ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মঠবাড়িয়ায় মাছ ব্যবসায়ীর ক্লিনিক খুলে ডাক্তার সেজে সিজারিয়ান অপারেশনের ছবি প্রকাশ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড়

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ জুলাই, ২০২০, ৫:৩৮ পিএম

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মাছ ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফা ক্লিনিক খুলে ডাক্তার সেজে প্রসূতি মায়ের অপারেশন করার ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হবার পর দারুণ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলার সর্বত্র বিষয়টি মুখরোচক আলোচনার সৃষ্টি করেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পীযুষ কুমার চৌধুরীর নেতৃত্বে র‌্যাব-৮ এর একটি দল অভিযানের মাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশ হয়। র‌্যাবের অভিযানে তিনটি ক্লিনিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকা, এমবিবিএস ছাড়া সিজারিয়ান অপারেশন করাসহ বিভিন্ন অনিয়মের কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে অর্থদন্ড এবং ভুয়া চিকিৎসক ও ক্লিনিকের মালিকসহ দুইজনকে কারাদন্ড দিয়েছেন।

উপজেলার ধানীসাফা বন্দরের আব্দুর রাজ্জাক সার্জিক্যাল ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুয়া ডাক্তার আমির হোসেন ভূঁইয়া (৪৫) কে ৬ মাসের কারাদন্ড ও পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর মাছ বাজার সংলগ্ন মহিমা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর মালিক মাছ ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফা (৪০) কে ভুয়া ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করার অপরাধে ৩ মাসের কারাদন্ড, ৩০ হাজার টাকা জরিমানা এবং ভুয়া ডাক্তার এ এইচ ভূইয়া সুজনকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা ও ৬ মাসের কারাদন্ড এবং সৌদি প্রবাসী হাসপাতালে ভুয়া ডাক্তার আমির হোসেন ভূঁইয়াকে দিয়ে বিভিন্ন সময়ে অপারেশন করানোর অপরাধে ওই হাসপাতালের মালিক মোঃ মনির হোসেনকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এদিকে মহিমা ক্লিনিকের মালিক গোলাম মোস্তফার কারাদন্ডের খবর ছড়িয়ে পড়লে, মোস্তফা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার টাইম লাইনে অপারেশন থিয়েটারের পোশাক পরিহিত অবস্থায় গর্ভবতী মায়েদের সিজার করা ছবি সম্বলিত স্ট্যাটাস দেন। মোস্তফার এই স্টাটাসে তোলপার চলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম আজাদী তাঁর আইডিতে লিখেছেন, “এই হচ্ছে মাছ মোস্তাফা যে মঠবাড়িয়ার মাছের আড়তের কেরানী। তার নিজের ক্লিনিকে নিজেই সিজারসহ অন্যান্য অপারেশন করেন।”

প্রবাসী সাইদুল হক খান বলেন, “আসুন মানুষের জীবন নিয়ে কসাই বাণিজ্যে যারা জড়িত তাদের মুখোশ উন্মোচন করি। স্থানীয়রা জানান, এর ছাড়াও মোস্তফার বিরুদ্ধে তার ক্লিনিকের নার্সকে যৌন হয়রানী, ভুয়া ডাক্তার দ্বারা অপারেশনে এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর অভিযোগসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন