ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

কোরবানিকে নিরুৎসাহিত করা ইসলাম বিদ্বেষী কাজ

খেলাফত মজলিস

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ যাতে নির্বিঘেœ পশু ক্রয় ও কোরবানি দিতে পারে তার সুব্যবস্থার দাবি জানিয়ে খেলাফত মজলিসের আমীর মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, কোরবানি মুসলমানদের একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। প্রত্যেক সামর্থবান ব্যক্তির পক্ষ থেকে ঈদুল আযহার দিনগুলোতে পশু কোরবানি দেয়া ওয়াজিব। দেশবাসী এ গুরুত্বপূর্ণ আমল যাতে নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করতে পারে তার জন্য সরকারকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। 

কিন্তু কিছু লোক করোনাভাইরাসহ বিভিন্ন অজুহাতে পশু কোরবানিকে নিরুৎসাহিত করতে চায়। এরা ইসলাম বিদ্বেষী মতলববাজ। এসব ইসলাম বিদ্বেষী মতলববাজদের ব্যাপারে সবাইকে সাবধান ও সতর্ক থাকতে হবে। ইসলামে দান সাদকাকে উৎসাহিত করা হয়েছে। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তাই বলে সাধারণ দান সদকা কোরবানির বিকল্প নয়। সামর্থবান সকল মুসলমানকে গুরত্বসহকারে ঈদুল আ্যহায় পশু কোরবানির মাধ্যমে মহান আল্লাহর দরবারে ত্যাগের নজরানা পেশ করতে হবে।
গতকাল বুধবার বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, কোরবানির পশুর হাটের সংখ্যা কমালে জটিলতা আরো বাড়বে। এক জায়গায় অধিক ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড় হওয়ার সম্ভানা থাকে। তাই করোনাভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সমুন্নত রেখে পর্যাপ্ত পশুর হাটের ব্যবস্থা করতে হবে। বিশেষ করে রাজধানীসহ শহরাঞ্চলে পর্যাপ্তসংখ্যক পশুরহাটের ব্যবস্থা করতে হবে যাতে কোরবানি দাতারা সহজে ও স্বল্প সময়ে কোরবানির জন্য পশু ক্রয় করতে পারে। বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, আসন্ন ঈদুল আযহায় কোরবানিকৃত পশুর চামড়ার দাম নিয়ে যাতে গত বছরের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় তার জন্য সরকারকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এ ধরণের অসাধু চামড়া সিন্ডিকেটের কারণে গত বছর বহু চামড়া মাটিতে পুতে ফেলতে হয়েছে, পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। এতে চামড়ার অর্থের হকদার গরীব এতিমরা বঞ্চিত হয়েছে। দেশের চামড়া শিল্পও ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন