন্ত্রী আলহাজ ডাঃ মুরাদ হাসানের বাবার নামে এডঃ মতিয়ার রহমান তালুকদার স্মৃতি সংসদটি পৌরসভার অব্যবস্থাপনায় হুমকির মুখে পড়েছে। সংবাদ পেয়ে বুধবার সকালে আরামনগর বাজারের কাঠ পট্রিতে গিয়ে খোজ নিয়ে জানা যায়, পৌর কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েক মাস আগে বিশেষ বরাদ্ধের মাধ্যমে আরামনগর বাজার, শিমলা বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার ড্রেনের কাজ শুরু করে। কাঠ হাটির ঐ ড্রেনের কাজ কিছু অংশ করার পর অবশিষ্টাংশ ঠিকাদার কাউন্সিলর নুরল ইসলাম ফেলে রেখে চলে যায়। মঙ্গলবার রাতে বৃষ্টিতে ড্রেনটি ভেঙ্গে গেলে তার সাথে এড মতিয়ার রহমান স্মৃতি সংসদ, গোলাম মস্তফা ও বাদশা মিয়ার বসত ঘরও ভেঙ্গে পড়ে। স্মৃতি সংসদটি কোন রকম ভাবে দাড়িয়ে থাকলেও মস্তফা ও বাদশা মিয়ার ঘর ড্রেনে পড়ে যাওয়ায় এ দুটি পরিবার গৃহবন্ধি হয়ে পড়ে। এ ব্যাপারে ঠিকাদার কাওন্সিলর নুরুর ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, পৌর কর্তৃপক্ষ আমাকে আদেশ না করা পর্যন্ত আমি ঐ ড্রেনের কাজ করতে পারবনা। এদিকে দীর্ঘ প্রায় তিন মাস যাবৎ সরিষাবাড়ী পৌরসভার মেয়র রুকনুজ্জামান কোন এক অদৃশ্য কারনে পৌরসভায় উপস্থিত না থাকায় পৌরসভার অনেক কাজ আটকে আছে। ভুক্তভোগী গোলাম মস্তফার স্ত্রী এবং বাদশা মিয়ার ছেলে জানায় ঠিকাদার আমাদের বাসার পুর্বে এবং পশ্চিমাংশে ড্রেনের কাজ করেছে শুধু আমাদের দুটি বসত ঘরের ড্রেন ও এডঃ মতিয়ার রহমান স্মৃতি সংসদের সংলগ্ন ড্রেনের কাজ টুকু বাকী রেখেছে। এর ঠিকাদার আমাদের কাছে ২০ হাজার টাকাও চেয়েছিল, আমরা তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়েও দিয়েছি। তার পরও কেন কোন কারনে বাকী ড্রেনের কাজ টুকু করলনা। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনের হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন ভোক্তভোগী ঐ দুই পরিবার। অপর দিকে এডঃ মতিয়ার রহমান স্মৃতি সংসদের সভাপতি রন্জু মিয়া এবং সাধারন সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বলেন, ২০০৮ সালে নির্মিত আমাদের স্মৃতি সংসদটি আজো সেই আগের অবস্থায় পড়ে আছে। আমরা মাননীয় তথ্য প্রতিমন্ত্রীর মাধ্যমে আমাদের স্মৃতি সংসদটির সংস্কার চাই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন