ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নেপালে অলি-দাহাল সমঝোতায় ভারতপন্থী শিবিরে হতাশা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলিকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিতে না পেরে হতাশা নেমে এসেছে ভারতপন্থী শিবিরে। ভারতের দখলে থাকা ৩টি এলাকাকে নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করে তা পার্লামেন্টে পাস হলেও অসন্তুষ্ট হয় পার্লামেন্টে ভারতপন্থী অংশ। সাবেক মাওবাদীদের নিয়ে একীভ‚ত নেপাল কমিউনিস্ট পার্টি দলের কো-চেয়ার তথা প্রধানমন্ত্রী অলিকে দুই পদ থেকে ইস্তফা দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। এ নিয়ে পার্টিতে ভাঙনের অবস্থা সৃষ্টি হয়। তবে অপর কো-চেয়ার পুষ্প কুমার দাহালের সঙ্গে ওয়ান-টুওয়ান আলোচনার মাধ্যমে পদত্যাগের দাবি থেকে সরে আসার চেষ্টা করতে থাকেন অলি। পাশাপাশি নেপাল কমিউনিস্ট পার্টি বা এনসিপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকও পেছাতে থাকে। অবশেষে গত শনিবার এনসিপির দুই প্রধানের মধ্যে আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরের দিকে একটি দলের কনভেনশন আয়োজনের ব্যাপারে ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়। চুক্তি অনুসারে, দাহাল আপাতত অলির পদত্যাগের দাবি বাতিল করে দিয়েছেন, যা কয়েক সপ্তাহ আগ পর্যন্ত দলটিকে বেশ কিছুটা স্থবির করে রেখেছিল।

দলের শীর্ষ দুই নেতার মধ্যে সমঝোতা হওয়ায় ভারতীয় লবির ষড়যন্ত্র আপাতত নস্যাৎ হয়ে যায় এ শিবিরে হতাশা নেমে এসেছে। ভারতকে খোশ খবর দেয়ার জন্য যারা ফোনের রিসিভার ধরে অপেক্ষায় ছিলেন তাদের প্রচেষ্টা আপাতত এ বছরের মতো বিফলে গেল। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে তারা এখন দলীয় কো-চেয়ার পুষ্প কমল দাহালের বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন গোপন স্বার্থ হাসিলের। তিনিও এখন প্রধানমন্ত্রী অলির পদত্যাগের দাবি থেকে সরে আসার কারণ দলীয় নেতাদের বোঝাতে পারছেন না।

ভারতীয় মিডিয়া এবং ভারতপন্থী নেতাদের এমন তোপের মুখে এখন তার অবস্থান বদল করে দাহাল দলীয় নেতাদের জানিয়েছেন যে, আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরে দলের কনভেনশন করা কোন মতেই সম্ভব নয়। গতকাল সকাল সকাল অন্তত ১৫ জন নেতা দাহালের খুমালটারের বাসভবনে উপস্থিত হয়ে কৈফিয়ত তলব করলে তিনি তাদের এমন কথা জানিয়েছেন। স্থায়ী কমিটির সদস্য মৈত্রিকা যাবদ দাহালের উক্তি উদ্ধৃত করে বলেন, দলের আদর্শসহ অনেক বিষয় আছে যেগুলোর সমাধান না করে কনভেনশন আয়োজন সম্ভব নয়।

স্থায়ী কমিটির সদস্য রঘুজি পান্ত বলেছেন, নভেম্বর-ডিসেম্বরে সাধারণ সম্মেলন হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। পান্ত বলেন, ‘সাধারণ সম্মেলনের প্রস্তাবও এ বিরোধ নিষ্পত্তি করতে পারছে না’। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বিষ্ণু রিজালের মতে, সাধারণ সম্মেলন করার পক্ষে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হ’ল কোভিড-১৯ মহামারি। তিনি বলেন, যখন মহামারির কারণে আমরা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির মিটিং করতে পারছি না, তখন নভেম্বর-ডিসেম্বরে কীভাবে সাধারণ সম্মেলন করতে পারি’?

এর আগে গত রোববারও বেশ কয়েক জন নেতা দাহালের বাসভবনে গিয়ে জানতে চান প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি থেকে সরে এসে তিনি একক সিদ্ধান্তে কেন তার সঙ্গে কনভেনশন আয়োজনের চুক্তি করলেন। যাদবের মতে, অলি একটি প্রাথমিক সাধারণ সম্মেলনের প্রস্তাব দিয়েছেন, তবে শর্তে যে তার জনগণের বহু-দলীয় গণতন্ত্রকে দলের আদর্শিক ভিত্তি হিসাবে গ্রহণ করতে রাজি হওয়া উচিত।

এদিকে গত রোববার মুলতবি হয়ে যাওয়া এনসিপি স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পুনঃনির্ধারিত তারিখ আজ মঙ্গলবার। সূত্র : দ্য কাঠমান্ডু পোস্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
মেহেদী ২১ জুলাই, ২০২০, ১:২৩ এএম says : 0
ভারতকে উচিত শিক্ষা দিতে হলে নিজেদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব মিটিয়ে ফেলার বিকল্প নেই।
Total Reply(0)
তোফাজ্জল হোসেন ২১ জুলাই, ২০২০, ১:২৪ এএম says : 0
অভিনন্দন। নেপালের জন্য শুভ কামনা রইলো। আগ্রাসী ভারতকে রুখে দিয়ে অন্যান্র প্রতিবেশীদের চোখ খুলে দিয়েছে আশা করি।
Total Reply(0)
বাতি ঘর ২১ জুলাই, ২০২০, ১:২৫ এএম says : 0
ভারতপন্থী শিবিরে হতাশা হওয়ার এখন সময়। ভারতের দাদাগিরি করার সময় শেষ।
Total Reply(0)
জাহিদ খান ২১ জুলাই, ২০২০, ১:২৫ এএম says : 0
পৃথিবীর বুকে ভারত এমন একটা দেশ যার কোনো প্রতিবেশীর সাথে ভালো সম্পর্ক নেই।
Total Reply(0)
গাজী ওসমান ২১ জুলাই, ২০২০, ১:২৫ এএম says : 0
নেপালের কাছ থেকে আমাদের শেখার অনেক কিছু আছে।
Total Reply(0)
Kazi mamun ২১ জুলাই, ২০২০, ৭:১০ এএম says : 0
India government mp modi is bad men.he has been attact Kashmir peoples.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন