ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

সম্পাদকীয়

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০২০, ১২:০২ এএম

মধ্যবিত্ত পরিবারে নীরব হাহাকার

মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের অভিধানের অন্যতম শব্দ ‘হিসাব’ করে বেঁচে থাকা। জীবন কিংবা জীবিকা তাদের চলার পথে নিত্য সঙ্গী অংক কষে তার একটি চিত্র দাঁড় করানো। হোক সেটা পরিবারের খাবার, হোক সেটা সন্তানের পড়াশোনা কিংবা হোক সেটা সল্প বিলাসিতা। প্রতিটি ধাপে তাদের জীবনকে ঘুছিয়ে রাখে ব্রেইনের ক্যালকুলেটরের ‘হিসাব’। অন্যভাবে বলা যায়, জীবনভর জাঁতাকলে পিষ্ট মানুষদেরই বলে মধ্যবিত্ত। যার সীমা অতিক্রম করবার কোনো সুযোগ নেই, সীমাবদ্ধ থেকেও তাকে বেঁচে থাকবার আশা যোগাতে হয়। আজ করোনা মহামারী তাদের সেই হিসাবি জীবনটাকেও অজানা গন্তব্যের সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। হিসাবি মানুষগুলোর জীবনে মানিয়ে নেওয়া সেই জায়গাগুলোও হারাতে বসেছে। আজ কেউ চাকরিচ্যুত হয়ে হেরে যাচ্ছে তাদের জীবন যুদ্ধে, আবার কেউ দ্রব্যমূল্য, বাসা ভাড়া, সন্তানের পড়াশোনা সবকিছু সামলে নিতে না পেরে হেরে যাচ্ছে নিরবতায়। শিক্ষিত মধ্যবিত্ত শ্রেণি না পারে কোথাও প্রকাশ করতে, না পারে লোকচক্ষুর লজ্জাবোধ কাটিয়ে কারো সাহায্য নিতে। সামাজিক মর্যাদা এবং ব্যক্তিগত সম্মানটাও তাদের আটকে দেয়। মধ্যবিত্ত নামটিই তাদের কাছে কষ্টের অপ্রকাশিত এক গল্প, যেই গল্পে টিকে থাকার চেষ্টা করে যাওয়া মানুদেরও বাস্তবতার কাছে হেরে যেতে হয়। অনেকে দীর্ঘ জীবনের বসবাসের শহর ছেড়ে গ্রামে ফিরছে কিছুটা কষ্ট লাঘব হবে এই আশায়। পরিস্থিতি আজ তাদের দাঁড় করিয়েছে কঠিন বাস্তবতার সম্মুখীন।
কাব্য সাহা
শিক্ষার্থী, স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
তানভীর এলাহী মজুমদার ২০ জুলাই, ২০২০, ১২:৩৯ পিএম says : 0
মধ্যভিত্ত পরিবারের সামাজীক মর্যাদার কারণে তারা না পারে কাউকে কিছু বলতে না পারে সইতে। তারপরও জীবন জীবিকার প্রয়োজনে জীবনটাকে টেনে টেনে নিয়ে যেতে হয়। তারওপর সামাজীক কুসংস্কারের যাতাকলে মধ্যভিত্ত শ্রেণি আরো দিশেহারা।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন