ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সোয়াইন ফ্লু কি পরবর্তী মহামারি হতে চলেছে?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

বিশ্ব বহু বছর ধরে মহামারীজনিত রোগ নিয়ে চিন্তিত। কোভিড-১৯ এর আগে সবচেয়ে সম্ভবত কারণ হিসাবে দৃষ্টি নিবদ্ধ ছিল ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসগুলিতে। সা¤প্রতিক একটি কাগজ আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে ফ্লু’র হুমকি খুব বাস্তব। এটি প্রতিবেদনে জানিয়েছে যে, চীনে একটি সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস সংক্রমণ করছে যা মানুষের মধ্যে মহামারী ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা রয়েছে। এটি অত্যন্ত উদ্বেগজনক শোনায়, তবে আমাদের কতটা চিন্তিত হওয়া উচিত?
প্রতি বছর লাখ লাখ ফ্লু আক্রান্ত হয়, যার ফলে কয়েকশ’ মানুষের মৃত্যু ঘটে। এগুলি ‘মওসুমী’ বা টাইপ বি ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসজনিত কারণে ঘটে। এছাড়াও অন্যান্য ধরনের ফ্লু ভাইরাস রয়েছে যা প্রাণীদের দ্বারা আশ্রয়প্রাপ্ত, বিশেষত পাখির টাইপ এ ভাইরাস। বেশিরভাগ মানুষ এ ভাইরাসেই খারাপভাবে সংক্রামিত হয়। তবে তারা মওসুমী ভাইরাস থেকে ভিন্ন ধরনের হওয়ার কারণে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুব কম বা নেই।
সুতরাং একটি টাইপ এ ভাইরাস যা সহজেই মানুষকে সংক্রামিত করে এবং সংক্রমণ করার ক্ষমতা অর্জন করে তা আমাদের জনসংখ্যার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে সার্স-কোভ-২ এর মতোই মহামারী হতে পারে। ১৯১৮ সালের স্প্যানিশ ফ্লু, যা আনুমানিক ৫ কোটি মানুষের মৃত্যু ঘটায় তা প্রমাণ করে যে, কেন মহামারী ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং বিশ্বজুড়ে সরকারগুলির কেন্দ্রীভ‚ত হয়েছে।
টাইপ এ ভাইরাস কীভাবে মানুষকে সংক্রামিত করতে পারে
ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসগুলি কোষের পৃষ্ঠের কোনও নির্দিষ্ট শ্বাসযন্ত্রের সাথে আবদ্ধ হয়ে শ্বাসযন্ত্রের কোষগুলিকে সংক্রামিত করে। মানুষ এবং পাখির এ শ্বাসযন্ত্রের বিভিন্ন সংস্করণ রয়েছে যার অর্থ এভিয়ান ফ্লু ভাইরাস মানুষের কোষকে খারাপভাবে আবদ্ধ করে। এ কারণেই মানুষের মধ্যে সংক্রামকতা কম।
তবে, ফ্লু ভাইরাস তাদের জিনগত উপাদানের (পুনরায় বিভাজন হিসাবে পরিচিত একটি প্রক্রিয়াতে) সহজেই আদান-প্রদান করতে পারে যদি দুটি ভিন্ন ভাইরাস একই কোষকে সংক্রামিত করে। এটি তাদের পিতামাতার সম্মিলিত বৈশিষ্ট্যসহ নভেল ফ্লু ভাইরাস তৈরি করতে পারে। আশঙ্কা করা হচ্ছে যে, একটি পুনঃমিশ্রিত ভাইরাস কিছু পাখির ভাইরাসের মারাত্মক ক্ষতির সাথে মানুষের উচ্চ সংক্রমণের সংমিশ্রণ ঘটাতে পারে - এটি একটি সম্ভাব্য বিপর্যয়কর সংমিশ্রণ।
এবং শূকরই এটি সম্ভব করে তুলতে পারে। তাদের শ্বাসযন্ত্রের কোষগুলিতে পূর্বে উল্লিখিত শ্বাসযন্ত্রের উভয় সংস্করণ রয়েছে, এগুলো তাদের ফ্লু ভাইরাসের বিস্তৃত সংক্রমণের জন্য সংবেদনশীল করে তোলে। এর অর্থ তারা সম্ভবত সম্ভাব্য হোস্ট যার মধ্যে পুনরায় বিভাজন ঘটে। এর কারণে নোভেল এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক ফ্লু ভাইরাস সনাক্তকরণের জন্য একটি বিস্তৃত বিশ্ব নজরদারি নেটওয়ার্ক রয়েছে এবং এই সা¤প্রতিক গবেষণাপত্রে সোয়াইন ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস চীনে উদ্ভ‚ত হয়েছে যা আমাদের সম্ভাব্য মহামারী সংক্রমণের সম্ভাবনা প্রত্যাশা করে এমন অনেক বৈশিষ্ট্য দেখা যায়।
ফেরেট এ নতুন ভাইরাসের বিপদ দেখাতে সহায়তা করে
২০১১ থেকে ২০১৮ এর মধ্যে চীনে শূকর থেকে বিচ্ছিন্ন ভাইরাসগুলির মধ্যে ছয়টি স্বতন্ত্র ধরনের শনাক্ত করা হয়। ২০১১ সালে প্রধানত ভাইরাসগুলো ২০০৯ সালের এইচ১এন১ সোয়াইন ফ্লু ভাইরাসটির রূপ ছিল। পরবর্তী ভাইরাসগুলোর পুনর্জন্ম করার ক্ষমতা রয়েছে।

বিশেষত, এক ধরনের (জি ৪ হিসাবে পরিচিত) ২০১৩ সালে গৃহীত নমুনাগুলিতে প্রথম সনাক্ত করা হয় এবং ২০১৮ এর মধ্যে প্রভাবশালী এবং একমাত্র প্রকারের বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল। এর সাথে শূকরের শ্বাসকষ্টজনিত রোগের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি ঘটে, যা সূচিত করে যে, মূল জি ৪ ভাইরাসটি শূকরদের মধ্যে বিশেষত প্রচলিত ছিল এবং এটি চীনের অন্যান্য সোয়াইন ফ্লু ভাইরাসগুলোকে উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তন করেছিল। যা সঞ্চালনে জি ৪ ভাইরাস নিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করেছিল।
জি ৪ ভাইরাস দ্বারা মানুষের সংক্রমণের সম্ভাবনার পরীক্ষা উদ্বেগজনক ফলাফল দিয়েছে। ফেরেটেসের মানুষের মধ্যে শ্বাসযন্ত্রের অনুরূপ নিদর্শন রয়েছে, একই রকমের ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগ মানুষের কাছে প্রদর্শিত হয় এবং তাদের মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস সংক্রমণ করতে পারে। এটি লোকেদের মধ্যে ফ্লু ভাইরাসের সম্ভাব্য প্রভাব অধ্যয়ন করার জন্য একটি ভাল মডেল করে তোলে।
যখন পরীক্ষা করা হয়, জি ৪ ভাইরাসগুলো অন্য ধরনের পরীক্ষিত পরীক্ষাগুলোর চেয়ে ফেরেটে আরও মারাত্মক রোগের সৃষ্টি করে এবং সরাসরি যোগাযোগ এবং শ্বাসকষ্ট উভয় ফোঁটা দ্বারা সহজেই সংক্রমণ করে। এটি দেখায় যে জি ৪ ভাইরাসগুলোর মানুষের মধ্যে মারাত্মক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং আমাদের মধ্যে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে।
আমাদের কতটা চিন্তিত হওয়া উচিত?
সোয়াইন ফার্মের কর্মীদের রক্তের নমুনা (যাদের শূকরের সাথে ঘনিষ্ঠ এবং নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে) এবং বৃহত্তর জনসংখ্যার রক্তের নমুনা তখন জি ৪ ভাইরাসকে স্বীকৃত অ্যান্টিবডিগুলোর উপস্থিতির জন্য পরীক্ষা করা হয়। আশ্চর্যের বিষয় হল, খামার শ্রমিকদের থেকে প্রাপ্ত ১০ শতাংশ নমুনা এবং সাধারণ জনগণের প্রায় ৪ শতাংশ নমুনায় এ জাতীয় অ্যান্টিবডি রয়েছে। এটি ইঙ্গিত দেয় যে, জি ৪ ভাইরাস ইতোমধ্যে মানুষকে সংক্রামিত করছে। এটি লক্ষণীয় ছিল যে, পজেটিভ নমুনার ফ্রিকোয়েন্সি এবং এভাবে সংক্রমণের ফ্রিকোয়েন্সি সা¤প্রতিক বছরগুলোতে বৃদ্ধি পেয়েছে।
যদিও বেশিরভাগ মহামারি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা ফ্লু কেন্দ্রিক হয়েছে, কোভিড-১৯ এ পরিকল্পনাটি আরও প্রশস্ত করার প্রয়োজনীয়তা দেখিয়েছে। এই কাগজটি একটি সময়োপযোগী অনুস্মারক যে, সম্ভবত কোভিড -১৯ বিজয় হওয়ার আগেই পরবর্তী মহামারীটির জন্য আরও দৃঢ় পরিকল্পনার প্রয়োজন শুরু করা উচিত। চরম ঘটনাগুলো প্রায়শই জীবনে একবারে বর্ণনা করা হয়। আমরা মহামারীটিকে সেভাবে চিকিৎসা করতে পারি না। সার্স, মার্স, এইচ১এন১ এবং এখন কোভিড-১৯ সমস্ত গত ২০ বছরে উঠে এসেছে, তা প্রমাণ করে যে, মহামারী ভাইরাসগুলো উদ্বেগজনক নিয়মিততার সাথে উদ্ভ‚ত হয়েছিল এবং সম্ভবত এটি অবিরত থাকবে। সূত্র : ডন অনলাইন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন