ঢাকা, শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৭ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

মহানগর

শিল্পপতি নুরুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জুলাই, ২০২০, ৩:০৬ পিএম

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পগ্রুপ যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম।
মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে বনানী কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে দাফন করা হয়।
এর আগে বাদ জোহর রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্ক প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার পর এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়।

কঠিন এ সময়েও এই মুক্তিযোদ্ধার জানাজায় বিপুল লোকসমাগম হয়। কর্মপ্রাণ ও সফল এ উদ্যোক্তার জানাজায় অংশ নিয়ে সবাই তার রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া করেন।
জানাজার আগে বাবার রুহের মাগফিরাত ও বেহেশত কামনায় দোয়া চান মরহুমের ছেলে ও যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম ইসলাম। তিনি মুক্তিযুদ্ধ ও তার পরবর্তী সময়ে দেশের কল্যাণে তার বাবার অবদানের কথা স্মরণ করেন। জানাজায় অংশ নেয়ার জন্য সব মুসল্লির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান শামীম ইসলাম।
এর আগে সোমবার বিকাল ৩টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন শিল্পপতি নুরুল ইসলাম।

গত ১৪ জুন নুরুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
১৯৪৬ সালে নবাবগঞ্জের চুড়াইন ইউনিয়নের কামারখোলা গ্রামের এক মধ্যবিত্ত সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন নুরুল ইসলাম। তার বাবার নাম আমজাদ হোসেন। মায়ের নাম জমিলা খাতুন।
তার স্ত্রী সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বর্তমান জাতীয় সংসদের এমপি সালমা ইসলাম। ছেলে শামীম ইসলাম যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তার তিন মেয়ে- সোনিয়া ইসলাম, মনিকা ইসলাম ও রোজালিন ইসলাম যমুনা গ্রুপের পরিচালক।
যমুনা গ্রুপ বাংলাদেশের বৃহৎ শিল্পগ্রুপ। ১৯৭৪ সালে নুরুল ইসলাম যমুনা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। মেধা, দক্ষতা, পরিশ্রম ও সাহসিকতার মাধ্যমে একে একে শিল্প এবং সেবা খাতে গড়ে তোলেন ৪১টি প্রতিষ্ঠান। তার হাতে গড়া দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশন আজ দেশের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম।

২৫ বছর বয়সে তিনি দেশমাতৃকার টানে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত করেন। একজন সাহসী ও সফল উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলেন অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান।
এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থান হয়েছে লক্ষাধিক মানুষের।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Mohammed Shah Alam Khan ১৪ জুলাই, ২০২০, ৯:৫৬ পিএম says : 0
দেশের শ্রেষ্ট সন্তান ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার কৃতী সন্তান যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম বাবুল করোনাভাইরাসে মারা গেলেন ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আমি আমার পরিবারের পক্ষথেকে নুরুল ইসলাম বাবুলের মৃত্যুতে গভীর দুঃখ প্রকাশ করছি। সাথে সাথে তাঁর রেখে যাওয়া শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। মহান আল্লাহ্‌র দরবারে নুরুল ইসলাম বাবুলের আত্মার শান্তি কামনা করছি। বাবুল সাহেবের ইন্তেকালে ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দাদের জন্যে খুবই খারাপ একটা সংবাদ। নবাবগঞ্জ বাসী তাদের একজন যোগ্য অভিভাবক হারালেন। আমিও নবাবগঞ্জ উপজেলার একজন বাসিন্দা ৩৫ বছর ধরে প্রবাসে আছি ওনার সাথে আমার কোন আলাপ বা পরিচয় নেই। তারপরও যখন আমি দেশে বেড়াতে যাই প্রতিবারই এলাকা বাসীদের জন্যে তাঁর করা বিভিন্ন অবদানের কথা শুনে থাকি। তাঁর স্ত্রী এডভোকেট সালমা ইসলাম একসময়ে প্রতিমন্ত্রী ছিলেন তাছাড়া গত ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে নবাবগঞ্জ-দোহার থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন তবে এবার তিনি সালমান এফ রহমানের নিকট পরাজিত হয়েছেন। এডভোকেট সালমা ইসলাম যুগান্তর পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। নুরুল ইসলাম বাবুলের কাছে নবাবগঞ্জ এলাকার কোন লোক চাকুরীর জন্যে গিয়ে ফিরে আসেননি এটা আমি বিভিন্ন জনের কাছ থেকে শুনেছি। তাছাড়া সবাই বলেন ভাল মানুষেরা বেশী দিন বাচেন এবং সুস্থ থাকেন। তাই বলাযায় তিনি একজন খুবই ভাল মানুষ ছিলেন। আল্লাহ্‌র দরবারে আমার প্রার্থনা তিনি যেন নুরুল ইসলাম বাবুলের ভুলত্রুটি ক্ষমা করে দিয়ে তাঁকে জান্নাত বাসী করেন। আমিন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন