ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

প্রেসিডেন্ট হলে কাশ্মীর ইস্যু উত্থাপন করবেন বাইডেন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জুলাই, ২০২০, ২:১০ পিএম

বাইডেন প্রচার শিবিরের বিদেশবিষয়ক পরামর্শদাতা অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, যদি নির্বাচিত হয় তবে বাইডেন প্রশাসন ভারতের সাথে কাশ্মীরের বিষয়টি উত্থাপন করবে এবং সাম্প্রতিক ভারতীয় আইনে মুসলমানদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণের বিষয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করবে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে ওয়াশিংটনের হাডসন ইনস্টিটিউটে যুক্তরাষ্ট্রের বৈদেশিক নীতি সম্পর্কিত সংলাপে ব্লিঙ্কেন আরও বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের ইরান কৌশলটি ‘বড় আকারে ব্যাকফায়ার করেছে’।
যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক উপ-জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এবং সহকারী পররাষ্ট্র সচিব ব্লিঙ্কেনকে বাইডেন অভিযানের বৈদেশিক নীতি খসড়া করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। মডারেটর ওয়াল্টার রাসেল মিড উল্লেখ করেছেন যে, ব্লিঙ্কেনের দৃষ্টিভঙ্গি ক্রমশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে, কারণ নভেম্বরের নির্বাচনে সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বিজয়ের ‘সম্ভাবনা উজ্জ্বল’ হয়ে উঠেছে।
কথোপকথনের সময় মডারেটর কাশ্মীরের বিষয়টি উত্থাপন করেন এবং ইঙ্গিত করেন যে, ভারতের কাশ্মীরে এবং অন্য কোথাও বিশেষত মুসলমানদের সাথে কিছু গুরুতর মানবাধিকার এবং গণতন্ত্রের সমস্যা রয়েছে।
মডারেটরের জবাব দেয়ার সময় ব্লিঙ্কেন বলেন, ‘আমাদের স্পষ্টতই এখন চ্যালেঞ্জ রয়েছে এবং প্রকৃত উদ্বেগ রয়েছে, উদাহরণস্বরূপ, ভারত সরকার যে কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছে, বিশেষত কাশ্মীরে আন্দোলনের স্বাধীনতা এবং বাকস্বাধীনতার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে এবং নাগরিকত্ব সম্পর্কিত কিছু আইন সম্পর্কে’।
ব্লিঙ্কেন ঘোষণা করেন যে, সাম্প্রতিক ভারতীয় আইন নিয়ে যে উদ্বেগ মুসলমানদের প্রতি বৈষম্যমূলক তা দিল্লিতে পৌঁছে দেয়া হবে।
ব্লিঙ্কেন বলেন যে, কাশ্মীর এবং ভারতের সাথে অন্যান্য ইস্যু নিয়ে আলোচনা করার সময় এটিই বাইডেন প্রশাসনের পন্থা হবে। কারণ আমরা প্রমাণ পেয়েছি যে, এটি কাজ করে।
মডারেটর উল্লেখ করেন যে, ‘ভারত যখন গণতন্ত্র ছিল, তখন আমাদের কী বোঝাতে পারে সে সম্পর্কে কিছুটা ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি ছিল’।
ব্লিঙ্কেন উল্লেখ করেন যে, ২০১৮ সালের মে মাসে মার্কিন-ইরান পারমাণবিক চুক্তি ছিন্ন করার সময় ট্রাম্প প্রশাসন দাবি করেছে যে, দেশটি আরও ভাল চুক্তির জন্য আলোচনা করবে এবং মধ্যপ্রাচ্যকে একটি নিরাপদ স্থান হিসাবে গড়ে তুলবে, তবে উভয় লক্ষ্য অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে।
ব্লিঙ্কেন বলেন, ‘আসলে এর বিপরীতটিই ঘটেছে, এ পদক্ষেপটি চুক্তি আলোচনায় সহায়তাকারী অংশীদারদের থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে বিচ্ছিন্ন করেছে এবং আরও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, ইরান তার পারমাণবিক কর্মসূচির বিপজ্জনক উপাদানগুলি পুনরায় চালু করছে, চুক্তিতে স্বাক্ষর করার সময় তার চেয়ে এখন পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির বৃহত্তর ক্ষমতা রয়েছে এমন অবস্থানে রয়েছে’। সূত্র : ডন অনলাইন।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন